কবি বিজয় গুপ্ত-র মনসামঙ্গল কাব্য
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
১  
মনসার জন্ম পালা

গৌরী কোন্দল পালা     

মনসা বিবাহ পালা     

অষ্ট নাগের জন্ম পালা   

অমৃত মথন পালা   

বনবাস পালা       

হাসন হুসন যুদ্ধ পালা     

গুয়াবাড়ি কাটা পালা       

ধন্বন্তরি বধ পালা     
১০
ছয় কুমার বধ পালা     
১১
ঝালুবাড়ির পূজা পালা  
১২
যমযুদ্ধ পালা      
১৩
যাত্রাপাটন পাটন পালা     
১৪
বস্তুবদল পালা     
১৫
ডিঙ্গা বুড়ান, লক্ষ্মীন্দরের জন্ম ও চান্দ লাঞ্ছনা পালা
১৬
লখিন্দরের বিবাহের জোড়ানি পালা    
১৭
লোহার বাসর ঘর নির্মাণ পালা     
১৮
লখিন্দর বিবাহ পালা       
১৯
লখিন্দর দংশন পালা   
  ১. লোহার বাসরে আছে বেউলা লখিন্দর   
২. বেউলা গ সাহের কুমারী   
৩. বাসরের মধ্যে লখাই শুইয়া নিদ্রা যায়   
৪. আজিকার রাত্রে যদি না মরে লক্ষ্মীন্দর   
৫. তুমি সাধিয়া মরিতে আইলা হেথা   
৬. মায়ার পুতলি কালী বিক্রমে আগল   
৭. নানা অস্ত্র হাতে করি পাইক জাগে সারি সারি    
৮. এতেক শুনিয়া পদ্মা বিরস বদন   
৯. মুই হেন অভাগিনী হেন ছার নহে জানি   
১০. বিষেতে ব্যাপিল কালী পূর্ণিত বিকট   
১১. মনে বিষাদ ভাবে মোর কি হইল   
১২. আজু বিয়া হইল রাতি না চিনিলে নিজ পতি   
১৩. বাসরেতে লক্ষ্মীন্দর প্রাণ নহে স্থির   
১৪. কারে দিয়া যাব আমি চম্পক নগরী   
১৫. চারিভিতে চাহে পদ্মা কেহ নাই কাছে   
১৬. এতেক দারুণ দঃখ রহিল হৃদয়   
১৭. বাও নাই বাতাস নাই লোহার ঘরে বাস   
১৮. কেরে জাগ কেরে জাগ গারুড়িয়া ওঝা   
১৯. প্রভাতে উঠিয়া রাণীর আনন্দিত মন   
২০. আমার কপালে বিধি এমন লিখিলা নিধি   
২১. কবাট করিয়া দূর বাসরে সামায়   
২২. ক্রন্দনের রোল উঠে লোহার বাসর   
২৩. কবাট ভাঙ্গিয়া সবে প্রবেশিল ঘর   
২৪. সমুদ্রে ভাসাইয়া দেও যথা তথা যাই   
২৫. কারে বিধি হেন করে   
২৬. কলার মাজুষ গড় দেখিতে সুন্দর বড়   
২০
ভাসান পালা      
২১
স্বর্গারোহণ পালা     
সোনার সাঁড়াসি দিয়া মাথা চাপি ধরে ||
কালিকার মন্ত্রে তবে বেউলায়ে জপয়ে |
লড়িতে না পারে নাগে মোড়া মোড়ি যায়ে ||
সাহের কুমারী বেউলা বুদ্ধি নহে ঢিল |
নাগবন্দী করিয়া ঘরে দিল খিল ||
অষ্ট নাগ বন্দী করি সাহের কুমারী |
লখিন্দরের শিয়রে বসি জাগে একেশ্বরী ||
হেনকালে কাল ক্ষুধা লখাই জন্মিল |
রন্ধন করিয়া দিতে বেউলারে কহিল ||
বিজয় গুপ্তে বলে গাইন হও সাবহিত |
পয়ার এড়িয়া বল লাচারির গীত ||

.                                   ****************                         
সূচি...    


