রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গল কাব্য
কবি রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গলের পরিচিতির পাতায় . . .
রূপরামের ধর্মমঙ্গল কাব্যের সূচি
তবে যদি এই অস্ত্র তোরে দিব দান  |
আজি হইতে অসুর হবেক বলবান ||
দেবতা অসুরে বড় বাড়িব জঞ্জাল |
শচী রাখ্যা ইন্দ্র যাব সপ্তম পাতাল ||
প্রাণ লয়্যা তরাসে পলাব প্রজাপতি |
এই খড়্গ না দিব ময়নার অগ্রগতি ||
দেবতার বলে এই খড়্ গের নির্মাণ |
অকালে দিয়াছে কাল দেবতা প্রমাণ ||
যবে ছিলা অনন্ত শয়নে নারায়ণ |
ক্ষীরোদের কুলে জড় হৈল দেবগণ ||
এই অস্ত্র সেখানে আপনি অবতার |
কহিল পুরাণ কথা ভারথের সার ||
অন্য বর মাগ্যা লহ ময়নার রাজা  |
সিংহে বস্যা বলেন বাশুলি দশভুজা ||
এত শুনি লাউসেন করে নিবেদন |
এই অস্ত্র দিয়া রাখ ভক্তের জীবন ||
বেদমাতা ব্রহ্মার জননী আচম্বিতে |
জয় দিয়া অস্ত্র দিল লাউসেনের হাথে ||
লাউসেনে খড়্গ দিল ব্রহ্মার জননী |
শীঘ্রগতি সিংহরথে বসিলা আপনি ||
কৈলাস পর্বত মুখে রথের পয়ান |
দন্ডমাত্র শিবের সমুখে অধিষ্ঠান ||
নিকেতন পাইল যদি গণেশজননী |
দুর্গাকে দেখিয়া শিব উঠিলা আপনি ||
হের আইস কাছে বৈস গণেশের মা |
আনন্দ হৃদয় দেখি মুখে নাই রা ||
পুজা দেখিবারে তুমি করিলে গমন  |
আমা হেতু পার্বতী আন্যাছ কোন্ ধন  ||
এত বলি হাথে ধরি কাছে বসাইল  |
লজ্জাবতী ঈশ্বরী বদনে বস্ত্র দিল ||
হরগৌরী দুজনে বসিয়া কুতুহলে |
কৃষ্ণগুণ গাইয়া নারদ হেনকালে ||
সভা আগে দন্ডবত শিবের চরণে  |
ঈশ্বরী চরণে দন্ডবত একমনে ||
ভবানী বলেন বাপা হরিভক্তি হকু  |
সর্বকালে বিষ্ণুর চরণে মন রকু  ||
মনে চিন্তা করিল নারদ মুনিবর  |
বড় আজি প্রীত দেখি পার্বতী শঙ্কর ||
যার বাড়ী দিয়া রে নারদ মুনি যায়  |
ছমাসে তাহার ঘরে কুন্দল ভেজায়  ||
নারদ বলেন মামা করি নিবেদন |
কি বলিব মহাশয় মামীর কথন ||
তোমাকে সে বলিহে দেবের দেবরাজ |
মামী হৈতে মামা তোমার দেশ জুড়্যা লাজ  ||
অবনী গেলেন মামী পূজা দেখিবারে |
জয়মঙ্গল অস্ত্রখানি দিয়া আইল কারে ||
অসুর দিলেন হানা দেবতার বাসে |
বনিতা রাখিয়া কেহ পলায় তরাসে ||
শচীপতি পলায় রাখিয়া পাটরাণী |
লক্ষ্মীদেবী রাখিয়া পলাল্য চক্রপাণি ||
কাকরূপে যম রাজা গেল দিগন্তর |
কারে দান দিল মামী অপূর্ব আতর
শঙ্কর বলেন গৌরী তুমি থাক ঘরে  ||
তরাসে চঞ্চল প্রাণ অসুরের ডরে |
অরণ্যে করিব বাস গৌরীর সন্তাপে ||
নতুবা এমন দুঃখ সহে কার বাপে |
এত শুনি পার্বতী বলেন জোড়হাথ  ||
আমার বচন কিছু শুন প্রাণনাথ  |
লাউসেনে অস্ত্র দিনু অন্য কেহ নয় ||
কলিযুগে বার দন্ড পশ্চিম উদয়  |
এত শুনি শঙ্কর বসিলা বাঘছালে  ||
কৃষ্ণগানে নারদ গেলেন কুতুহলে |
দরশন দিল গিয়া দেবতা সভায়  ||
ধর্মের মঙ্গল দ্বিজ রূপরাম গায়  |
খড়্গ পায়্যা নাচেন দুর্লভ সদাগর  ||
নিবেদন করে তবে কর্পূর পাতর  |
তুমি মনে কর আমি ধর্মের তপস্বী ||
তবে আনাগোনা করে কাহার রূপসী  |
একথা বলিব গিয়া জননীর পায় ||
কেমন চরিত্র তব সহা নাঞি যায়  |
লাউসেন বলে অস্ত্র দেখ বিদ্যমান ||
