ঘোষদের বড় ছেলে
.                 হরদেব ডা
জালাটির মতো ভুঁড়ি
.           কি বিশাল গোঁফ
মুখখানি গোলগাল
.                 নাক শুধু চে
বেগে বয় নিঃশ্বাস
.                তুফানের ঝা
বেঁটে, খাটো, মোটা-সোটা
.                চেহারাটা হোঁ
রং দেখে চম্ কায়
.             বলা, ফেলা, ঘোঁ
থপ্ থপে ভারি পায়
.                চলে যাবে
দুই পাশে দুটি হাত
.              দোলে মৃদু দো
বুকে দোলে বুক দেখা
.                যন্ত্রটি স জ
কানে বুঝি কম শোনে
.                দেখে কম ন
চোখ দুটি কুৎ-কুতে
.                ভুরু নাই উপ
টেবো টেবো গাল দুটি
.               মৃদু হাসি অধ
গলাখানা ভাঙ্গা কাঁসি
.               সোনা বাঁধা
কবি অসীমা দাস-এর কবিতা
যে কোন গানের উপর ক্লিক করলেই সেই গানটি আপনার সামনে চলে আসবে।
*


যাপিয়াছি কত সুখ স্মৃতি,
.               কত যুগ যুগ ধরি,
.                           আকূল বিরহ ক্ষণে |
কত প্রণয়ের কলগীতি দোঁহে,
.               কন্ঠে মাধুরী ভরি,
.                          গেয়েছি বেদন বীণে ||

.            তব সুর আর মোর কলভাষে,
.        হাসিত বনানী উচ্ছল হাসে,
বনদেবী সম তুলিয়া কুসুম,
.             পরিতাম মোর মাথে,
.                            পরাতাম তব গলে |
কৌতুকে ভরি উচ্ছাস হাসে,
মিলনসাগর.কম
.              বন হরিণী বিহগী সাথে,
.                             কাঁদাইতে কত ছলে ||

মনে পড়ে কিগো সেদিনের স্মৃতি ,
.               সুখ দুখ দিয়ে ঘেরা,
.                                   জীবনের স্পন্দনে |
পথ হারানোর ছলে তপবনে,
.              এসে বেঁধেছিলে ডেরা
.                              কোন অভিসার ক্ষণে ||

.             সখিগণ লয়ে কুসুম কাননে,
.             রত ছিনু যবে বারি সিঞ্চনে,
সহসা আসিলে সুমুখে আমার,
.                 লতা মন্ডপ ছাড়ি,
.                               প্রভাত তপন সম |


শরমে শিহরি উঠিনু চমকি,
.               পুষ্প মালাটি ত্যাজি,
.                            হেরি তোমা নিরুপম ||
.           আলাপন ক্রমে অনুরাগ হয়ে,
.           নেমে এল ধীরে আমার হৃদয়ে,
যৌবন রাগে রঞ্জিত তনু,
.                   চিকন ঢাকি বদনে,
.                                    লাজ কুন্ঠিত চরণে |
দাঁড়াইনু আসি দুয়ারে তোমার,
.             ভরি উচ্ছাস প্লাবনে,
.                    ( তুমি ) চাহ প্রসন্ন নয়নে ||
দোঁহার মরম এক হয়ে গেল,
.           ক্ষণিকের মাঝে জানি,
.                                কার ইঙ্গিত পরশে |
মোদের হরষে গাহিল পাপিয়া,
.            প্রেমের মিলন বাণী,
.                             মুকুলিত আধ ভাষে ||
.                  আজ ভেঙ্গে গেছে সেই সুখ ছবি,
.            হারায়েছে গান পথ হারা কবি,
.     উদাসী পথিক পথ বেয়ে চলে,
.                 যাত্রী পথে যে একেলা,
.                                সুপ্ত বিপুল ধরণী |
তারি সাথে জাগে আঁখি তারা মোর,
মিলনসাগর.কম
.                       অভাগী শকুন্তলা,
.                            জাগিছে মৌন রজনী ||

.                 ******************     
.                                                                                     
সুচিতে...   