মিলনসাগর
সোনার সিন্দুক মধ্যে শুইয়া নিদ্রা যাও ||
নাগ বন্দী করি বেহুলা মনে কুতূহল |
নেতার সঙ্গে পদ্মাবতী চিন্তিয়া বিকল ||
নানা মায়া জানে বেহুলা কার্যের জানে সন্ধি |
এইরূপে অষ্টনাগ করিল সব বন্দী ||
সাহের কুমারী বেহুলা কার্যে নাহি ঢিল |
অষ্টনাগ বন্দী করি কপাটে দিল খিল ||
অষ্টনাগ বন্দী করি হরিষ অন্তর |
লখাইর শিয়রে বসি জাগে একেশ্বর ||
নেতা নেতা বলি পদ্মা ডাকে উচ্চরায় |
মোরে বুদ্ধি বল নেতা কি হবে উপায় ||
নেতা বলে পদ্মাবতী তোর বুদ্ধি  নাই |
এসব নাগের প্রাণে দংশিবে লখাই ||
অষ্টনাগ বন্দী হইল ফলিল প্রমাদ |
কালীরে আনিতে তুমি করহ সংবাদ ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
মনসামঙ্গল কাব্যের সূচি
*
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা



নানা অস্ত্র হাতে করি             পাইক জাগে সারি সারি
গারুড়িয়া জাগে ঘরে ঘরে |
হেতালবাড়ি লয়ে করে                  ঘন ঘন চান্দ ফেরে
আপনে বেহুলা জাগে বাসরে ||
পার্বতীর ঔষধ বলে                    অন্ধকার রাত্রে জ্বলে
ময়ূর সারস শতে শতে |
বিষম লোহার ঘর                  দেখিতে লাগে প্রাণে ডর
প্রবেশ করিব কোন পথে ||
পদ্মা বলে শুন সাচে                    বায়ুকোণে ছিদ্র আছে
সেই পথে যাও ছোট হইয়া |
পদ্মাবতী দরশনে                        সানন্দে বিজয় ভণে
পামর বড় মনসার হিয়া ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
বিকশিত কমলে ভ্রমরে করে আশ ||
আধ বার বত্সরে বেউলা তের নাহি পোরে |
শিশু মতি বেউলা সুরতি নাহি জানে ||
আমি সে তোমার নারী তুমি অধিকারী |
তোমার যতেক ধন আমি সে ভান্ডারী ||
আজুকা থাকহ প্রভু চিত্তে ক্ষমা দিয়া |
পরশু ভুঞ্জিয় রতি পালঙ্কে বসিয়া ||
বিজয় গুপ্তে রচে গীত  মনসার বরে |
লখাই বেউলার সংবাদ গেল লোহার বাসরে ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
স্বভাবে রাখাল জাতি বড়ই নিষ্ঠুর |
পাচনের বাড়ি দিয়া মাথা করে চুর ||
আড় হইয়া বোড়া ক্ষেত্র মধ্যে পড়ে |
বোড়ার দুর্গতি দেখি ধামু ধায় লড়ে ||
তথা হইতে ধামু চলি গেল দূরে |
উপস্থিত হৈল গিয়া কালীনাগের দ্বারে ||
ধামুরে দেখিয়া দ্বারী বলিল বচন |
এখানে আসিল নাগ মরিবার কারণ ||
ধামুর স্থানে কহে কথা দুঃখ লাগে বড়ি |
এই কালে বল ভাই সরস লাচারি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
রাত্রি থাকিতে যাবা দেরী নাহি সয় |
প্রভাত কালে প্রাণ যাবে শ্বাস মাত্র বয় ||
এতেক শুনিয়া কালীর বিরস বদন |
যাত্রা করিয়া কালী চলিল তখন ||
বিক্রমে আগল কালী দেখিতে বিকট |
