চর্যাগীতি এবং তার আধুনিক বাংলা রূপান্তর
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
*
চিত্ত সহজে শূন্য (দ্বারা ) সম্পূর্ণ  |
স্কন্ধ বিয়োগে১  হোয়ো না বিষন্ন ||
বল কিসে কানু নেই |
স্ফুরিত হয় অনুদিন, ত্রৈলোক্যে প্রবেশ করে ||
মূঢ় নষ্ট দৃশ্য দেখে কাতর |
তরঙ্গ-ভঙ্গ কি সাগর শোষে ||
মূঢ় অস্তিত্বমান লোককে দেখে না  |
দুধের মাঝে (যেমন ) ননী থাকলেও দেখা যায় না ||
এই  ভবে কেউ যায় আসে না |
এই ভাবে বিলাস করেন কাহ্নিল যোগী  ||



১ রূপ, বেদনা, সংজ্ঞা, সংস্কার ও বিজ্ঞান নির্মিত দেহত্যাগে  |


.            ****************                                   
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি কাহ্নপাদ    

৪২. রাগ কামোদ | কাহ্নপাদানাম্ |
চিঅ সহজে শূণ সংপুন্না |
কান্ধ-বিয়োএ মা হোহি বিসন্না || ধ্রু ||
ভন কইসে কাহ্ন নাহি |
ফরই অনুদিন তৈলোএ পমাই || ধ্রু||
মূঢ়া দিঠ নাঠ দেখি কাঅর |
ভাগতরঙ্গ কি সোষই সাঅর || ধ্রু ||
মূঢ়া অছন্তে লোঅ ন পেখই |
দুধ মাঝেঁ লড় ণচ্ছংতেঁ দেখই|| ধ্রু||
ভব জাই ণ আবই এসু কোই |
অইস ভাবে বিলসই কাহ্নিল জোই || ধ্রু ||
*
সহজ মহাতরু স্ফুরিত এ ত্রিলোকে |
শূন্য-সম স্বভাবে রে বর্ণেতে মুক্ত কে ||
যেমন জলে পানী টললে১   ভেদ  করা যায়না |
তেমনি মনোরত্ন রে সমরসে গগনে প্রবেশ করে ||
যার নেই আত্মবোধ তার পরবোধ কোথায় |
আদিতে যে অনুত্পন্ন রে, (তার ) জন্ম মরণ ভব নেই ||
ভুসুকু বলেন, আশ্চর্য, রাউতু বলেন, আশ্চর্য, সকলের এই স্বভাব |
যার আসেনা রে, নেই তাতে ভাবাভাব ||



১ জলে জল পড়লে  |


.            ****************                                   
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি ভূসুকুপাদ     

৪৩. রাগ বঙ্গাল | ভূসুকুপাদানাম্ |
সহজ মহাতরু ফরিঅ এ তৈলোএ |
খসম সভাবে রে বাণত মুকা কোএ || ধ্রু ||
জিম জলে পাণিআ টলিআ ভেউ ন জাঅ |
তিম মণ-রঅণারে সমরসে গঅণ সমাঅ || ধ্রু||
জাসু ণাহি অধ্যা তাসু পরেলা কাহি |
আই অনুঅনারে জাম মরণ ভব নাহি || ধ্রু ||
ভুসুকু ভণই কট রাউতু ভণই কট সঅলা এহ সহাব |
জাই ণ আবয়ি রে ণ তঁহি ভাবাভাব || ধ্রু ||
*
আদিতে অনুত্পন্ন এই জগৎ রে, ভ্রান্তিতে সে প্রতিভাত |
রজ্জুসর্প দেখে যে চমকায়, সত্য কি তাকে বোড়োখায়  ||
আশ্চর্য যোগী রে, না কর হাত লোনা |
এই স্বভাবে যদি জগৎকে বুঝিস , টুটে বাসনা তোর ||
মরু-মরীচিকা, গন্ধর্বনগরী , দপর্ণ-প্রতিবিম্ব যেরূপ |
বাতাবর্তে সেই দৃঢ়ীভূত হয়ে জল যেমন প্রস্তরবৎ ||
বন্ধ্যাসুত যেমন খেলা করে, খেলে বহুবিধ খেলা  |
যেমন বালুকাতেলে, শশকশৃঙ্গে আকাশ প্রফুল্ল হয় ||
রাউতু১ বলেন, আশ্চর্য, ভুসুকু বলেন , আশ্চর্য , সকলের এই স্বভাব |
যদি তোর, মূঢ় , থাকে ভ্রান্তি , জিজ্ঞাসা কর্ তুই সদ্ গুরুর পাদে ||