মিলনসাগর
শকুন্তলার স্মৃতি      
অসীমা দাস
*
.               মিথ্যে  কথা    আটকায়  নাকো,
.                                   প্রতারণা করা  শিখেছ ভালো |
.               তোমরাই   এই    জন্মভূমির ,
.                                   মুখখানি  করে দিয়েছ  কালো ||
.              নারী   যদি  আজ   মাথা  তুলে  উঠে,
.                                   তোমরা  দাঁড়াবে তাদের পাছে |
.              জানিও   এসেছে   বাংলা   দেশে,
.                                   প্রগতির   যুগ   নারীর   কাছে | |
.              তবে  এটি  জেনো,   মতৃজাতি,
.                                   স্নেহ     মমতায়    পূর্ণতর  |
.              তোমাদের    মত   নিষ্ঠুর   নয়,
.                                   সহানভূতিতে   হৃদয়   বড়  ||
.              ক্ষমা,  দয়া   আর  নারীর  স্নেহে,
.                                   অধীন থাকতে তোমরা বাধ্য |
.              সে  শাসন   কেড়ে  লবে  কি তোমরা,
.                                    তোমাদের   তা  নাহিক সাধ্য ||


বাংলার ছেলে : তাই বলি,  যে বা যাহাই বলুক,
.                                
মিলনসাগরআছে,  রোগ, আছে শোক তা জানি |
.                   অভাব  তো  আছে,  আছে আরও জ্বালা,
.                                             আছে  জীবনে  করুণ  গ্লানি ||
.                   তাই  বলি  অত  ভেবে  কিবা  কাজ,
.                                             নারীর  হাতেই  দিলাম  তবে |
.                   টাকা  পয়সা   সব  কিছু  দিয়ে,
.                                             নিশ্চিন্ত  হব  আমরা  সবে  ||


গৃহলক্ষ্ণী :     এই  তো   লক্ষ্ণী  ছেলেটির  মত,
.                                              কথাটি  বলছ   এখন  তবে |
.                        সুখ,   দুঃখ    ভাগ  করে  নেবে,
,                                              পুরুষ  নারী  সমান  ভাবে ||
.                তবেই    জেনো    উন্নতি   হবে,
.                                              মোদের সোনার বাংলা দেশে |
.                অধঃ পতন    হবেই     আবার ,
.                                              নারীরে   ঠেল্ লে  অবশেষে ||
বাংলার ছেলে      
অসীমা দাস
*
পাই না ভেবে কেমন করে
.                   করলে এমন ভূল |
ফুলের যেথা নেই ঠিকানা
.                   ফোটাও সেথা ফুল ||
তোমায় আমি বলছি মাগো
.                   যখন বড় হব |
ভুলগুলি সব শুধ্ রে দিয়ে
.                   ধমক্ দিয়ে কব ||
আর কর না কেহ এমন
.                  বিষম খাওয়া ভুল |
করবে যদি ভুলের ব্যাভার
.                 ছিঁড়বো তবে চুল ||

.              ******************     
.                                                                                     
সুচিতে...   