পবনের গতি চলে পদ্মার নিকট ||
নমস্কার কৈল কালী পদ্মার চরণে |
বিনয় করিয়া দিলা বসিতে আসনে ||
যাহা করিয়াছ ধামু কিছু মিথ্যা নয় |
বিনা তুমি না হইলে কার্য সিদ্ধি নয় ||
জাতিহীন চান্দ বাণিয়া গন্ধ বণিক |
রাত্রিদিন গালি পাড়ে না সহে ক্ষণিক ||
আজ রাত্রে বিয়া করে তাহার তনয় |
লোহার ঘরে লুকাইয়া রাখে মোর ভয় ||
ভাবিতে চিন্ততে রাত্রি হইল অর্ধভাগ |
লখাইরে দংশিতে পাঠাইলাম অষ্টনাগ ||
সাহের ঝি বেহুলা জানে নানা সন্ধি |
একে একে অষ্টনাগ করিয়াছে বন্দী ||
অষ্টনাগ বন্দী হইল গণিলাম প্রমাদ |
তেকারণে তোমার তরে পাঠাইলাম সংবাদ ||
বুহিন ঝী তুমি আমার প্রাণের সমান |
লখাইরে দংশিয়া রাখ আমার সম্মান ||
পদ্মার বিনয় শুনি নাগিনী লজ্জিত |
যোড় হস্তে বলে মাতা এ কোন উচিত ||
ফলিলে বুঝিবা কার্য কি বলিব আগে |
মনুষ্য দংশিব আমি কোন কার্যে লাগে ||
এতেক শুনিয়া বাক্য পদ্মার অকস্মাৎ |
বজ্রাঘাতে পড়ে যেন কালীর মাথাত ||
কোন অপরাধে সোনা করিল তোমার ঠাঁই |
কোন দোষে দংশিব আমি তাহার লখাই ||
পদ্মার অনুরোধ কালী এড়াইতে না পারি |
লখাইরে দংশিতে কালী চলে তাড়াতাড়ি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                 ৬
মায়ার পুতলি কালী বিক্রমে আগল |
তাড়াতাড়ি গেল কালী লোহার বাসর ||
হেতালবাড়ি হাতে চান্দ ঘন পাকে লড়ে |
নাগিনীর প্রাণ কাঁপে হেতালের ডরে ||
লোহার ঘর লোহার দ্বার উপরে লোহার পাত |
দেখিয়া ফিরিয়া গেল পদ্মার সাক্ষাৎ ||
নাগিনীরে দেখিয়া চমত্কার গায় |
কি কি বলিয়া পদ্মা জিজ্ঞাসে উচ্চরায় ||
খাইতে নারিলাম চান্দর কুমার |
বিদায় পাইলে যাই আপনার ঘর ||
পদ্মার তরে কহে কালী দুঃখ লাগে বড়ি |
সংবাদ পড়িল ভাই বলরে লাচারি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*

.                                                          ****************                                                সূচি...    


মিলনসাগর
খাটের উপরে দোহে শুইয়া নিদ্রা যায় ||
পরম সুন্দর লখাই বেহুলা গুণবতী |
খাটেতে শুইয়া যেন রতি রতিপতি ||
লখাইরে দেখিয়া কালীর উপজিল দয়া |
পাপিষ্ট মনসা পাষাণ তার হিয়া ||
লখাইর দিকে চাহি নাগ যুড়িল ক্রন্দন |
পয়ার এড়িয়া বল লাচারি এখন ||
বিজয় গুপ্তে বলে গাইন হও সাবহিত |
পয়ার এড়িয়া বল লাচারির গীত ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*

.                                                          ****************                                                সূচি...    