১  রাজপুত্র



.           ****************                                   
র্যাগীতির সূচি
চর্যাগীতি
কবি ভুসুকুপাদ    

৪১. রাগ কহ্নগুঞ্জরী | ভুসুকুপাদানাম্ |
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
*
শূন্যে শূন্য যখন মিলিত |
সকল ধর্ম তখন উদিত হয় ||
আছি চতুঃক্ষণ সংবোধিতে |
মাঝের নিরোধে অনুত্তর বোধী ||
বিন্দু-নাদ নয় চিত্তে প্রবিষ্ট  |
এক চাইতে অন্য বিনষ্ট ||
যেখান থেকে এসেছ তাকে জান |
মধ্যে থেকে সর্ববিহীন ||
কঙ্কণ বলেন কলকল শব্দে |
সব বিচূর্ণ হল তথতানাদে ||



.        ****************                                       
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি কঙ্কণপাদ     

৪৪. রাগ মল্লারী | কঙ্কণপাদানাম্ |
সুনে সুন মিলিও জবেঁ |
সঅল ধাম উইআ তবেঁ || ধ্রু ||
আছহুঁ চউঋণ সংবোহী  |
মাঝ নিরোহেঁ অনুঅর বোহী || ধ্রু ||
বিদুনাদ ণ হিঁ এ পইঠা  |
আণ চাহন্তে আণ বিণঠা || ধ্রু ||
জঁথা আইলেসি তথা জান |
মাঝঁ থাকী সঅল বিহণ || ধ্রু ||
ভণই কঙ্কণ কলএল সাদেঁ |
সর্ব্ব বিচুরিল তথতা নাদেঁ || ধ্রু ||
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
*
মন তরু  (হল ) পঞ্চ ইন্দ্রিয় তার শাখা |
আশা (তার ) বহুবিধ পত্র-বাহার  ||
বড় গুরুর বচন-কুঠারের দ্বারা ছিন্ন কর |
কাহ্ন বলেন, তরু পুনরায় গজাবেনা  ||
বাড়ে সেই তরু শুভাশুভ পানীতে |
ছেদন করেন বিদ্বজ্জন গুরুকে সাক্ষ্য রেখে ||
যে তরুর ছেদন-ভেদন জানে না |
পদস্খলিত হয়ে রে, মূঢ় তাকে ভব বলে মেনে নেয়  ||
শূন্য তরুবর, গগন কুঠার  |
ছেদন কর সেই তরু, মূল ও ডাল না ( রেখে ) ||




.       ****************                                       
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি ভাদেপাদ    

৪৫. রাগ মল্লারী | কাহ্নপাদানাম্ |
মণ তরু পাঞ্চ ইন্দি তসু সাহা |
আসা বহল পাতহ বাহা || ধ্রু ||
বড় গুরু বঅণে কুঠারেঁ ছিজঅ |
কাহ্ন ভণই তরু পুণ ন উইজঅ || ধ্রু ||
বাঢ়ই সো তরু সুভাসুভ পাণী  |
ছেবই  বিদুজন গুরু পরিমাণী || ধ্রু ||
জো তরু ছেব ভেবউ ন জাণই |
সড়ি পড়িআঁ রে মূঢ় তা ভব মাণই || ধ্রু ||
সুন তরুবর গঅণ  কুঠার |
ছেবই সো তরু মূল ন ডাল || ধ্রু ||
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
*
স্বপ্নে দেখা আদর্শ যেরূপ |
অন্তরালে মোহ সেরূপ  ||
মোহ-বিমুক্ত যদি মন |
তবে টুটে অবনাগমন ||
না দগ্ধ হয়, না প্লাবিত হয়, না ছিন্ন হয় |
দেখ, মায়ামোহে বারবার বদ্ধ হয় ||
কায়া ছায়া-মায়ার সমান |
দুই পাখায় সে-তো বহু ||
চিত্ত তথতা-স্বভাবে শোধিত |
জয়নন্দী বলেন, (এটা ) স্পষ্ট (যে ) অন্য হয় না ||




.       ****************                                       
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি জয়নন্দীপাদ      

