রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গল কাব্য
কবি রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গলের পরিচিতির পাতায় . . .
রূপরামের ধর্মমঙ্গল কাব্যের সূচি
আগুদলে দুড় দুড় সঘনে পড়ে দামা |
দুই হাজার হাতি সঙ্গে আগে খানসামা ||
কর্ণসেন আপুনি রাজার কাছে যায় |
ছয় বেটা ছয় ঘোড়া সঘনে চালায় ||
উভুদলে পার হৈল ভৈরবীর জল |
ভুঞার পয়াণে মহী করে টলমল ||
ষোল ক্রোশ জুড়িয়া পদাতি পড়ে ঠাট |
গোত্তাগাছি ভৈরবী রাখিল গোলাহাট ||
স্নানপূজা দান নাঞী নৃপতির মনে |
ঢেকুরে দিলেক দেখা অজয় পুলিনে ||
শুন্যাছি পিতার মুখে বল্যা যেন রাজা ( ? )  |
লঙ্ঘিবারে এ নদী নারিল কোন রাজা ||
মনে নাঞী অনুমান পাত্রের বচন |
ঐমনি চলিল রাজা চড়িয়া বারণ ||
তড়ে ছিল মাতঙ্গ সলিলে দিল পা |
আচম্বিতে দুর্দুড় জলের শুনি রা ||
বাও নাঞী বাতাস নাঞী বরষা বাদল |
মাঘমাসে নদী বাড়ে বিধাতার বল ||
সলিলের শব্দ শুনি ভূপতি পাছায় |
তিন হাজার হাতী ঘোড়া জলেতে স্যাজায় ||
অজয়ার বন্যা দেখি ত্রাস হৈল মনে |
মহারাজ মোকাম করিল ভুঞ্যাগণে ||
ষোল ক্রোশ উত্তরিল রাজার নস্কর |
অনর্থ বাড়িল গিয়া ঢেকুর ভিতর ||
শ্যামরূপা দেবী তখন বসিয়া দেউলে |
ইছাএ ডাকিয়া তখন বলেন বিরলে ||
উভুদলে এক রাজা বারভুঞ্যাগণ |
লোহাটা বর্জ্জর বলে পাঠাই এখন ||
যত দিন নাঞী হয় কচ্ছপ অবতার |
ততদিন তোমাকে দিয়াছি অধিকার ||
আমি রণে যাব বাপু তুমি বৈস ঘরে |
দশ গৌড়েশ্বর তোর কি করিতে পারে ||
উপলক্ষ বলে যদি লোহাটা বর্জ্জর |
নবলক্ষ সৈন্যকে পাঠাব যমঘর ||
উপলক্ষ বিনা কার্য্য না হয় কখন |
উপলক্ষ বিনা বাপু না হয় নিধন ||
একদন্ড পাঠাইলে অনেক কার্য্য হয় |
চারিদিকে বৈ নহে শুখাব অজয় ||
শিরোধার্য্য সত্বরে দেবীর বাক্য নিল |
লোহাটা বর্জ্জর বীর সংগ্রামে সাজিল ||
ব্যালিশ কোটাল সঙ্গে যমের সমান |
তরণি উপরে চড়ে অতি বেগবান ||
কাড়া শিঙ্গা টমক নিশান ঘনে ঘন |
তরঙ্গে তরঙ্গে তরী করিল গমন ||
পঞ্চমুখে হাতি ঘোড়া রাহুত মাহুত |
লোহাটা দিলেক তাড়া যেন যমদূত ||
অনাদ্যের মায়া কহনে নাঞী যায় |
অনাদ্যমঙ্গল দ্বিজ রূপরাম গায় ||

অকালে অনিল যেন উত্তর অম্বরে |
লোহাটা উরিয়া পড়ে লস্কর ভিতরে ||
আথালি পাথালি সৈন্য হানে ঝনঝন |
মধ্যরণে রাউত সর্দ্দার কাটা যান ||
দুহাতে হেত্যার ধরি উভুদলে চোট |
হিমালয় সদৃশ কুঞ্জর যায় লৌট  ||
বারভূঞ্যা বলে যুঝে রাজা গৌড়েশ্বর |
উলটি পালটি হানা দিলেক বর্জ্জর ||
ঘোড়ার হিষুঁনি শুনি হাতির নিনাদ |
আকাশ পাতাল ভেদি হইল প্রমাদ ||
রামরায় সিফাই হাথির পিঠে যুঝে |
দামার শব্দ যেন দেবতা গরজে ||
রণে যুঝে আগুরি দক্ষিণ-চূড়ামণি |
সমুখে দিয়াছে হানা রাখে বাণ আনি ||
কর্ণসেন দিয়াছে দক্ষিণ দিগে হানা |
ছয় বেটা রণে যুঝে বাণে বিচতক্ষণা ||
কেহ বা তুরঙ্গ-পিঠে কেহ বা টাঙ্গনে |
পিতার সঙ্গতি পুত্র যুঝে মাঝ রণে ||
রাজা পাত্র বারণে বসিয়া বলে মার |
গুলি পড়ে একা রণে পঞ্চাশ হাজার ||




                                             
আদ্য ঢেকুর পালার পরের পৃষ্ঠায় . . .  
.                                                                 
এই পাতার উপরে . . .     


মিলনসাগর
রূপরামের ধর্ম্মমঙ্গল
|| আদ্য ঢেকুর পালা ||
পৃষ্ঠা                     ১০
আদ্য ঢেকুর পালার আগের পৃষ্ঠায় . . .
১    বন্দনা  পালা     
.          
গনেশ বন্দনা    
.          
ধর্ম্ম বন্দনা    
.          
ঠাকুরাণী বন্দনা     
.          
চৈতন্য বন্দনা    
.          
সরস্বতী বন্দনা     
.          
বিপ্র বন্দনা      
.          
দিগ্ বন্দনা    
২   
আত্মকাহিনী    
৩   
স্থাপনা পালা    
৪    
আদ্য ঢেকুর পালা    
.           
গজেন্দ্র মোক্ষণ    
৫    
রঞ্জার বিবাহপালা     
৬   
লুইচন্দ্র পালা     
৭   
শালেভর পালা    
৮   
লাউসেনের জন্মপালা      
.            
পরিশিষ্ট, জন্মপালা      
৯   
লাউসেন চুরিপালা    
১০
আখড়া পালা     
১১
ফলানির্মাণ পালা     
১২
মল্লবধ পালা      
১৩
বাঘজন্মপালা     
১৪
বাঘবধ পালা      
১৫
জামতি পালা      
১৬
গোলাহাটপালা      
১৭
হস্তিবধপালা      
১৮
কাঙুরযাত্রাপালা      
১৯
কলিঙ্গাবিভাপালা     
২০
লৌহগন্ডারপালা       
২১
কানড়াবিভাপালা      
২২
অনুমৃতাপালা     
২৩
ইছাইবধপালা     
২৪
অঘোরবাদলপালা     
২৫
জাগরণপালা     
২৬
স্বর্গারোহণপালা