মিলনসাগর
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                ১০
বিষেতে ব্যাপিল কালী পূর্ণিত বিকট |
বজ্রফণা ধরি যায় লখাইর নিকট ||
মনে মনে চিন্তে কালী কি হবে উপায় |
অশুভের চিহ্ন নাই লক্ষ্মীন্দরের গায় ||
কালীর কথা শুনি হইল দৈববাণী |
বাসরে থাকিয়া তাহা শুনিলেক নাগিনী ||
প্রদীপের তৈল মাখি                ললাটেতে দেও দেখি
.                 তবে লক্ষ্মী ছাড়িবে উহার |
শুনিয়া আকাশ বাণী                বিষাদিত নাগিনী
.                 দীপ তৈল দিল লখাইর গায় |
লোহার বাসর ঘরে                  নাগিনী শিয়রে
.                 সানন্দে বিজয় গুপ্ত গায় ||

.                         ****************                                                  
সূচি...    


মিলনসাগর
*
পদ্মার গোচরে গিয়া কহে সকল কথা||
যোড়হস্তে কহে পদ্মার গোচর |
তোমার প্রসাদে মাতা দংশি লক্ষ্মীন্দর ||
অপমান করে মোরে সুন্দর লখাই |
কাটিয়া রাখিল লেজ শুন দেবী আই ||
চান্দর যে বংশনাশ করিলাম ভালমতে |
নাগিনী চলিয়া গেল আপন পুরীতে ||
ঘায় ব্যাকুল লখাই করে ধড়ফড় |
বেহুলার পৃষ্ঠেতে মারে বজ্র চাপড় ||
নিদ্রায় আকুল বেহুলা নাহিক চেতন |
উঠ উঠ বলি লখাই ডাকে ঘনে ঘন ||
চক্ষুতে জল দিয়া নখে মাংস বিন্ধে |
তবু নাহি জাগে বেহুলা অচেতন নিন্দে ||
উঠ উঠ প্রাণপ্রিয়া ঝাটে তোল গাও |
বিজয় গুপ্তরে রাখ বিষহরি মাও ||

.                         ****************                                                  
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

২০

আমার কপালে বিধি                        এমন লিখিলা নিধি
কলমে না ছিল কালি |
কার হরিলাম ধনজন                      লখাই মরে তেকারণ
পুত্রশোকী বলে মোরে কেবা দিল গালি ||
বিষহরির চরণ                            ভাবি আমি সর্বক্ষণ
পুত্রহে তোমার কেন মরণ |
কালি ছিলা মোর পুত                       রূপে গুণে অদ্ভুত
যেন কামদেবের সমান ||
আহা পুত্র লক্ষ্মীন্দর                       মোর প্রাণের দোসর
আজু তোমায় কারে দিলাম ডালি |
কাহার হরিনু ধন                           কেবা করিল এমন
পুত্রশোকী বলি দিল গালি ||
লখাইরে কোলে লইয়া                 সোনেকার বিদরে হিয়া
ভূমিতে পড়িয়া মোহ যায় |
সোনেকার করুণা শুনি                  সর্বলোকে শোককুল
সানন্দে বিজয় গুপ্ত গায় |

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর

.              ****************                                                              সূচি...    


মিলনসাগর
*
লোহার ঘরে ঢলিয়া পড়িল লক্ষ্মীন্দর |
প্রাণ কাড়ি লয়ে যায় যমের কিঙ্কর ||
খাট হইতে লক্ষ্মীন্দর বাহে গড়াগড়ি |
তবু নিদ্রা না ভাঙ্গিল বেহুলা সুন্দরী ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
স্বামী কোলে কান্দে বামা দুঃখ বড়ি |
এই কালে বল ভাই করুণ লাচারি ||
বিজয় গুপ্তে কহে শোন তথ্য সার |
বেউলা হতে লখিন্দর জিবে পুনর্বার ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