মিলনসাগর
ভুলে ভরা পাঠ      
অসীমা দাস
*
কথা যবে কয় হারু  
.               লোকে উঠে আঁতকে  ||
একদিন শোন ভাই
.               কি যে মজা হলরে  |
রোগী দেখে হরদেব   
.               ফিরছিল সদরে ||
এক হাতে ভরা ব্যাগ  
.               আর হাতে লাঠিরে  |
বারে বারে ভরা ব্যাগ
.               ছুঁয়ে যায় মাটিরে    |
হিম্ সিম্ খেয়ে হারু
.                চলে দ্রুত ষ্টেশনে  |
দেখা হল মোনা সাথে  
.                কি জানি কি কুক্ষণে ||
মোনা বলে, মোর হাতে
.                দিন বাবু বোঝাটি |
ডাক্তার তেড়ে উঠে
.                কে হে বাপু, নাম কি ?
চিনিনা তোমারে কভু,
.                ঐ বুঝি এল  রেল |
ছাড় ছাড় পথ ছাড়
.                শেষে কি করিব ফেল ?
ডাক্তার দ্রুত যায়
.                মোনা ধায় পিছেরে |
অতখানি পথ  চলা
.                হয়ে যাবে মিছেরে  ||
ভাবে মোনা মনে মনে  
.                নব নব ফন্দী |
কেমনে করিবে তায়
.                এই খানে বন্দী  |
নাম জাদা গুন্ডা সে
.               প্রাণে ভয় নাহি রে |
গুটি গুটি পথ চলে
.               চারিদিকে চাহিরে   ||
ষ্টেশনে আসিয়া কহে  
.               যাত্রীরে ডাকি য়া |
সাবধানে থেকো সবে
.               এক সাথে  মিলিয়া    ||
উৎপাত বাড়িয়াছে
.               হেথা বড় চোরদের |
টাকা কড়ি সাবধান  
.               সাবধান মেয়েদের ||
পড়ে গেল হুড়াহুড়ি
.               গাড়ি আসে ষ্টেশনে  |
হরদেব জোরে চলে
.               ঘাম ঝরে বদনে   ||        
ঐ দেখ ঐ আসে
.               অদ্ভুত অতিশয়  |              
চারিদিকে হই চই
.               ঐ চোর নিশ্চয়  ||
ধর ধর গেল রব
.               গোলমাল চট্ পট্ |
আপনার কাজ সারি
.               মোনা দিল চম্পট্ ||
হরদেবে ধরি সবে
.               কহে, শোন বাপু হে |
হেথা কেন আগমন
.               কি করিতে চাহ হে ||
সরে পড় চট্ পট্
.               নয় দেব পুলিশে |
বিস্ময়ে হতবাক
.               হরদেব তরাসে ||
কহিল সভয়ে হেরি
.               জনতার পরিমাণ |
কি করেছি অপরাধ
.               কেন এই অপমান ?
ছেড়ে দিন টিকিটের
.                দিয়ে আসি দামটা |
জনতা মুখিয়ে উঠে
.                বল  যাদু নামটা ||
কিল চড় ঘুষি পড়ে
.                 পিঠে বুকে দমাদম্  |
মাথা ঘুরে পড়ে হারু
.                 আটকায় বুঝি দম্  ||
কহে কেউ ব্যাগে ওর
.                 আছে ভরা গয়না ||
এই বেলা নিয়ে নেনা
.                 যেন টের পায়না | |
শুনে হরু হাত জুড়ি
.                 কয় ডাকি সবারে |
ওতে হাত দিও নাকো
.                 ভরা আছে খাবারে ||
মার মার আরও মার
.                 ব্যাটা বড় তাগড়া |
সারা গায়ে ফুটে উঠে
.                 প্রহারের দাগড়া ||
নিরুপায় হারু কাঁদে
.                 বোঝাতে না পারে হায় |
বিনা দোষে বিদেশেতে
.                 প্রাণ বুঝি এই যায় ||
লাঠি ব্যাগ কোথা গেল
.                 কে নিল তা কে জানে |
যায় যাক ব্যাগ লাঠি
.                 বাঁচি যদি পরাণে ||
হেন কালে কাছে আসে
.                 ও পাড়ার সামুয়া |
জনতা ঠেলিয়া ডোকে
.                 হারু যেথা পড়িয়া ||
চমকিয়া উঠে সামু
.                 এ কি দশা হল হায় |
হরদেব ডাক্তার
.                 কেন গড়াগড়ি যায় ||
শুনে সব ঘটনা
.                 সামু উঠে হাসিয়া |
ভুল করে নির্দোষে
.                 ফেলেছ যে মারিয়া ||
চের নয় কোন কালে
.                 চেহারাটা বদ্ খৎ |
নেশা ভাঙ করে নাক
.                 ছেলে ভাল অতি সৎ |
ছেড়ে দাও ভাই সব
.                  ক্ষমা কর এবারে |
ওঠো ওঠো হরদেব
.                  সামু ডাকে তাহারে ||
চোখ খুলি সম্মুখে
.                  সামুয়ারে দেখিয়া |
হাউ মাউ করে হরু
.                  উঠিল যে কাঁদিয়া ||
ওরে সামু, ওরে ভাই
.                  বাঁচা আজ আমারে |
প্রাণ বুঝি যায় মোর
.                  নিদারুণ প্রহারে ||
রেলে বসি সব কথা
.                  সামু কহে তাহারে |
নিজ দেশ ছাড়ি কভু
.                  যেও নাকো বাহিরে ||
সেই দিন হতে হরু
.                  ছেড়ে দিয়ে ডাক্তারী  |
দোকান করিয়া বসে
.                  চাল ডাল মনিহারী  ||
মিলনসাগর থেকে
.                  এই কবিতা করা চুরি ||

.              ******************     
.                                                                                     
সুচিতে...   


