রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গল কাব্য
কবি রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গলের পরিচিতির পাতায় . . .
রূপরামের ধর্মমঙ্গল কাব্যের সূচি
পাত্র ধরি বিনয় বলিছে কোন জন  |
তুমি মাত্র নয়নে দেখিলে নারায়ণ  ||
সভাই বঞ্চিত হৈল তুমি ভাগ্যবতী |
নয়নে দেখিলে ধর্ম্ম অর্জ্জুন-সারথি  ||
এত বলি চাঁপায়ে আনন্দ বড় হৈল |
রঞ্জাবতী রানী ঘটে বিসর্জ্জন দিল ||
খসাল্য গলার পাটা ভাঙ্গিল নিয়ম |
ধর্ম্মপূজা দেখিলে পালায়্যা যায় যম ||
তিনবার চাঁপায়ে করিল প্রণিপাত  |
নৌকার উপরে তুল্যা নিল দ্রব্যজাত  ||
দন্ড ধরি নৌকায় বসিল কত নায়্যা |
ঘর যান রঞ্জাবতী পুত্রবর পায়্যা ||
শঙ্খধ্বনি জয়ধ্বনি নৌকার উপরে |
বাহিল চাঁপাই নদী এ দুই প্রহরে ||
ধর্ম্মদহ বাহিল তরণী প্রাণপণে |
পাতাল হইতে জল উঠিছে গগনে ||
রাজবাটী সমুখে দক্ষিণে বৃন্দাবন |
সলিলে কুম্ভীর ভাসে পর্ব্বত যেমন  ||
নৌকার উপরে বাজে কাড়া আর শিঙ্গা  |
কালিনী গঙ্গার ঘাটে দেখা দিল ডিঙ্গা ||
দেখিতে দেখিতে পাইল ময়না নগর  |
বিদায় হইয়া সন্ন্যাসী ভকিতা গেল ঘর ||
নানা ধনে সভাকার হৈল পুরস্কার |
দন্ডবৎ প্রণাম করিল বারে বার ||
আশীষ করিয়া সভে গেলা নিজালয়  |
বন্দিএ মউরভট্ট রূপরাম গায় ||
রাজাকে ভেটিতে রানী রঞ্জাবতী যায়  |
রঞ্জাবতী স্বামীর সমুখে গিয়া রয়  ||
প্রণাম করিয়া বলে জুড়ি দুই কর |
চাঁপাই ভুবনে আমি পাইল পুত্রবর ||
শুনিয়া বলেন রাজা এ বড় জঞ্জাল  |
বসিলে উঠিতে নারি অতি বৃদ্ধকাল  ||
ডাকাডাকি বারতা বলিল কানে কানে |
রঞ্জাবতী বলিল রাজার বিদ্যমানে ||
হাতাড়িয়া বুড়া রাজা গায়ে দিল হাত |
বলিতে লাগিল রাজা রঞ্জার সাক্ষাৎ ||
তোমা না দেখিয়া প্রাণ কেমন কেমন করে |
পঞ্চদশ দিন তুমি নাই ছিলে ঘরে  ||
চাঁপায়ে বিলম্ব হইয়াছে দশ দিন |
বংশে কেহ নাহি মোর তোমার অধীন ||
ধর্ম্মের কৃপায় যদি কোলে বংশ হয়  |
বুড়া রাজা হাথে ধরি বলে সবিনয় ||
প্রবাল মুকুতা হীরা আছে নানা ঠাঞী |
তোমা বিনা সে ধন আমারে সাজে নাঞী  ||
যত যত রম্ভা কলা সকলি তোমার |
হস্তী বল অশ্ব বল যত কিছু আর  ||
তুমি মোর বাড়ীতে লক্ষের ঠাকুরাণী |
রঞ্জাবতী বলে আমি কিছুই না জানি ||
স্বামীর সঙ্গে আনন্দে বসিয়া কুতুহলে  |
বড় সুখে ভোজন করিল সন্ধ্যাকালে ||
সকালে সারিল যদি রন্ধন ভোজন |
কল্যাণী মানিকী রামা ডাকেন তখন ||
শুন গো কল্যাণী তোরে উপদেশ কই  |
মানিকী আমার দাসী প্রেতরাজ বই ||
স্বামী সঙ্গে শয়ন করিতে সাধ যায়  |
সাজাইবে বাসঘর এই তোমার দায়  ||
পতি সঙ্গে বঞ্চিলে অবশ্য পুত্র হয়  |
সর্ব্ব অন্ধকার-রাজি কেহ কার নয় ||
ধন কড়ি যত বল সব অন্ধকার |
কোলে না থাকিলে বংশ দিবসে আন্ধার ||
