কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা



যাত্রা করি সাধু লড়ে                ব্রাহ্মণেতে বেদ পড়ে
হাতে ধান্য দূর্বা গঙ্গা জল  |
ঘৃত মধু দধি খন্ড                      থুইল অমৃত ভান্ড
সম্মুখে থুইল নানা ফুল ||
আশ্বাসিয়া জনে জনে                প্রধান যত পাত্রগণে
নানা বস্ত্রে করিয়া ভূষণ  |
যত দিন না  আসি আমি              সাবধানে থাক তুমি
পুরীতে না আসে অন্যজন ||
তোলা নিয়া বাটাবাটি                   বসিবার রাঙ্গাপাটি
জল খেতে সুবর্ণের ঝারি |
সঙ্গে যে যাইতে চায়                তারে নিয়া তোল নায়
হুকুম করিল অধিকারী  ||
ধেনু বৎস কৃষ্ণসার                   নানা পুষ্প আনে আর
যাত্রা করি চলে সদাগর |
বিজয় গুপ্ত কবি ভণে                     শুনহ রসিক জনে
দোলায় চলিল চন্দ্রধর ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
ক্ষার চূণের গন্ধ পাইয়া পলাইল ডরে |
সমুদ্র বাহিয়া যায় চান্দ সদাগরে ||
এক বাঁক হইতে সাধু আর বাঁকে যায় |
মালিমে ডাকিয়া বলে শুন মহাশয় ||
শঙ্খ সমুদ্রে আছে বুঝিলাম সন্ধান |
চাপিয়া ধরিল নৌকা নহে আগুয়ান ||
এতেক শুনিয়া চান্দর স্থির নহে মন |
মালিমে বলেন ঠাকুর চিন্ত কি কারণ ||
চান্দর নফর ধনা জানে নানা সন্ধি |
লোহার চাই পাতিয়া শঙ্খ করে বন্দী ||
চরের উপর সাধু থুইল পুতিয়া  |
যাবার কালে নিব শঙ্খ নৌকা ভরিয়া  ||
এইরূপে চলে যায় হরষিত মন |
মধ্য গাঙ্গে এক পুরী দেখিল তখন ||
দূরে থাকি তাহা দেখে চান্দ সদাগর |
কার পুরী দেখি এই সমুদ্র মাঝার ||
কেহ বলে ডাকাতে ভাত রান্ধি খায়  |
কেহ বলে রাজা বুঝি জলকর লয়  ||
কাহার হইতে পাব পুরীর বার্তা সার |
জলমধ্যে পুরীখান ঐ দেখি কার ||
হেনকালে কৈবর্ত দেখে সমুদ্র মাঝার |
নিকটে আনিয়া তারে বলে সদাগর ||
চান্দ বলে বিবরণ কহ মোরে সার |
জলমধ্যে পুরীখান ঐ দেখি কার ||
স্বরূপ কহিলে দিব খাসা ইনাম |
মিথ্যা কহিলে তোর কাটিব দুই কান ||
সেলাম করে কৈবর্ত কৌতুক হইল বড়ি |
এইকালে বল ভাই সরস লাচারি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্ত-র মনসামঙ্গল কাব্য
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা



চান্দর দেখিয়া ভয়                  যোড়হস্তে কৈবর্ত কয়
অবধান কর মহাশয় |
যে মোর পুছিলা সার                   জলমধ্যে পুরী কার
তার নাম লইতে রাসি ভয় ||
ডিঙা লইয়া সাধু যত                   আসে যায় এই পথ
এখানে রহিয়া পদ্মা পূজে |
নাও যায় ভরিয়া ধনে                   পদ্মাবতী পরশনে
ঘরে গিয়া নানা সুখ ভুঞ্জে ||
কহিলাম যে কিছু জানি                 দেবের দেব শূলপাণি
তাহার তনয়া মনসা  |
তোমারে কহিলাম শুন                    চৌদ্দডিঙ্গা ভরি ধন
ধূপ দীপ দিয়া পূজহ মনসা ||
পদ্মার অভক্ত যে                           অবিলম্বে তার ক্ষে
ততক্ষণ তার সর্বস্ব যায় |
আপনে দিয়াছ আশা               ইনাম আমারে দিবে খাসা
ঘরে যাই পাইলে বিদায় ||
কহিতে কৈবর্ত হাসে                     বিষ হেন চান্দ বাসে
ধীবর বান্ধিয়া তোল নায় |
আমারে ভান্ডিয়া কানি               ভাল পাইয়াছ ঠাঁইখানি
বর্বর ভাঁড়াইয়া পূজা খায়  ||
পদ্মাবতী পরশণে                        সানন্দে বিজয় ভণে
ঘট ভাঙ্গিতে চান্দ যায়  |
যত লোক নহে বুঝে                      মহাদেব নহে পূজে
তেকারণে এত দুঃখ পায়  ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
১  
মনসার জন্ম পালা

