রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গল কাব্য
কবি রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গলের পরিচিতির পাতায় . . .
রূপরামের ধর্মমঙ্গল কাব্যের সূচি
মদনে মাতাল হইয়া কেহ নৃত্য করে |
কুটিল কুন্তলভার চম্পক শিখরে ||
কেহবা ওষধ লয়্যা ফিরে দেশান্তর |
প্রবন্ধ করিয়া আনে পরম সুন্দরে ||
ডানিদিগ হইতে গোলাহাটের সীমানা |
পরবাসী ব্যাপারী এ পথে যাত্যে মানা ||
কর্পূর কহিল যদি এ সব কথন |
দ্বিজ রূপরাম গান দৈমন্তীনন্দন ||

রাজা বলে কর্পূর প্রাণের তুল্য ভাই |
ভবিষ্যত বারতা তোমার মুখে পাই ||
অবশ্য গোউড় যাব গোলাঘাট দিয়া |
বিবিতার নাট যাব নয়ানে দেখিয়া ||
বেউশ্যা দেখিলে পূণ্য গঙ্গাস্নান কয় |
ততোধিক রাজারে দেখিলে পূণ্য হয় ||
পরশ করিলে পাপ না যায় খন্ডন |
শুনরে কর্পূর তোর বুদ্ধি বিচক্ষণ ||
দুর্লভ জনমে দেখি সভাকার নাট |
চল যাই দুভাই দেখিব গোলাহাট ||
কোন ভাবে নিবসে কেমনে গায় গীত |
নয়নে দেখিব চল দৈবের রচিত ||
কত বড় সুরীক্ষা কেমন কদাচারী |
কেমন বয়সে নৃত্য করে কোন নারী ||
গীতে মন মজিলে মাণিক দিয়া যাব |
পান গুয়া সন্দেশ নগরে নাই খাব ||
তুমি তার ছকুড়ি নাগর দিলে লেখা |
এই সব পুরুষে  কেমনে ভজে একা ||
পূর্বকথা এহার অবশ্য আছে ভাই |
হেনজন দেখিলে অনেক পূণ্য পাই ||
পুনর্বার বলেন পূর্বের বিবরণ |
উপাসনা ভবানী কি জানি নারায়ণ ||
কর্পূর বলেন দাদা শুন তত্ত্ববাণী |
ছকুড়ি নাগর তার নাম সব জানি ||
রূপে গুণে সভাই পন্ডিত মহাকবি |
বলবন্ত কুলবন্ত প্রতাপেতে রবি ||
জয়দেব পড়ে কেহ জমুর অমর |
মদনমঞ্জরী মুখ মোহন নাগর ||
একে একে কব সব নাগরের নাম |
বনমালী বসন্ত রাঘব বলরাম ||
দুবরাজ শঙ্কর সহদেব সনাতন |
গোপাল গোবিন্দ হরি শিব ত্রিলোচন ||
হরিশ অনন্ত রাম ভবানী দয়াল |
অঙ্গদ মাধব জয় কিশোর গোপাল ||
কামদেব জানকী জগত জনার্দন |
ভৃগুরাম সন্তোষ মুকুন্দ নারায়ণ ||
কুমুদ কল্যাণ কাশী কেশব কুশল |
নরহরি গদাধর আদিত্য মঙ্গল ||
চন্ডী চতুর্ভূজ চৃড়ামণি চক্রপাণি |
জয় জগন্নাথ যাদব যদুমণি ||
অনন্ত অগস্ত্য অত্রি অচ্যুত আনন্দী |
সনাতন সনক সানন্দ সানন্দী ||
এই সব নাগর কতেক নাম দিব |
পূর্ববাণী বেউশ্যার পশ্চাত কহিব ||
লাউসেন বলেন বিলম্বে কাজ নাই |
গোলাহাট দেখ্যা যাব যে করে গোসাই ||
এত বলিল চলিল ময়নার তপোধন |
গোলাঘাট দক্ষিণে দিলেক দরশন ||
নানা বাদ্য জরপ জঙ্গল রাজ্যময় |
রাজ্য দেখে সহস্রলোচন যদি হয় ||
দান্ডাইল লাউসেন কদম্ব তরুতলে |
চন্দ্রের মন্ডল যেন অবনীমন্ডলে ||
রূপে আর হৈল যদি রক্ষা নাঞি আর |
বিচিত্র বসন আর চিন্তামণি হার ||
রূপ দেখ্যা মজিল যতেক রামাগাণ |
কেহ দূর কব়্যা ফেলে বুকের বসন ||
কেহ বা ঈঙ্গিত ভাষে নয়নের কোণে |
দ্বিচারিণী অবলা অবশ্য লোক চিনে ||
তবে রাজা লাউসেন নগরে দেখা দিল |
রসাল জরপজাল জঞ্জাল বাজিল ||
হীরা নামে মালিনী নগরে ফুল বেচে |
পরের পাইলে পুত্র লুকায় কড়তে ||
চম্পক মালতী কুন্দ মল্লিকার কুঁড়ি |
মিশাল কব়্যাছে তায় ওষধের গুঁড়ি ||
পঞ্চাশ মোহর বেচে মল্লিকার মালা |
সেইখানে দন্ডাইল লাউসেন বালা ||
মল্লিকার মালা দেখ্যা ভাবে মায়াধর |
এই ফুলে সাধ যায় সেবিতে শঙ্কর ||
মনে হইল আনন্দে করিব ধর্মপূজা |
আগু হয়্যা বলে কিছু ময়নার রাজা ||
দুই মাল্য দেহ মোরে মল্লিকা চম্পক |
ধর্মপূজা করি আমি সূর্যের সেবক ||
মালিনী বলিল শুন বৈদেশী নন্দন |
মিনি সুতে মালতী মল্লিকা বিচক্ষণ ||
একেক মাল্যের মূল্য পঞ্চাশ মোহর |
পাজ্জাত সমান ফুল সুগন্ধি সুন্দর ||
বসন্ত খরায় পুষ্প না হয়. মলিন |
গলায় পরিলে গন্ধ থাকে দশদিন ||
জরা লোক পরিলে যৌবন পুনু পায় |
যুবক পরিলে জ্বলে জীবনর প্রায় ||
এ মাল্য গলায় পরে আছে যার ধন |
দ্বিজ রূপরাম গান সখা নিরঞ্জন ||