              ১৬
এতেক দারুণ দঃখ রহিল হৃদয় |
দেখা না লইল প্রভুর মরণ সময় ||
মোর তরে প্রাণেশ্বর কি বলিলা বাণী |
নিদ্রায় না জানিলাম মুই অভাগিনী ||
স্বামী কোলে করে কান্দে সাহের কুমারী |
কোন দোষে প্রাণনাথ গেল মোরে ছাড়ি ||
কি ক্ষণে অভাগিনীর আসিল কাল নিদ |
সময় পাইয়া নাগ বাসরে দিল সিন্ধ ||
হীন জন নহ তুমি সাধুর কুমার |
ধূলায় লোটাও তুমি কোন ব্যবহার ||
বিজয় গুপ্ত বলে বেহুলা না কান্দিও আর |
পদ্মা হইতে হবে তব স্বামীর উদ্ধার ||
স্বামী কোলে করি কান্দে  দুঃখ লাগে হড়ি |
এইকালে বল ভাই করুণ লাচারি ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
অভাগিনীর স্বামী দংশিয়া গেল নাগে ||
নাগিনী দংশিয়া গেল চম্পকের রাজা |
কোথা গিয়া পাব আমি গাব়ুড়িয়া ওঝা ||
বিজয় গুপ্ত বলে বেহুলা না কান্দিও আর |
তোমা হইতে হবে চান্দর বাদের উদ্ধার ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
বাসরে সুন্দরী বেহুলা কান্দিয়া বিকল |
রজনী প্রভাতকালে কোকিলের ধ্বনি |
শয্যা ত্যগি বাহির হইলা সোনেকা রাণী ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
উচ্চৈঃস্বরে কান্দি বলে রামা রৈলা কোথায় ||
কি শুনিলে সখীগণ শুনাও আর বার |
সত্য কি মরিছে মোর বাল লক্ষ্মীন্দর ||
আলু থালু চুলে যায় পাগলিনীর বেশে |
ত্বরিতে চলিয়া গেল বাসরের পাশে ||
বাসরের দ্বারে গিয়া দাঁড়াইয়া চায় |
কোলে আয় রে লক্ষ্মীন্দর তোর মায়ের প্রাণ যায় ||
গা তোল গা তোল সত্বরে |
বিয়ার বরণ করিতে আসিলাম তোরে ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
*

.                                                          ****************                                                সূচি...    


মিলনসাগর
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                 ২১
কবাট করিয়া দূর বাসরে সামায় |
দেখিল সোনার তনু ধুলায় লোটায় ||
চম্পকের রাজ্য বাপ কারে দিয়া গেলা |
কোন দুঃখে লখাইরে ধুলায় শুইলা ||
দুই হস্তে ধরি রাণী লখাই নিল কোলে |
চুম্বন করিছে রাণী বদন কমলে ||
বিধুমুখে একবার ডাক মোরে মা |
মৃত্যুকালে তোমার সঙ্গে দেখা হইল না ||
আহারে দারুণ বিধি কি বলিব তোরে |
এত দুঃখ দিয়া বিধি সৃজিলা আমারে ||
ক্ষণেক চেতন রাণী ক্ষণেক অচেতন |
কোন বিধি করিল আমার ললাটে লিখন ||
এক পুত্র ঘরে বিনে অন্য পুত্র নাই |
অন্ধের নড়ি আমার সুন্দর লখাই ||
রাত্রিতে আইলা লখাই বধূ সঙ্গে লৈয়া |
না দেখিলাম দুইজনে একত্র করিয়া ||
তোমরা সব সখীগণ হও একধার |
লখাইর বামে বসুক বধূ দেখি একবার ||
সোনা বলে বধূ তুমি পরমা সুন্দরী |
আমার বাছা খাইতে আইল কপট রাক্ষসী ||
স্বরূপে জানিলাম তুমি নিশাচর জাতি |
বিয়ার রাত্রে খাইলা স্বামী নহিল বাসিরতি ||
বড় ঝিয়ারি তুমি গুণের অন্ত নাই |
চান্দর বংশনাশ করিতে ছিলা কোন ঠাঁই ||
কোপ মনে সোনেকা বধূরে পাড়ে গালি |
এতেক শুনিয়া বেহুলা কাণে দিল তালি ||
নাগিনী দংশিল প্রভু মোরে কেন রোষ |
তোমার ছয় পুত্র মৈল সেওকি আমারই দোষ ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