মিলনসাগর
সখের ডাক্তার      
অসীমা দাস
গৃহলক্ষ্মী :           বাংলার ছেলে  বাংলার ছেলে
.                                          
.                      এখনও কি তুমি সুখের সাথে,
.                                        
.                      এখনও কি তুমি আরাম চাহ,
.                                         বাঁচতেই চাও কেবলই সুখে |
.                      বোঝ নাকি আজ তোমার ঘরেতে,
.                                         সুখ ত্যজিয়াছে মহা দুখে ||
.                      তোমরাই চাও সুখ আরাধনা,
.                                        
.                              
বাংলার ছেলে :   কেন তুমি অত ডাকাডাকি কর,
.                                           কে তুমি ওগো কাদের বধূ |
.                     ছুটির দিনেও আরাম পাব না,
.                                                      প্রভাত হতেই ডাকছ শুধু ||


গৃহলক্ষ্মী :       আমি তোমাদের ঘরের লক্ষ্মী,
.                                           ঘর কর তবু জান না মোরে  |
.                    ঘুম ভেঙ্গেছে, শান্তি পেয়েছ,
.                                           জানতে এসেছি আদর করে ||


বাংলার ছেলে : কিসের    নিদ্রা,    নব    জাগরণ,
.                                                   সারা দেশ ভরে জোয়ার আনে |
.                   বিদেশী কাপড়  পরতে শিখেছি,
.                                          নাম করেছি বাবুয়ানা গুণে ||
.                   নিমন্ত্রণে  ও  সিনেমা  যাই,
.                                          নূতন ফ্যাশান দেখবো বলে |
.                   সাহেবের  মত ঘোরাঘুরি  করি,
.                                         হেঁড়ে  গলা আর হাসির রোলে ||
.                   মোটরেই  চলি,  পায়ে  হেঁটে যাই,
.                                         ষ্টাইল   কখনও   যাই না ভুলে |
.                   নূতন  ফ্যাশান  সার্টের কফ্,
.                                        কব্জিতে  টেনে  হাতেতে তুলে ||
.                   হাজার  রকম  জামার  ফ্যাশান,
.                                        পায়ের  জুতো  কাঁদছে  শোকে |
.                         পাঞ্জাবী,  হ্যাট,  কোটটি  পরি,
.                                         যে  বছর  যেটা  লাগে চোখে ||
.                   নিত্য   মোদের  বদলায়  মত,
.                                        পৃথিবী   আপনি   ঘুরেই  চলে  |
.                  মহিলাদেরই   চরম   শাস্তি,
.                                         নাকের জলে ও চোখের জলে ||
.                  আমরা  এনেছি  নবারূণ  আলো,
.                                         জানি  না কোথায় দুঃখ আছে |
.                      সুখের  পায়রা   পিক্ সম মোরা,
.                                         লুটায়  ধরণী  পায়ের  কাছে  ||
গৃহলক্ষ্ণী :     
.                                    
.               
.                                    
.               বায়স্কোপের  ভিড়  ঠেলে  শুধু,
.                                    নাম   কর  বুঝি  গুন্ডামিতে  |
.               পাশ  করে  মাথা  কিনে  কি ফেলেছ,
.                                    পোক্ত    হয়েছ   ওস্তাদিতে  ||
বাংলার ছেলে :
.                                              
.                    
.                                              


.                                        ******************     
.                                                                                     
সুচিতে...   


মিলনসাগর
কদমতলায় কেষ্ট ঠাকুর
.                   বা
ফোটে নাকো কদম
.                   নি
‘মণিপুরে’ নেই মা ম
.                   ‘শা
‘গোপালপুরে’ গোপা
.                   ‘
জাম নেই কো মোটে
.                    না
এমন বিষম ভুলে ভ
.                    ক
ভূগোল খুলে যখন আ
.                   পা
পড়তে গিয়ে ভুল হ
.                   মা