কবি কামিনী দাসী - র দ্বিতীয় নাম নারায়ণী দাসী। এটি সম্ভবত তাঁর আসল নাম এবং কামিনী দাসী
তাঁর ছদ্মনাম হতে পারে। এমনও হতে পারে যে এর একটি তাঁর ভাল নাম ও অন্যটি তাঁর ডাকনাম। ১২৯৪
বঙ্গাব্দে (১৮৮৭ খৃষ্টাব্দ) কবির “মঞ্জু-গাথা” কাব্যগ্রন্থটি যশোহর থেকে প্রকাশিত করা হয়। এ ছাড়া তাঁর আর
কোনো কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছিল কি না আমাদের জানা নেই।  বইটির প্রথম পাতায় অবশ্য কামিনী দাসী
নামটিই দেওয়া রয়েছে।

তিনি  তখনকার  যশোহর জেলার "জোলকুল" গ্রামের জনৈক শ্রী যোগেন্দ্র নারায়ণ ঘোষের স্ত্রী ছিলেন।
জোলকুল বর্তমানে হুগলী জেলার অন্তর্গত ধনিয়াখালি এলাকার একটি গ্রাম। এটি সেই গ্রামটিই কি না তা
আমাদের জানা নেই। এই কাব্যগ্রন্থেরই একটি কবিতার ভূমিকা থেকে জানা যাচ্ছে যে যশোহরের রাজা
হেমদাকন্ঠ রায় বাহাদুরের পুত্র ছিলেন কবির ভাগনে | সেদিক দিয়ে দেখলে কবির ননদ ছিলেন রাজা
হেমদাকন্ঠ রায় বাহাদুরের স্ত্রী। সেই সূত্রে যোগেন্দ্র নারায়ণ ঘোষ, যশোহরের রাজা হেমদাকন্ঠ রায়
বাহাদুরের শ্যালক হন।

কবির জন্ম এবং মৃত্যু দিবস সম্বন্ধেও আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই। আমরা ধরে নিচ্ছি যে বইটি
প্রকাশের সময় যদি তাঁর ৪০ বছর বয়স হয়েও থাকে তাহলে তাঁর জন্ম সাল দাঁড়ায় ১৮৪৭। নতুন কোন
তথ্য পেলে আমরা তা শুধরে নেব। এই কবি সম্বন্ধে আরও তথ্য এবং একটি ছবি যদি কেউ আমাদের
পাঠান তাহলে আমরা এই পাতায় প্রেরকের নাম ও যোগাযোগের ঠিকানা প্রকাশ করবো, কৃতজ্ঞতাস্বরূপ।

“মঞ্জু-গাথা” কাব্যগ্রন্থের কবিতাগুলি, বই আকারে প্রকাশের, প্রায় ৭ বছর আগে লেখা। নারীসুলভ লজ্জা-
দ্বিধায় কামিনী দেবী তা কাউকে না দেখিয়ে নিজের কাছেই ফেলে রেখেছিলেন। পরে সাহস করে এবং
সংশয় কাটিয়ে উঠে কবিতাগুলি তাঁর স্বামীকে দেখান। যোগেন্দ্র নারায়ণ এর মূল্য বুঝতে পেরে প্রকাশনার
ব্যবস্থা করেন।  কাব্যগ্রন্থটিকে  তাঁরা  যশোহরের তদানীন্তন  রাজা জ্ঞানদাকণ্ঠ রায়বাহাদুর  কে  উত্সর্গ
করেন।

কবি কামিনী দাসীর কবিতার বিষয় মূলত গ্রাম বাংলার প্রকৃতির রূপ থেকে নেওয়া। এ ছাড়া কবির
জীবনের নানা ঘাত-প্রতিঘাতেও তিনি কবিতা লিখেছিলেন যেমন... “মঞ্জুগাঁথা”-র একটি কবিতা “স্বর্গীয় কন্যা
বিভাবতী”-র ভূমিকা থেকে আমরা জানতে পারি যে কবির একমাত্র কন্যা বিভাবতী (৭ই অগ্রহায়ণ  ১২৮৩ ~
৩০শে চৈত্র ১২৮৭), মাত্র চার বছর চার মাস বাইশ দিন বয়সে, কাল-কীটের (সাপ অথবা কোনো বিষাক্ত
পোকামাকড়) কামড়ে মারা যান | আরেকটি কবিতা “স্বর্গীয়-শিশু” রচনা করেন তাঁর ভাগনের অকাল-প্রয়াণে।

কবি অনুবাদ সাহিত্যেও তাঁর অবদান রেখে গিয়েছেন। কামিনী দেবী সংস্কৃত থেকে “ভ্রমরাষ্টক” কাব্য
বাংলায় অনুবাদ করেন, যা এই গ্রন্থেরই শেষে সংযোজন করা হয়।

এই কবি কে নিয়ে তাঁর জীবদ্দশায় বাংলার কলকাতা-কেন্দ্রিক সাহিত্য-জগতে তেমন কোনো আলোড়ণের
সৃষ্টি হয়নি। তাই হয়তো তাঁর কবিতা বাংলায় প্রায় অপরিচিত। তাই আমরা, মিলনসাগরে কবির মঞ্জুগাথা
গ্রন্থের সবকটি (
৩১) কবিতাই তুলে দিলাম, যাতে দেরীতে হলেও, বাংলা কবিতার জগতে এই কবির যথাযত
মূল্যায়ন করা হয় এবং তাঁর যথাযত স্থান নির্দিষ্ট করা হয়।

আমরা
মিলনসাগরে তাঁর কবিতা তুলতে পেরে আনন্দিত |

কবি কামিনী দাসীর মূল পাতায় যেতে এখানে ক্লিক্ করুন ---
 http://www.milansagar.com/kobi/kamini_dasi/kobi-kaminidasi.html       

এই সাইটে প্রকাশিত - ১লা সেপ্টেম্বর ২০১১  

আমাদের ই-মেল -
srimilansengupta@yahoo.co.in     

...