গৌরী কোন্দল পালা     

মনসা বিবাহ পালা     

অষ্ট নাগের জন্ম পালা   

অমৃত মথন পালা   

বনবাস পালা       

হাসন হুসন যুদ্ধ পালা     

গুয়াবাড়ি কাটা পালা       

ধন্বন্তরি বধ পালা     
১০
ছয় কুমার বধ পালা     
১১
ঝালুবাড়ির পূজা পালা  
১২
যমযুদ্ধ পালা      
১৩
যাত্রাপাটন পাটন পালা     
  ১. প্রণমি মনসা দেবী নমি বিষহরি   
২. যথা তথা যাও সহায় করি শিব   
৩. আগে  তোল  ধনখন্ড স্বর্ণ তোলে ঙান্ড ঙান্ড    
৪. যাত্রা করি সাধু লড়ে ব্রাহ্মণেতে বেদ পড়ে   
৫. হেতালবাড়ি কান্ধে করি চলে সদাগর   
৬. চান্দর দেখিয়া ভয় যোড়হস্তে কৈবর্ত কয়   
৭. এতেক শুনিয়া সাধুর সর্বাঙ্গ কাঁপে   
৮. চৌদিকে বার্তা পায় পর দলে রাজ্য লয়   
৯. রাজা বলে কোতোয়াল মোর কার্যে যাও   
১৪
বস্তুবদল পালা     
১৫
ডিঙ্গা বুড়ান, লক্ষ্মীন্দরের জন্ম ও চান্দ লাঞ্ছনা পালা
১৬
লখিন্দরের বিবাহের জোড়ানি পালা    
১৭
লোহার বাসর ঘর নির্মাণ পালা     
১৮
লখিন্দর বিবাহ পালা       
১৯
লখিন্দর দংশন পালা   
২০
ভাসান পালা      
২১
স্বর্গারোহণ পালা     
ব্রাহ্মণ জাতি বসে যত সকলের চর্মকাটি ||
ভাইর বধূ করে কনিষ্ঠে বদলা |
ভগ্নী লইয়া ঘর করে ভাইরে বলে শালা ||
সকল জাতির নারী বেড়ায় দীর্ঘ ছান্দে |
বিচিত্র বসন দিয়া দিই স্তন বান্ধে ||
সব জাতি একাচারী নাহিক আচার |
ধর্মাধর্ম জ্ঞান নাই কুত্সিত আকার ||
পশ্চিম দেশের কথা শুন সদাগর |
সেই দেশের লোক বড়ই বর্বর ||
সেই দেশের লোক চলে গলায় দিয়া পাটা |
হিন্দু ব্রাহ্মণের চিহ্ন নাই সকলের কান কাটা ||
ষোল বত্সরের হইলে যুবতীর বিয়া  |
পুরোহিতে বাড়ি থাকে দক্ষিণার লাগিয়া ||
বিবাহ করিয়া দেয় ভগ্নীপতির ঘরে |
অপত্যাদি হয় যদি তাহার উদরে ||
দেশেতে আনিয়া শেষে সমভাগ করে |
সেই ভাগসহ তার স্ত্রীকে নেয় ঘরে ||
ভট্টাচার্য হাল চষে গলায় পৈতা দিয়া |
স্ত্রীলোকেতে ঘুটা বাছে বিবস্ত্র হইয়া  ||
দক্ষিণ পাটনের কথা শুন সদাগর |
অবোধ নগরে সেই পরম সুন্দর ||
সেই দেশের রাজার কথা শুন সদাগর |
রাজার নাম তথা বিক্রমেশ্বর  ||
সে দেশের লোক অতি বড় ধনী |
ভেলায় করিয়া রাখে মাণিক্য দোহারী  ||
অমাবস্যার তিথি আসে পৌর্ণমাসী |
ঢেউতে নিয়া শঙ্খ মুক্তা তোলে রাশি রাশি ||
হাট কুড়াইয়া খায় হাটুরিয়া কাঙ্গাল |
পাটিচে করিয়া শুকায় মুকুতা প্রবাল ||
এতেক শুনিয়া সাধুর আনন্দিত মন |
নিশ্চয় কহিল যাব দক্ষিণ পাটন ||
এবার কৃপা মোরে কর চন্ডী আই |
আজুকার দিন গেলে দিনের কূল পাই ||
চৌদ্দ ডিঙ্গা ভরিলেক বহুমূল্য ধন |
এতেক শুনিয়া তবে হরষিত সর্বজন ||
এইরূপে সদাগর চলিল সত্বর |
মালিমে ডাকিয়া বলে শুন সদাগর ||
দশ কূল পাবা হেন অনুমানি |
এবার তারাইলা বুঝি শঙ্কর ভবানী ||
বিজয় গুপ্ত বলে গাইন কৌতুক হইল বড়ি |
এই কালে বল ভাই সরস লাচারি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
ততক্ষণে মেলে গিয়া সদাগর যথায় ||
বর্ধকী দেখিয়া বলে সাধুর নন্দন |
ইঙ্গিত করিল এখন খসা রে বন্ধন ||
প্রণাম করিয়া বলে যতেক সূত্রধর |
প্রসাদ দিয়া তাহা সবারে করে পুরস্কার ||
চান্দ বলে ভাই শুন হে বচন |
ডিঙ্গা নাও করিতে তোমারা করহ গমন ||
গহন সমুদ্র তরিব প্রসার বিস্তর |
নৌকা ভাও করিয়া আনহ সত্বর ||
প্রণাম করিয়া তারা চলিল ত্বরিত |
সুতার বিদায় দিয়া চান্দ চলিল পুরীত ||
স্নান পূজা করিল তবে সাধুর নন্দন |
বিনোদ মন্দিরে গিয়া করিল শয়ন ||
কহিল সকল কথা নাহি লেখা যোখা |
চান্দ বলে শুন বাক্য সুন্দরী সোনেকা ||
ঘরে বসিয়া খাইতে ফুরাইল ধন |
কল্যআমি যাইব দক্ষিণ পাটন ||
পুত্র নাই মিত্র নাই সবে দুইজন |
বৃদ্ধকালে আমারে পুষিবে কোন জন ||
সোনাই বলে প্রাণনাথ রাজ্যের ঠাকুর |
কোন কাজে ডিঙ্গা লইয়া যাবে বহুদূর ||
সংসারের মধ্যে সার আছি দুই জন |
কোন দুঃখ যারা তুমি দক্ষিণ পাটন ||
চরণে পড়িয়া সোনা উচ্চৈস্বরে কান্দে |
এই কালে বল ভাই লাচারির ছন্দে ||