জয়দুর্গা বিষ্ণুর জননী দিল দান |
জয়দুর্গা রূপ দেখি অস্ত্রের উপর ||
মনের প্রত্যয় পাইল কর্পূর পাতর |
পুনর্বার কর্পুর করিল নিবদন  |
মন দিয়া শুন ভাই আমার বচন ||
এই অস্ত্র সমান সঞ্চয় কর ফলা  |
সংসার বিজই হবে লাউসেন বালা ||
দুই ভাই গৌড়ে হব রাজার চাকর |
ইনাম লইব রাজ্য ময়না নগর ||
নিকটে গৌউড় বটে দূর নাহে পথ  |
যেইদিগে জাহ্নবী আনিল ভগীরথ ||
মা-বাপের উপায় যেজন বস্যা খায়  |
গাধার জাহর বল্যা নাম লেখা যায়  ||
ফলা হৈলে ফাল্গুনে দুভাই গৌড় যাব |
রাজার দরবারে গিয়া চাকরি করিব  ||
বত্সরে বত্সরে যত দিব ইরশাল |
সেই ধনে দেশে দিব দেউল জাঙ্গাল  ||
এত শুনি লাউসেন সত্বর গমন |
পিতার সমুখে গিয়া কৈল নিবেদন ||
মহামায়া আস্যা মোরে অস্ত্র দিল দান  |
তুমি ফলা দেহ বাপা এহার সমান  ||
একদন্ড এহার বিলম্ব নাঞি সয়  |
এহার বিলম্বে প্রাণ কদাচিত রয়  ||
কর্ণসেন বলে বপু কহিতে তোমারে |
তিন লক্ষ ফলা আছে দক্ষিণ ভান্ডারে ||
আমার ভান্ডারে বাপু নাই কোন ধন |
সজল নয়নে ভাস ইহার কারণ||
এত শুনি লাউসেন মনে হরষিত |
জয়মুনি ভান্ডারে গিয়া হৈল উপনীত ||
সারি সারি নানা অস্ত্র বন্দুক কামান  |
দেখিল বিনোদ ফলা অপূর্ব নির্মাণ  ||
সলম্বিত চামর উপরে রক্তবাস  |
অন্ধকার ঘরে যেন তরণি-প্রকাশ ||
একে একে ফলা সব করে নিরক্ষণ |
বাছিয়া নিলেক ফলা খড়্গের কারণ ||
ফলা ধরি ফলঙ্গ সারিতে একবার  |
বাম করে ফলাখান হৈল চুরমার ||
পুরাতন ফলা সব গুঁড়া হয়্যা যায়  |
ভাঙ্গিল বিস্তর ফলা ময়নার রায়  ||
খড়্গের সমান ফলা না পায়্যা তখন  |
পুনরপি পিতার সমুখে দরশন ||




.                                                   
আখড়া পালার পরের পৃষ্ঠায় . . .  
.                                                                 
এই পাতার উপরে . . .     


মিলনসাগর
১    বন্দনা  পালা     
.          
গনেশ বন্দনা    
.          
ধর্ম্ম বন্দনা    
.          
ঠাকুরাণী বন্দনা     
.          
চৈতন্য বন্দনা    
.          
সরস্বতী বন্দনা     
.          
বিপ্র বন্দনা      
.          
দিগ্ বন্দনা    
২   
আত্মকাহিনী    
৩   
স্থাপনা পালা    
৪    
আদ্য ঢেকু পালা    
.           
গজেন্দ্র মোক্ষণ    
৫    
রঞ্জার বিবাহপালা     
৬   
লুইচন্দ্র পালা     
৭   
শালেভর পালা    
৮   
লাউসেনের জন্মপালা      
.            
পরিশিষ্ট, জন্মপালা      
৯   
লাউসেন চুরিপালা    
১০
আখড়া পালা     
১১
ফলানির্মাণ পালা     
১২
মল্লবধ পালা      
১৩
বাঘজন্মপালা     
১৪
বাঘবধ পালা      
১৫
জামতি পালা      
১৬
গোলাহাটপালা      
১৭
হস্তিবধপালা      
১৮
কাঙুরযাত্রাপালা      
১৯
কলিঙ্গাবিভাপালা     
২০
লৌহগন্ডারপালা       
২১
কানড়াবিভাপালা      
২২
অনুমৃতাপালা     
২৩
ইছাইবধপালা     
২৪
অঘোরবাদলপালা     
২৫
জাগরণপালা     
২৬
স্বর্গারোহণপালা     
আখড়া পালার আগের পৃষ্ঠায় . . .
রূপরামের ধর্ম্মমঙ্গল
|| আখড়া পালা ||
পৃষ্ঠা