কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদারের কবিতা ও ছড়া
*
শুধু শুধু লাভটা কী বাঁধিয়ে বিপত্তি
‘সাবধানে মার নেই’ কথাটা তো সত্যি !

.           *********************  

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
ঠাম্মা হেঁকে বাপিকে ডেকে দিয়েই টোকা নাকে,
বললে রেগেই, খোকনকে তুই মারলি কেন পাঁচু ?
মুখ শুকিয়েই অমনি বাপি হলেন কাঁচুমাচু !

.            *********************  

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
‘হরিণঘাটা’ও আছে, তাই মনে আপশোশ !
মানুষের গাঁটে-গাঁটে শয়তানি ফন্দি
উঠোনেতে কেটে দাগে খেলে ‘বাঘবন্দী’ !

অত সোজা নয় বাপু, ভাবো যত মনেতে
নয়া-দল গড়বই ফিরে গিয়ে বনেতে !
মানুষের দিন শেষ,  আমরাই রাজা রে
আমাদের ‘হেড-অফিস’ হবে বাগবাজারে !

.            *********************  

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
.             ব্রেক-ড্যান্স দেয়, দোলে
.             খুশির তুফান তোলে
.             যখন ঘুমেই ঢোলে
.             যে যার মুণ্ডু খোলে
মুণ্ডুকোলেতে শুয়ে পড়ে গিয়ে মায়ের কাছে
পান্থভূতের শান্ত-ছানারা ভালোই আছে !

.            *********************  

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
‘ভূতের বোঝা’র ওজনটা কত, যায় বোঝা ভূতে ধরলে ?

ভূতগ্রস্থের মানে কি জানিস ?  ভূতাবেশ ?  ভূতাবিষ্ট ?
কোন্ কোন্ ভূত শান্তশিষ্ট ? কারা খুবই ন্যায়নিষ্ট ?
কোন্ কোন্ ভূত করে ‘রাম-নাম’ ?  কারা গায় ‘হরে-কেষ্ট’ ?
ভূতের জগতে কারা অতি ওঁচা ? কারা রূপে-গুণে শ্রেষ্ট ?

ভূত-গণনার রিপোর্ট জানিস ? বল কত ওরা সংখ্যায় ?
বারবার কেন হেঁচকি তুলিস ? পড়েছিস যেন শঙ্কায় !
প্রশ্ন শুনেই খাস্ ‘খাবি’ খোকা, সত্যি কী বোকা তুই যে
সব উত্তর মিলবে আমারই লেখা-বই ভূত-ক্যুইজে !

.                *********************  

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
ছু
মাটির নীচে                  ট্রেন ছুটেছে               চু-কিত-কিত
চু
শীতকালে বয়                হিমেল হাওয়া            গ্রীষ্মেতে প্রায়
লু
কলকাতা তুই                 হাসাস-কাঁদাস              হৃদয়ে দিস
ফুঁ

ছু-মন্তর                         ছু-মন্তর                       ছু-মন্তর
ছু
কত্ত মানুষ                    রুজির খোঁজে              মারছে রোজই
ঢুঁ
সবার দুখেই                     মরিস কেঁদে               বুক করে হু
হু
লক্ষ প্রণাম                       জানাই তোকে             গুণবি  ওয়ান
টু----

.                *********************              

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
তোকে নিয়ে লিখতে ছড়া
সত্যি আমি ঘোল খাতা,
কলকাতারে, কলকাতা !

.     *********************              

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
সাবধানে মার নেই
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

ভূত-টুত মানি নারে এই দ্যাখ ডান্ডা
তিনবার ঘোরালেই সব ব্যাটা ঠান্ডা |
মেছোভূত, গোছোভূত, গোভূতের বাচ্চা
সবার চেয়ে সেরা
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

বুক বাজিয়েই বললে ইঁদুর, কিঁচ-কিঁচ-কিঁচ-কিঁচ
আমার সাথে লড়তে পারিস, আছিস কি কেউ নীচ ?
এই-বলা-যেই কানের কাছেই শব্দ হল ‘মিউ’
বাঘাড়ম্বর
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

মার্কাস স্কোয়ারেতে বসেছিল সার্কাস
উঁচু-উঁচু টিন দিয়ে ঘেরা ছিল চারপাশ !
একদিন মাঝ-রাতে সেই বেড়া লাফিয়ে
অদ্ভুতুড়ে—বদ্ভুতুড়ে
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

অমাবস্যার ঘুটঘুটে কালো আঁধার রাতে
পান্তভূতের শান্ত-ছানারা মজায় মাতে !
.           ডিগবাজিখায়, ল্যাংচায়
.           এ ওকে মুখ ভ্যাংচায়
.           চিংড়ি-চাঁদা-চ্যাং চায়
ভূত-ক্যুইজ
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

ভূত নিয়ে নাকি গবেষণা ক’রে, ক’রে দিলি বাজিমাত ?
ভূতের মতোই ভূতগতপ্রাণ তুই ভূতো ভূতনাথ !
এই দুনিয়ায় কেউ শেখে দেখে, কেউ-কেউ শেখে ঠেকে
কলকাতার কড়চা
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার
"মিঠে কড়া শ্রেষ্ঠ ছড়া" কাব্যগ্রন্থ থেকে

কলকাতারে, কলকাতা
লিখব ছড়া খোল খাতা
বুক জুড়ে তোর ছিল শুধুই
*
চোর-চোট্টা-চিটিং আছে
ট্রামে-বাসে লড়াই আছে
তবুও বাঁচার বড়াই আছে
বড়াই আছে, বড়াই আছে, বড়াই আছে ---

.     *********************              

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
খেমটা ও ঠুমকি,
ভাংরা-গরবা-বিহু
নৃত্যের ধুম কী !

আয় তাই বোন-ভাই
তুলে রেখে খাতা বই,
খাই-দাই, নাচি-গাই
তাতা-থৈ,  তাতা-থৈ !

.     *********************              

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
নাম বীথি আর ইতি,
গায় তারা রোজ রজনীকান্ত
আর নজরুলগীতি !

তাদের কাকা, কন্ঠ পাকা
নাম কী ? বনমালী,
সে গায় বাউল-ভাওয়াইয়া
লালন-ভাটিয়ালি !

জারি-সারি, তরজা-ঝুমুর
চটকা-টুসু-ভাদু,
গানেই আছে প্রাণদোলানো
মনভোলানো জাদু !

.     *********************              

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
কলকাতার হালখাতা
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

কলকাতা, তোর দ্বন্দ্ব আছে
ভালোও আছে, মন্দ আছে
নাচবিচিত্রা
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

শোনো ভাই, নাচ নিয়ে
আজ কিছু কথা বলি,
বেহালার বেহুলা-দি
গানবিচিত্রা
কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

গোপন কথা বলছি, আমার
কামারহাটির মামার,
ছোট্ট থেকেই সাধ ছিল খুব