দারুণ বিধাতা বস্যা ভাঙ্গে আর গড়ে |
কতেক বলিব আর সব মনে পড়ে ||
অতেব স্বামীর সঙ্গে বঞ্চিব বাসর |
এত শুনি দুই দাসী গেল বাসঘর ||
অতি বড় বিচক্ষণ কল্যাণীর পাটি  |
ধরিয়া ময়ূর-ঝেটা তায় দিল ঝাঁটি ||
পড়িয়া শীতলপাটি পূর্ণ পরিমাণ  |
তার উপর পাতিল রূপার খাটখান  ||
দোসারি নেহালি পাড়ে নাম গঙ্গাজল  |
শিরীষের ফুল হৈতে দ্বিগুণ নির্ম্মল  ||
আসে পাশে বালিশ মেখলা তায় দোলে |
তরণি উজ্জ্বল যেন বিষ্ণুপদতলে ||
উপর মশারি ঢালে লোহিত অম্বর |
কত শত নিতম্বিনী ঢুলায় চামর  ||
অতি শুভ্র শয্যা হৈল যে দুগ্ধফেন  |
রানী সঙ্গে শয়ন করিব কর্ণসেন ||
শীতল চন্দন চূয়া রাখে বাটি বাটি |
পানগুয়া পরিপূর্ণ নানা পরিপাটি ||
শিয়রে রাখিল চাঁপা নাগেশ্বর মালা |
রসদীপক জ্বালিল দিবস হৈতে আলা ||
মল্লিকা রঙ্গন কেয়া রাখে নানা ফুল  |
শয্যার গৌরবে অলি সহজে ব্যাকুল ||
বাসঘর নির্ম্মাণ করিল দুই চেড়ি |
শয্যার উপরে আগে যায় গড়াগড়ি ||
শয্যা দেখি মানিকী ধরিতে নারে মন  |
তার পাকে গড়াগড়ি দিল দুইজন  ||
রাখিল শীতল জল পরিপূর্ণ ঝারি |
বুড়া রাজার কাছে গিয়া বলিছে কিঙ্করী ||
কানে কানে বাক্য বলে ডাগর ডাগর  |
শয়ন করিতে রাজা যাও বাসঘর  ||
দুই তিন ডাক দিলে এক ডাক শুনে |
দু-হাতে দু-দাসী ধরিল কর্ণসেনে  ||




.                                             
লাউসেন-জন্ম পালার পরের পৃষ্ঠায় . . .  
.                                                                 
এই পাতার উপরে . . .     


মিলনসাগর
১    বন্দনা  পালা     
.          
গনেশ বন্দনা    
.          
ধর্ম্ম বন্দনা    
.          
ঠাকুরাণী বন্দনা     
.          
চৈতন্য বন্দনা    
.          
সরস্বতী বন্দনা     
.          
বিপ্র বন্দনা      
.          
দিগ্ বন্দনা    
২   
আত্মকাহিনী    
৩   
স্থাপনা পালা    
৪    
আদ্য ঢেকু পালা    
.           
গজেন্দ্র মোক্ষণ    
৫    
রঞ্জার বিবাহপালা     
৬   
লুইচন্দ্র পালা     
৭   
শালেভর পালা    
৮   
লাউসেনের জন্মপালা      
.            
পরিশিষ্ট, জন্মপালা      
৯   
লাউসেন চুরিপালা    
১০
আখড়া পালা     
১১
ফলানির্মাণ পালা     
১২
মল্লবধ পালা      
১৩
বাঘজন্মপালা     
১৪
বাঘবধ পালা      
১৫
জামতি পালা      
১৬
গোলাহাটপালা      
১৭
হস্তিবধপালা      
১৮
কাঙুরযাত্রাপালা      
১৯
কলিঙ্গাবিভাপালা     
২০
লৌহগন্ডারপালা       
২১
কানড়াবিভাপালা      
২২
অনুমৃতাপালা     
২৩
ইছাইবধপালা     
২৪
অঘোরবাদলপালা     
২৫
জাগরণপালা     
২৬
স্বর্গারোহণপালা     
রূপরামের ধর্ম্মমঙ্গল
||   লাউসেন-জন্ম পালা ||
পৃষ্ঠা                     
লাউসেন-জন্ম পালার আগের পৃষ্ঠায় . . .