               ২২
ক্রন্দনের রোল উঠে লোহার বাসর |
হেথায় চৈতন্য পাইল চান্দ সদাগর ||
হেতালবাড়ি কান্ধে লইয়া উভালড়ে ধায় |
ত্বরিতে চলিয়া গেল বাসরে সামায় ||
কোথা লখাই কোথা লখাই বলে সদাগর |
চম্পকের রাজা আমার বাল লক্ষ্মীন্দর ||
বিধুমুখে বাপ বলিয়া আর না ডাকিলা |
চম্পক রাজ্য তুমি কারে দিয়া গেলা ||
আহারে দারুণ বিধি তুই নিদারুণ |
বাপ মা থাকিতে কেন পুত্রের মরণ ||
হেন নিদারুণ শোক কেবা দিল মোরে |
ধন প্রাণ গেল আমি রহি একেশ্বরে ||
কান্দিতে কান্দিতে সাধু হইল ব্যাকুল |
স্তব্ধপ্রায় হইল সাধু নাহি বোলচাল ||
বিজয় গুপ্ত বলে সাধু না কান্দিও আর |
বেহুলা লখাই হইতে তব বাদের উদ্ধার ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
প্রাণনাথ ঢলিয়াছে বরিব কাহারে ||
সিঁথির সিন্দুরে আমারে না পাড়িল কালি |
কাঁচা রাড়ি বলে মোরে কেবা দিল গালি ||
বেহুলা বলে শ্বশুর তুমি দেবতা সমান |
অভাগিনী বেহুলার কথা কর অবধান ||
পূর্বকালের কথা ধর কহিয়াছে বুড়াবুড়ি |
সর্পঘাতে মৈলে লোকে অগ্নিতে না পুড়ি ||
কলার মাজুষে করি ভাসাও গাঙ্গড়ি |
আমি অভাগিনী যাব প্রভুর সংহতি ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
সম্মুখে বসিয়া বেহুলা করয়ে বিনয় ||
শরীরে দারুণ শেল সহিতে নাহি আর |
কলার মাজুষেতে সাগর হব পার ||
তোমার প্রসাদে যেন অবিলম্বে তরি |
বিজয় গুপ্তেরে রাখ দেবী বিষহরি ||
মালীর আগে কহে বেহুলা করযোড় করি |
এই কালে বল ভাই করুণ লাচারি ||

.              ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

            ২৫
কারে বিধি হেন করে |
বিয়ার রাত্রে স্বামী মরে ||
মধুকর উড়ে গেল |
সাধু কমল পড়ে রইল ||
অঞ্চলে মাণিক্য ছিল |
সুখেরঘরে আগুন দিল ||
ছিলাম বড় আদরিণী |
হইলাম পথের কাঙ্গালিনী ||
বিয়া করল রাজার সুতা |
ব্যবহার দিল কলার ভুর ||
বিয়া হইল বাপের বাড়ি |
শ্বশুর বাড়ি হইলাম রাড়ি ||

.          ****************                                                              
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা


লোহার বাসরে আছে বেউলা লখিন্দর |
অষ্ট নাগ পদ্মাবতী আনিল সত্বর ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

              ২
বেউলা গ সাহের কুমারী |
খিদায় আকুল প্রাণ এড়াইতে না পারি ||
বাড়া ভাত খাইতে গেলাম তোর বাপের ঘরে |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                   ৩
বাসরের মধ্যে লখাই শুইয়া নিদ্রা যায় |
চিন্তিয়া ব্যাকুল হেথা দেবী মনসায় ||
সাত পাঁচ ভাবি পদ্মা করিল পরিপাটী |
সংবাদ পাঠাইয়া  আনে নাগ কোটি কোটি ||
তক্ষকাদি অষ্ট নাগ আনিল সত্বর |
দংশিয়া দেহ মোরে বীর লক্ষ্মীন্দর ||
লোহার বাসরে যদি না মরে লক্ষ্মীন্দর |
তবে মরণ নাই তার শতেক বত্সর ||
রজনী প্রভাত হইলে লখাই যাবে মায়ের ঘরে |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                 ৪
আজিকার রাত্রে যদি না মরে লক্ষ্মীন্দর |
তবে পূজা না হইবে মোর পৃথিবী ভিতর ||
নেতা বলে পদ্মাবতী মোর বোল ধর |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                  ৫
তুমি সাধিয়া মরিতে আইলা হেথা |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                 ৮
এতেক শুনিয়া পদ্মা বিরস বদন |
পদ্মার চক্ষুর জলে ভিজিল বসন ||
( মোর বুদ্ধিবলে নেতা ধোপঝি আই |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা



