বিদ্যাসাগরকে উত্সর্গিত কবিতা ও ছড়া
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
*
ঈশ্বরচন্দ্র
কবি তারকনাথ সরকার
কবি তারকনাথ সরকারের কবিতার পাতায় যেতে এখানে ক্লিক্ করুন . . .     

বীরসিংহের বিদ্যাসাগর, করুণা অপার,
দয়ার সাগর তুমি, তুলনা নেই তার |
বিদ্যার্জনে করেছিলে কঠোর তপস্যা,
সর্বদা আগুয়ান-- ঘোচাতে সামাজিক সমস্যা |
প্রতিকূলে ছিল অদম্য জেদ,
বিধবা-বাল্য বিবাহ রদ, নারী শিক্ষায় ছিল নাকো ছেদ |
বর্ণপরিচয়, কথামালা বা নীতিবোধ,
তোমার ঋণ কভু হবে নাকো শোধ |

.        *************************  

.                                                                                  
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
তরমুজ
কবি অমিতাভ গুপ্ত         
কবি অমিতাভ গুপ্তর কবিতার পাতায় যেতে এখানে ক্লিক্ করুন . . .     


রোদে পোড়া মাঠ পেরিয়ে চলেছেন ঈশ্বরচন্দ্র
আরো এগারো বছর পরে জুটবে
তাঁর বিদ্যাসগর উপাধনটি
কিন্তু তার আগে এই দীর্ঘ পথ, এই মাঠ

সঙ্গে ছিলেন ঠাকুরদাস কিংবা আরো কেউ কেউ
মাইলস্টোন দেখে দেখে ইংরেজি সংখ্যাগুলি শিখে নেওয়ার
অপরূপ কাহিনীটিও রচিত হতে শুরু করল
কনিতু সেই পথটিও ছিল দীর্ঘ তৃষ্ণায় অস্থির
আটবছর বয়সের একটি বালক

হটাৎ কোন্ এক আশ্চর্য উদ্ভাস নিয়ে
এল এক তরমুজওয়ালা
কী শান্তি সেই তৃষ্ণাজুড়ানো সুঠাম ফলের গভীরে
যার কথা
ঈশ্বরচন্দ্র ভুলতে পারেননি, হয়তো কার্মাটারে তাঁর
সেই পিপাসাময় শেষ জীবনেও


.        *************************  

.                                                                                  
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
গোপাল ভালো ছেলে নয়
কবি রাজেশ দত্ত
কবিতাটি লেখা হয় ২২.০৬.১৯৮৭ তারিখে, কবির ষোলো বছর বয়সে।     
কবি রাজেশ দত্তর কবিতার পাতা যেতে এখানে ক্লিক্ করুন . . .      

ছেলেবেলায় বড়ো বড়ো আখরে
বিদ্যেসাগরের বইতে পড়েছিলেম,
গোপাল বড়ো ভালো ছেলে।
গোপাল রোজ ইস্কুলে যায়।
বাবা-মা’র কথা শোনে,
অবাধ্য হয় না কখনো কারোর।

বর্ণপরিচয়ের গোপাল আজ বড়ো হয়েছে।
গোপাল এখন আর ভালো নেই।
গোপালের হাতে বইখাতার বদলে
তাজা কার্তুজ ভরা রিভলভার।
গোপাল এখন আর বাধ্য নেই,
বাবার কথা শোনে না
মায়ের কথা শোনে না
সমাজের কারোরই না,
গোপালেরও না।

গোপাল আজ পড়তে যায় না।
রাতের অন্ধকারে শ্বাপদের মতো
গোপন আস্তানায় আনাগোনা।
গোপাল আজ ঝগড়া করে
বাবার সাথে
মায়ের সাথে
সমাজের সকলের সাথে,
গোপালের সাথেও ঝগড়া করে।

বিদ্যেসাগর তোমার গোপাল
আর ভালো নেই।
গোপাল আর ভালো ছেলে নয়।

.        *************************  

.                                                                                  
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
বিদ্যাসাগর
কবি লায়েক মইনুল হক
মেঘের দেশে ছড়াগ্রন্থ থেকে নেওয়া।   
কবি লায়েক মইনুল হক-এর কবিতার পাতায় যেতে এখানে ক্লিক্ করুন . . .     


বিদ্যাসাগর                  মাথা ডাগর
পড়ার বই                   জ্ঞানের মই
.            সবাই তা মানে
সাহসী ছেলে                ডানা মেলে
পার যে হলে               নদীর জলে
.           বিশ্ববাসী জানে |
বর্ণপরিচয়                 দেড়শো পার হয়
খোকা খুকু পড়ে          সবার ঘরে ঘরে
.         খুলল চোখের দ্বার
করতে নাকো ভয়       তাইতো তোমার জয়
ফুলে ওঠে বুক           মনে পাই সুখ
.         এ কথা বলি বারবার |
বীরসিংহের বীর         উচ্চ তোমার শির
শিক্ষায় দিলে আলো    দেশের হলো ভালো
.         আমরা মেনেছি হার |
বিদ্যাসাগর               জ্ঞানের সাগর
দয়ার সাগর              সেবার সাগর
.         বলছি শতবার
.         ফিরে এসো একবার |

.            ****************  
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর
*
সাগরে গাগর
কবি দিব্যেন্দু গঙ্গোপাধ্যায়

যে বর্ণে লিখেছি দেড়শ বছর ধরে
হঠাৎ কেন সে বর্ণ আজ রক্ত শিশির ঝরে ?
যিনি ছিলেন ভাষার জনক জ্ঞান-বিদ্যার সাগর
হঠাৎ কেন তাঁর সাগরে ভাসছে শূন্য গাগর ?

দীনের সাগর দয়ার সাগর বিদ্যার সাগর যিনি
আমরা জানি সেই সাগরের গভীরতা কতখানি ?
যাঁর দয়াতে বাঙালি পেয়েছে বর্ণের পরিচয়
তাঁর প্রতি এই অবমাননা, বাংলার ক্ষতি নয় ?

তিনিই আমাদের শিখিয়ে গেছেন বাক্য কাহাকে বলে
তবে কেন তাঁর শিক্ষাকে আজ ফেলা হল রসাতলে ?
তাঁর দ্বারইতো শিখেছি আমরা বর্ণমালার বোধ
তাঁর ঋণ কি কখনও আমরা করতে পারিব শোধ ?

শিক্ষা নিয়েই তিনি কেবল ছিলেন নাকো ব্যস্ত
দেশ ও দশের জনকল্যাণে থেকেছেন সদা ত্রস্ত
দু-হাত ভরে লিখেছেন যিনি বাংলা বর্ণমালা
যাঁর দয়াতে  আমরা বাঙালি পেয়েছি জ্ঞানের ডালা

স্বরবর্ণ কাকে বলে ব্যাঞ্জণবর্ণ কি
তাঁরই রচিত জ্ঞানডালা থেকে আমরা পেয়েছি
তিনি হলেন শিক্ষাগুরু জনক বাংলা ভাষার
তিনি বাংলার জ্ঞানের প্রদীপ বাঙালির ভালোবাসার |


.
                     ****************  
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর
*