কবি রমেন্দ্রকুমার আচার্যচৌধুরীর কবিতা
*

.                 *****************             

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
আমার জটিল নকশা দেখে চমত্কৃত।

রাঞ্চন ফুল ফুটে ওঠে এক ঝলকে।

.           *****************             

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
.                        যেন মশামাছি,
.                মার্কিনে, এশিয়ায়, হরিয়ুপীয়ায়---
.                মধ্যপ্রাচ্যে তেলের কুয়োয় পড়ে পৃথিবীর উরু
.                মাটির ঊরুর শব্দে ফুট্ ভেঙে যায়।

.                  *****************             

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*

.                 *****************             

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
বালার্ক গাছ ও মৌমাছি
কবি রমেন্দ্রকুমার আচার্যচৌধুরী

হাতের কুরুশ-কাঁটা বিঁধেছিল নরম আঙুলে।
ঠে ঘুমন্ত মৌমাছি---
ঘুরে-ফিরে হাঁটে :
তুমি বেঁচে আছো কেন ?
করো নিচু তান দিয়ে ;
রাত্রি-ফোঁটা কাছে চলে আসে,
শুধু মাছি!’
কোথা থেকে আনো,
তোমার করুণ
আমি জয়োত্সব
দিয়ে যেই বসতে যাই,
কোণে
, ফুটে ওঠো ফের।
জড়ুল
কবি রমেন্দ্রকুমার আচার্যচৌধুরী

‘রানীর ঢঙে বোসো। বন-গহন খুঁজে
তেল
কবি রমেন্দ্রকুমার আচার্যচৌধুরী

আমি             ফরসা হল যেই, উঠে পুকুরের জলকে বললুম।
নক্র
কবি রমেন্দ্রকুমার আচার্যচৌধুরী

হাতের মশাল তুলে মেয়েটির মুখ
দেখলুম, অমল সরস্বতী
সোনার মুকুট নেই, কো
উঠোনের বিচুলিগাদায়
চতুর্দিক দ্যুতি ক’রে, গোল
খুলে পড়ে আছে। ডুরি,
পৃথিবীর নয় যেন, অনি
আমি দুই দিক থেকে আ
তন্নতন্ন দেখে নিই শেষ
তারপর রাঙা এক বিষ
.
মিলনসাগর    আমি ন

পাখি হয়ে উড়বে না, মাছ
নও গাছ, নও জন্তু, নও
.  
মিলনসাগর  গায়ে প
দেহের বলনি তোর নষ্ট
ভুরুর বলনি তোর পণ্ড
ঊষালগ্ন ভেঙে যাক
.                পিশাচউ