৪৬. রাগ শবরী | জয়নন্দীপাদানাম্ |
পেখু সুঅণে অদশ জইসা |
অন্তরালে মোহ তইসা || ধ্রু ||
মোহ বিমুক্কা জই মণা |
তবেঁ তুটই অবণাগমণা || ধ্রু ||
নৌ দাঢ়ই নৌ তিমই ন ছিজই  |
পেখ মাআ মোহে বলি বলি বাঝই || ধ্রু ||
ছাআ মাআ কাঅ সমাণা  |
বেণি পাখেঁ সোই বি ণাণা || ধ্রু ||
চিঅ তথতাস্বভাবে ষোহিঅ |
ভণই জঅনন্দি ফুড় অণ ণ হোই || ধ্রু ||
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
*
কমল ও কুলিশের মধ্যে মিত্রতা হল |
সমতাযোগে জ্বলল চন্ডালী ||
দগ্ধ ডোম্বী-ঘরে লাগল আগুন |
শশধর--সলিলে সিঞ্চন করি পানী ||
নাই খরজ্বালা না ধুম দেখা যায় |
মেরুশিখর ধরে গগনে প্রবেশ করে ||
দগ্ধ করে হরি-হর-ব্রহ্ম-ভট্টারককে |
নবগুণ (পৈতা ) ও শাসনপাটা ধ্বংস হয় ||
বলেন ধাম, স্পষ্ট নাও রে জেনে |
পঞ্চনালে উঠে গেল পানী ||



.       ****************                                   
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি ধামপাদ    

৪৭. রাগ গুর্জরী | ধামপাদানাম্ |
কমল কুলিশ মাঝেঁ ভইঅ মিঅলী |
সমতা জোএঁ জলিঅ চন্ডালী || ধ্রু ||
ডাহ ডোম্বী ঘরে লাগেলি আগি |
সসহর ষলিলই ষিঞ্চহুঁ পাণী || ধ্রু ||
ণউ খর জালা ধুম ণ দিশই |
মেরু শিখর লই গঅণ পইসই || ধ্রু ||
দাঢ়ই হরিহর বাহ্ম ভরা |
ফীটা হই নবগুণ শাসনপড়া || ধ্রু ||
ভণই ধাম ফুড় লেহূরে জাণী  |
পঞ্চ নালেঁ উঠে গেল পাণী || ধ্রু ||
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
*
বজ্রনৌকা পেড়ে পদ্মখালে বাওয়া হল১ |
অদ্বয় বাঙ্গালের২ দ্বারা দেশ লুঠ হল ||
আজ ভুসুকু বাঙ্গালী হল |
নিজ ঘরনী (রূপে ) চন্ডালীকে নিল || ৩
দগ্ধ যে পঞ্চ পাট, ইন্দ্রিয় বিষয়  নষ্ট |
জানিনা চিত্ত মোর কোথায় গিয়ে প্রবিষ্ট ||
স্বর্ণ এবং রূপা আমার কিছুই থাকল না |
নিজ পরিবারে মহা স্নেহে থাকলাম ||
চতুষ্কোটি ভান্ডার আমার নিয়ে শেষ (করল ) |
জীবন্তে-মৃতে নাই বিশেষ  ||



১ বজ্রনৌকা পদ্মযানে চালানো তান্ত্রিক দেহ--সাধনায়
নরনারীর সঙ্গম-সূচক |
২  দঙ্গাল বা দস্যুর দ্বারা |
৩ ভুসুকুর চন্ডালিনীকে ঘরণীরূপে গ্রহণ ও তান্ত্রিক
সাধনায় নিন্মবর্ণের নারীতে উপগত হওয়ার দ্যোতক |




.       ****************                                       
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি ভুসুকুপাদ  

৪৯. রাগ মল্লারী | ভুসুকুপাদানাম্ |
বাজ ণাব পাড়ী পঁউআ খালেঁ বাহিউ |
অদঅ বঙ্গালে১ দেশ লুড়িউ || ধ্রু ||
আজি ভুসুকু বঙ্গালী ভইলী  |
নিঅ ঘরিণী চন্ডালী লেলী  || ধ্রু||
ডহি জো পঞ্চ পাটণ ইংদি বিসআ ণঠা |
ণ জানমি চিঅ মোর কহিঁ গই পইঠা || ধ্রু ||
সোণ ত রুআ মোর কিম্পি ণ থাকিউ  |
ণিঅ পরিবারে মহা নেহে থাকিউ || ধ্রু ||
চউকোডি ভন্ডার মোর লইআ সেস |
জীবন্তে মইলেঁ নাহি বিশেষ  || ধ্রু ||