এক মনে শুন সভে ধর্ম অবতার |
উত্তম মঙ্গল এই সংসারের সার ||
মালিনী বলিল শুন বৈদেশী কুঙর |
যুগল মালতী লেহ মাণিক সোসর ||
এত বলি দুই মাল্য দিল দুইজনে |
ধর্মের উদ্দিশে দিল রাজা লাউসেনে ||
গলায় পরিল মাল্য মনোহর ফুল |
অবলা দেখিয়া হৈল মরমে আকুল ||
লাউসেন বলে বন্য শুনগো মালিনী |
তোমার মন্দিরে আজি বঞ্চিব রজনী ||
প্রত্যুষ বিহানে কালি যাইব গোউড় |
নাই ভাসে যাদব সজাগ চন্দ্রচুড় ||
এত শুনি মালিনী বিনয়বাক্য কয় |
আজি বাসা নিতে চল আমার আলয় ||
পরিবার সহিত তোমার সেবা নিব |
ছকুড়ি চাঁপার ফুলে মাল্য পরাইব ||
দেখহ আমার বাড়ী ফুলের বাগান |
গগনে দেউল চূড়া দেখ বিদ্যমান ||
দেবালয় দক্ষিণে বসিবে দুই ভাই |
তোমার প্রসাদে আমি ফুল বেচ্যা খাই ||
অনেক দিবস আমি গোলাঘাটে আছি |
তিন সন্ধ্যা বাজারে বাজারে ফুল বেচি ||
আগে চল বাড়িকে বিলম্বে কার্য কি |
সবিনয় বিস্তর বলিল মালী ঝি ||
দুইদিগে দেবালয় দুইভাই সুখে |
রমণী বাজারে যাহ মনের কৌতুকে ||
দুই সারি রঙ্গন দলজ তার কাছে |
তিন সারি কদম্ব গুবাক তরু নাছে ||
অপরূপ চৌদিগ সাক্ষাত নিধুবন |
নিকুঞ্জ মন্দির শোভা সুন্দর সদন ||
তায় খাট পালঙ্ক অনেক রূপ দেখি |
একেক নাগর সঙ্গে চারি পাঁচ সখী ||

.      ******************      


.                                                      
জামতিপালার পরের পৃষ্ঠায় . . .  
.                                                                      
পাতার উপরে . . .   


মিলনসাগর
১    বন্দনা  পালা     
.          
গনেশ বন্দনা    
.          
ধর্ম্ম বন্দনা    
.          
ঠাকুরাণী বন্দনা     
.          
চৈতন্য বন্দনা    
.          
সরস্বতী বন্দনা     
.          
বিপ্র বন্দনা      
.          
দিগ্ বন্দনা    
২   
আত্মকাহিনী    
৩   
স্থাপনা পালা    
৪    
আদ্য ঢেকু পালা    
.           
গজেন্দ্র মোক্ষণ    
৫    
রঞ্জার বিবাহপালা     
৬   
লুইচন্দ্র পালা     
৭   
শালেভর পালা    
৮   
লাউসেনের জন্মপালা      
.            
পরিশিষ্ট, জন্মপালা      
৯   
লাউসেন চুরিপালা    
১০
আখড়া পালা     
১১
ফলানির্মাণ পালা     
১২
মল্লবধ পালা      
১৩
বাঘজন্মপালা     
১৪
বাঘবধ পালা      
১৫
জামতি পালা      
১৬
গোলাহাটপালা      
১৭
হস্তিবধপালা      
১৮
কাঙুরযাত্রাপালা      
১৯
কলিঙ্গাবিভাপালা     
২০
লৌহগন্ডারপালা       
২১
কানড়াবিভাপালা      
২২
অনুমৃতাপালা     
২৩
ইছাইবধপালা     
২৪
অঘোরবাদলপালা     
২৫
জাগরণপালা     
২৬
স্বর্গারোহণপালা     
জামতি পালার আগের পৃষ্ঠায় . . .
রূপরামের ধর্ম্মমঙ্গল
জামতি পালা
পৃষ্ঠা -