.                                   ****************                         
সূচি...    


মিলনসাগর
*
নিকটে মিলিল সাধুর শুভ লগন ||
দুর্গা শিব চান্দ বলে ঘন ঘন |
যাত্রা করিতে বসে সাধুর নন্দন  ||
( শুভক্ষণে যাত্রা করে সাধু সদাগর )  |
শিবদুর্গা বলিয়া গেল বাহির দখল ||
বাহির হইতে গিয়া সাধু বসিল দেয়ানে |
( সংবাদ দিয়া আনিল যত পাত্রগণে ) ||
সোমাই পন্ডিত আসিল কুলের ব্রাহ্মণ  |
শান্তিরব চতুরঙ্গ আসিল সর্বজন ||
চান্দ বলে শুন সোমাই আমার বচন |
দেশ ছাড়ি যাব আমি দক্ষিণ পাটন ||
দেশের যত ভার দিলাম তোমার তরে |
সর্বলোকে পালন করিও আমার অগোচরে ||
মহানন্দের তরে পুরিল হাহাকার |
সত্বরে চল তুমি নৌকা সাজাবার ||
হাতে সাজি লইয়া ধাইল তখন |
চৌদ্দ ডিঙ্গায় ভরিলেক বহুমূল্য ধন  ||
হরষিতে সদাগর তুলিলেক গাও |
শিবদুর্গা বলি চান্দ  বাড়াইল পাও ||
চান্দ বলে ধনা তুই মোর কথা ধর |
নানা দ্রব্য তোল নিয়া ডিঙ্গার উপর ||
লোকে কলরব করে জয় হুলাহুলি  |
জয় জয় করি দ্রব্য ডিঙ্গায় নিয়া তুলি  ||
হরষিতে চলিলে চান্দ বড় আনন্দিত |
এই কালে বল ভাই লাচারির গীত ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*
মনসামঙ্গল কাব্যের সূচি
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা



চৌদিকে বার্তা পায়                 পর দলে রাজ্য লয়
কোতয়ালে কেমনে রহিছে ঘর |
এতকাল চৌকি রাখি             এমন সাধু নাহি দেখি
প্রতি নায়ে চৌসারি ঘর ||
রক্ত পাটের শরৈ                  চামরে ঢাকিছে গলই
দুই দিকে কামান সিপাই |
শ্বেতচামরে বাও করে             মযূরে আড়ানী ধরে
দুই দিকে কামান সিপাই ||
সকল কোতোয়ালমিলি            রাজার ঠাঁই গেল চলি
মাথা নোয়াইয়া কহে কথা |
পদ্মাবতী দরশনে                  সানন্দে বিজয় ভণে
পরদল আসিছে হেথা ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা



আগে  তোল  ধনখন্ড                 স্বর্ণ তোলে ঙান্ড ঙান্ড
সাধু নহে ধনেতে কাতর |
হীরামন মাণিক্য                         ডিঙ্গায় তুলিল সারা
আর তোলে বিচিত্র পাথর ||
ছোলঙ্গ জামীর ফল                     মিষ্ট তোলে নারিকেল
গুয়ার পাকড়ি ছড়া ছড়া  |
সুতার কাপড় গড়া                 তোলে জোয়ান ঘড়া ঘড়া
আর তোলে চটের ধোপড়া  |
মাষ মশুরী ছোলা                           আদা হরিদ্রা মূলা
নানা দ্রব্য তোলে নিয়া নায় |
জিনিষ তুলিল নায়                         সানন্দে বিজয় গায়
সাধুরে জানাতে ধনা যায়  ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা

                   ৯
রাজা বলে কোতোয়াল মোর কার্যে যাও |
শীঘ্রগতি তথা গিয়া তথ্য লইয়া আও ||
লক্ষের পুটুলি ফেলে জলের ভিতর |
তবে সে আসিবে ডিঙ্গা ঝোপের ভিতর ||
রাজার আজ্ঞায় কোতোয়াল চলিল সত্বর |
অবিলম্বে গেলা যথা চান্দ সদাগর ||
ডিঙ্গা রাখ পরদেশী বলে কোতোয়ালগণে  |
ঝোড়ে না লাগাও ডিঙ্গা বিনা পরিমাণে ||
পর দল হও তুমি নহে মহাজন  |
এত বড় ডিঙ্গা নাহি আনে কোন জন ||
কোতোয়াল পাইক রহিল থরে থরে |
মধুকরে থাকি চান্দ পরিচয় করে ||
আপন কুশল যদি চাও দেও পরিচয় |
যে সব আড়ম্বর দেখি কভু সাধু নয় ||
থাকুক অন্যের কাজ বলে কোতেয়াল |
জনে জনে কাটিয়া তুলিয়া দিব শালে  ||
ডাক দিয়া বলে তবে রোঙ্গাই ব্রাহ্মণ |
তোমার দেশেতে আইল সাধু মহাজন ||
চম্পক নগরে রাজা চান্দ সদাগর |
বাণিজ্য করিতে আইল কহিল সত্বর ||
যদি তোমরা হও লক্ষের সদাগর |
লক্ষের পুটলি ফেল জলের ভিতর ||
এতেক নিষ্ঠুর বাক্য বল কি লাগিয়া |
না রব তোমার রাজ্যে দেশে যাব ধাইয়া ||
চান্দর যতেক সৈন্য সকলি ইতর |
হুড় হুড়ি করিয়া গেল ঝোপের ভিতর ||
ভাই ভাই বলি সাধু বলিল উত্তর |
বৃদ্ধ কোতোয়াল গেল চান্দের গোচর ||
সোনার বাটিতে চান্দ খায় গুয়াপান |
দুই বিড়া পান দিল তাহার বিদ্যমান ||
দুই বিড়া পান দিল চার ঘা গুয়া |
হস্তে করিয়া বলে কি করিব ইহা ||
চান্দ বলে হের দেখ সাক্ষাতে খাই  |
চূণ গুয়া পান একত্রে খাইলে বড় স্বাদ পাই  ||
এতেক কোতোয়াল আনন্দ হৃদয় |
দধি জ্ঞানে চূণ বেটা কতগুলি খায় ||
চূণ খাইয়া তার জিহ্বার গেল ছাল |
থুথু করি ফেলে বেলে ঘটিছে জঞ্জাল  ||
ধনার দিকে চাহিয়া হাসেন সদাগর |
বুঝিলাম এদেশের লোক বড়ই বর্বর ||
ঠাকুর চতুর যার সেবক বিচক্ষণ |
সমুখে বসিয়া যোগায় তখন |
পানখাইয়া কোতোয়ালের আনন্দিত মন |
রাঙ্গা জিহ্বা করিয়া চাহে ঘন ঘন ||
চান্দ বলে কোতোয়াল শুনহ বচন |
দর্পণ আনিয়া দেখ মুখের পত্তন ||
বিদায় লইয়া কোতোয়াল চলিল তখন  |
ত্বরিত গমনে গেল রাজার সদন ||
রাজ ব্যবহারে কোতোয়াল নোয়ায় মাথা |
দেখিল শুনিল যত কহিল সব কথা  ||
চারিবার গিয়াছিলাম ডিঙ্গার বার্তা পাইয়া  |
অনেক আসিছে দেখি চৌদ্দ ডিঙ্গা লইয়া ||
এতেক শুনিয়া রাজা স্থির করে মন |
কোতোয়ালের মুখ সবে করে নিরীক্ষণ ||
চারিভিতে লোক সব কানাকানি করে  |
আজি কেন কোতোয়ালের মুখে রক্ত পড়ে ?
কোতোয়াল বলে রাজা করি নিবেদন |
কিছু বস্তু খাইতে দিল সাধুর নন্দন ||
বড়ই আশ্চর্যের  বস্তু খাইতে অনুমান  |
পথে আসিতে তার হারাইলাম নাম ||
আনিল যতন করি যত গুয়া পান |
সত্বরে ফেলাইয়া দিল রাজার বিদ্যমান ||
এইমতে হেথায় রহিল সদাগর |
যাত্রা পাটন পালা এইখানে সোসর ||
বৈদ্য বিজয় গুপ্তে মনসার দাস |
সংক্ষেপে মনসা গীত করিল প্রকাশ ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা


প্রণমি মনসা দেবী নমি বিষহরি |
জীবনে মরণে যেন তব পদ স্মরি ||
ছয় পুত্র মরিল চান্দর অতিশয় |
হোথায় চান্দ আছে আপনার আলয় ||
কুল পুরোহিত আছেন সোমাই পন্ডিত |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা

                 ২
যথা তথা যাও সহায় করি শিব |
এবার পাটনে গেলে হারাইবে জীব ||
আজি নিশি দেখিলাম স্বপন বিকট |
যাত্রাকালে তোমার ভাঙ্গিল পূর্ণঘট ||
বেলা দুই প্রহরে শৃগালের কোলাহল |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা

                  ৫
হেতালবাড়ি কান্ধে করি চলে সদাগর |
হরষিতে চলে সাধু দোলার উপর ||
সত্বর হইয়া সাধু ডিঙ্গায় চড়িল  |
একে একে চৌদ্দ ডিঙ্গা বাওয়াইয়া দিল  |
প্রথমে বাওয়াইল ডিঙ্গা নাম মধুকর  |
সেই নায় চলিল লক্ষের সদাগর ||
তার পাছে বাওয়াইল ডিঙ্গা নামে বিজু সিজু  |
গাঙ্গেয় দুই কূল ভাঙ্গিয়া বেকা করে উজু  ||
তারপাছে বাওয়াইল ডিঙ্গা শঙ্খচূড় |
সমুদ্রের দুইকূল ভাঙ্গে পাতালে ঠেকে মূড়  ||
তারপাছে বাওয়াইল ডিঙ্গা অজয় শেলপাট |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

যাত্রাপাটন পালা

                    ৭
এতেক শুনিয়া সাধুর সর্বাঙ্গ কাঁপে |             
হাতে হাত কচালে দশনে ওষ্ঠ চাপে  ||
মহাকোপে কাঁপে তনু সাধুর নন্দন |
ঘট ভাঙ্গিতে সাধু চলে ততক্ষণ  ||
দারুণ হৃদয় চান্দ বড়ই নিষ্ঠুর  |
এই পাতায় কোনো ভুল-ত্রুটি চোখে পড়লে অথবা যদি
কোথাও ভুল বলে মনে হয়, তাহলে আমাদের এই ইমেলে
জানাবেন। আমরা শুধরে নেবার চেষ্টা করবো।
srimilansengupta@yahoo.co.in