১ সেন ‘ দঙ্গালে’ (দস্যু অর্থে ) দ্র.১২৩ পৃ,
মূল পুথিপাঠ  |
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ
আইএ অণুঅনা এ জগ রে ভাংতিএঁ সো পড়িহাই |
রাজসাপ দেখি জো চমকিই সাচে কিং তং বোড়ো খাই || ধ্রু ||
অকট জোইআ রে মা কর হথা লোহ্ণা  |
আইস সহাবে জই জগ বুঝষি তুটই বাষণা তোরা || ধ্রু ||
মরুমরীচি গন্ধ (ব্ব ) নইরী দাপতিবিম্বু জইসা |
বাতাবত্তেঁ সো দিঢ় ভইআ অপেঁ পাথর জইষ || ধ্রু||
বাঁধিসুআ জিম কেলি করই খেলই বহুবিহ খেড়া |
বালুআতেলেঁ সসরসিংগে আকাশে ফুলিলা  ||ধ্রু ||
রাউতু ভনই কট ভুসুকু ভনই কট সঅলা অইস সহাব |
জই তো মূঢ়া অচ্ছসি ভান্তী পুচ্ছ তু সদ্ গুরু পাব || ধ্রু||
*
গগনে গগনে ত্রিতল বাড়ী, হৃদয় কুঠার |
কন্ঠে নৈরাত্মা বালিকা, জেগে উত্পাটিত করে ||
ছাড়, ছাড়, মায়া-মোহ বিষম দ্বন্দ্বকারী |
মহাসুখে বিলাস করে শবর নিয়ে শূন্য-নারীকে ||
দেখি সে আমার তৃতীয় বাড়ী শূন্যের ন্যায় সমতুল্য |
সুন্দর এই সেই রে, কাপাস ফুটেছে ||
তৃতীয় বাড়ির পাশের জ্যোত্স্নাবাড়ী উদিত হল  |
অন্ধকার দূর হল রে, আকাশ ফুল্ল হল ||
কঙ্গুরিণা পাকল রে, শবর-শবরী মত্ত হল |
প্রতিদিন শবরের কিছুই চেতনা হয় না, মহাসুখে (সে) রইল ||
চতুর্থ সেই বাস তৈরী হল রে , চঞ্চালী দিয়ে |
তাতে তুলে শবরকে দাহ করল, কাঁদল শকুন শৃগালী ||
মারল ভবমত্তাকে রে, দশদিকে দিল বলী |
দেখ, সে সবরের নির্বাণ হল, ঘুচে গেল সব দুঃখ ||


.       ****************                                       
র্যাগীতির সূচি   
চর্যাগীতি
কবি শবরপাদ    

৫০. রাগ রামক্রী | শবরপাদানাম্ |
গঅণত গঅণত তইলা বাড়্ হী হেঞ্চে কুরাড়ী |
কন্ঠে নৈরামণি বালি জাগন্তে উপাড়ী || ধ্রু ||
ছা ছা মাআ মোহা বিষম দুন্দোলী  |
মহাসুহে বিলসন্তি শবরো লইআ সুণ মেহেলী || ধ্রু ||
হেরি যে মেরি তইলা বাড়ী খসমে সমতুলা  |
ষুকড় এ সে রে কপাসু ফুটিলা || ধ্রু ||
তইলা বাড়ির পাসের জোহ্ণা বাড়ি উএলা  |
ফিটেলি অন্ধারী রে অকাশ ফুলিআ || ধ্রু ||
কঙ্গুরিনা পাকেলা রে শবরাশবরি মাতেলা |
অণুদিন সবরো কিংপি ন চেবই মহাসুহেঁ ভেলা || ধ্রু ||
চারিবাসে তা ভলা রে দিআঁ চঞ্চালী |
তঁহি তোলি শবরো ডাহ কএলা কান্দশ সগুণ শিআলী || ধ্রু ||
মারিল ভবমত্তা রে দহদিহে দিধলী বলী  |
হের সে শবরো ণিরেব্ ণ ভইলা ফিটিলি ষব সলী  || ধ্রু ||
চর্যাগীতির আধুনিক বাংলা রূপ