মুই হেন অভাগিনী                                 হেন ছার নহে জানি
ছার কার্যে কেন আমি আসি |
ফিরিয়া ঘরেতে যাই                                পদ্মারে বড় ডরাই
দংশিতে পরাণে দুঃখ বাসি ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

             ১১
মনে বিষাদ ভাবে মোর কি হইল |
আপনার অঙ্গে মাখে প্রদীপের তৈল ||
শরীরে অশুভ চিহ্ন ততক্ষণে হইল |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

১২

আজু বিয়া হইল রাতি              না চিনিলে নিজ পতি
নাগিনী দংশিয়া গেল মোরে |
যদি জানিতাম সাঁচে                  এতেক নির্বন্ধ আছে
বিয়ার রাত্রে সাপে খাবে মোরে ||
এক দিবসের লাগি                   তোমার বধের ভাগী
এই পাপে নরকে বিভোগ ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

           ১৩
বাসরেতে লক্ষ্মীন্দর প্রাণ নহে স্থির |
কাল বিষের ঘায় পোড়ায় শরীর ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

             ১৪
কারে দিয়া যাব আমি চম্পক নগরী |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

               ১৫
চারিভিতে চাহে পদ্মা কেহ নাই কাছে |
লখাইর প্রাণ আনিবারে চারি নাগ পাঁচে ||
অগ্নিকাল মহাকাল ফণী মহাফণী |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

              ১৭
বাও নাই বাতাস নাই লোহার ঘরে বাস |
কোন নাগিনী আসি প্রভুরে  কৈল নাশ ||
এ নব যৌবন মোর গেল ছারখার |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                ১৮
কেরে জাগ কেরে জাগ গারুড়িয়া ওঝা |
বাসরে ঢলিল প্রভু চম্পকের রাজা ||
কান্দে অভাগিনী  বেহুলা লখাইরে কোলে করি |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                  ১৯
প্রভাতে উঠিয়া রাণীর আনন্দিত মন |
আইও আইও বলে রাণী ডাকে ঘনে ঘন ||
রাণী বলে আইও তোরা গুয়া পান খাও |
লখাইরে বেড়িয়া সবে মঙ্গল গীত গাও ||
চৌদিকে চাপিয়া বাজে মঙ্গল বাজন |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                  ২৩
কবাট ভাঙ্গিয়া সবে প্রবেশিল ঘর |
ঘর হইতে বাহির করে মরা লক্ষ্মীন্দর ||
পুত্রশোকে কান্দে রাণী স্থির নহে চিত |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

                  ২৪
সমুদ্রে ভাসাইয়া দেও যথা তথা যাই |
ভাগ্যের ফলেতে যদি ওঝার লাগ পাই ||
রক্তেতে জারিত জীব অস্থির সংহতি |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

লখিন্দর দংশন পালা

২৬

কলার মাজুষ গড়                                 দেখিতে সুন্দর বড়
প্রভু লয়ে ভাসিব গাঙ্গরি ||
শুনরে মালীর পো                                  বিধি বিড়ম্বিল মো
লখাইরে লইয়া হইলাম ভিখারী |
ছিলাম বড়র ঝি                                 তুমি বা না জানি কি
কর্মদোষে হইল হেন দশা ||
এই পাতায় কোনো ভুল-ত্রুটি চোখে পড়লে অথবা যদি
কোথাও ভুল বলে মনে হয়, তাহলে আমাদের এই ইমেলে
জানাবেন। আমরা শুধরে নেবার চেষ্টা করবো।
srimilansengupta@yahoo.co.in