কবি শ্যামপ্রিয়া - সুকুমার সেনের মতে, এই কবির রচিত গান "শোচক" নারী রচিত বৈষ্ণব-পদাবলীর
একমাত্র খাঁটি নমুনা।

কবি শ্যামপ্রিয়া, শ্যামানন্দদাসের শিষ্য রসিকানন্দের শিষ্যা ছিলেন। প্রধানত এঁদেরই উদ্যোগে ধলভূম-ময়ূরভঞ্জ
অঞ্চলে সপ্তদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে বৈষ্ণব ধর্মের প্রসার ঘটেছিল। রেমুনায় ক্ষীরচোরা-গোপীনাথ-মন্দীর
প্রাঙ্গণে রসিকানন্দের সমাধি আছে।

আমরা
মিলনসাগরে কবি শ্যামপ্রিয়ার বৈষ্ণব পদাবলী তুলে আগামী প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে পারলে এই
প্রচেষ্টার সার্থকতা।

বৈষ্ণব পদাবলীর "রাগ"   
বৈষ্ণব পদাবলীর পদগুলি মূলত গান হিসেবেই রচনা করা হোতো। প্রায় প্রতিটি পদের শুরুতেই সেই পদটির
“রাগ”-এর উল্লেখ থাকে। তবে কিছু পদের আগে তার “রাগ”-এর উল্লেখ নেই এমনও পাওয়া গিয়েছে। বৈষ্ণব
পদাবলীর সংকলকগণ যখন তাঁদের সংকলনে পদ সাজান, তখন পর পর একাধিক গানের যদি একই সুর বা
রাগ থাকে, তাহলে তাঁরা প্রথম গানটিতে তার রাগ উল্লেখ ক’রে পরের গানটিতে রাগের যায়গায় “তথা রাগ”
বা “যথা” শব্দ বসিয়ে দিতেন, এই বোঝাতে যে পরের গানটি একই রাগাশ্রিত। কিন্ত এমনও পাওয়া গিয়েছে
যে একই গান বিভিন্ন সংকলকের সংকলনে ভিন্ন রাগাশ্রিত বলে উল্লেখিত। বহু পদই মুখে মুখে গীত  
অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে।  তাই  একই গান  বিভিন্ন  গায়কের মুখে ভিন্ন ভিন্ন সুরে পাওয়া গিয়ে থাকতেই
পারে। তাই অনেক বিদগ্ধজনেরা মনে করেন যে এখন আর পদের রাগের উল্লেখ না করলেও চলে। যে  
যেমন সুরে চায়, গেয়ে আনন্দ লাভ করলেই এর সার্থকতা। আমরা অবশ্য যে সংকলন থেকে যে পদ  
নিয়েছি, সেই সংকলনে উল্লেখিত রাগটি মিলনসাগরের পাতায় তুলে দিয়েছি। এমন হতে পারে বিশেষজ্ঞরা
অন্য সংকলনে সেই গানটির অন্য রাগ দেখতে পাবেন।
          



কবি শ্যামপ্রিয়ার মূল পাতায় যেতে এখানে ক্লিক্ করুন



উত্স : সুকুমার সেন, বৈষ্ণব পদাবলী, ১৯৫৭
.          সুকুমার সেন, বাংলা কবিতা সমুচ্চয়, ১৯৯১

আমাদের ই-মেল -
srimilansengupta@yahoo.co.in     

এই পাতার প্রকাশ - ২১.১১.২০১১
...