কবি দিলীপ সামন্তর সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামের কবিতা
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।   www.milansagar.com
১।  উপহার
২।  রাষ্ট্র ও ক্যাডার          
৩।  
ভাবুন      
৪।  
জন্ম           
৫।  
মেজাজ        
৬।  
উত্তরাধিকার                           
৭।  
আপনি                           
৮।  
অঙ্গীকার                    
*
উপহার
দিলীপ সামন্ত

[ "যে মানুষটা ফুল ভালবাসে তিনি কি কষ্টটা পাচ্ছেন --- ভাবুন" ২১.০৪.০৭ সায়েন্স সিটির
অডিটোরিয়াম  ]

মানুষ থেকে নকখাদকে রূপান্তরিত হ'লে
রক্ততৃষা বাড়ে ভক্ত ও ভৃত্যের

রক্ত ঝরছে আজ
সারা বাংলার গা গড়িয়ে
তবু শিষ্ট সুশীল সমাজ
কি যেন সব বিসংবাদী পাওনা গণ্ডা বুঝে নিতে
প্রাতরাশ সারে রক্তের নোনা উপকরণে
গদি আঁটা ভেলভেট চেয়ারে তখন
.                           খুশি হয় কত না আধবুড়ো খ্যাঁকশেয়াল
তাদের শরীরের খুনোখুনি দুর্গন্ধে ভুরভুর করে
.                            ক্যাবলা বাতাস
রক্তে ভেজা বাংলার সোঁদা মাটিতে ছ্যাবলা হয় আরো
.                            আগামীদিনের বলির পাঁঠা

তবু পা চাটা বিদ্বত্জন গেয়ে ওঠে গান
.                            আহা কী আনন্দ
.                            আহা কী আনন্দ আকাশে বাতাসে
প্রতিহিংসার আঙুলে খোঁজে শ্রমণী শ্রয়ণ
অমনি আরো উত্তেজিত হয় নররাক্ষস
চড়ে নাগরদোলায়
চৈতি গানের পাষণ্ড সন্ন্যাসী
শিংওয়ালা এক বীভত্স গণ্ডার
বিলকুল গাধার মতই হাসে
আর বায়না ধরে এঁচড়ে পাকা শিশুর মতো
চাই কাটা মুণ্ডু ধড়
কাটা কাটা হাত পা কিংবা পিঙ্গল যোনি
নাবালিকা গৃহবধু
কিংবা ঠাকুরমার
দিকে দিকে ভক্ত বা ভৃত্যেরা যখন
চুড়ান্ত সতর্ক সশস্ত্র
শুধু দেখে বুঝে নেয় মোতে কিনা

যে মানুষটা সত্যি সত্যি ফুল ভালবাসেন
তার জন্য সাজানো হয় এই সব সামান্য উপহার

.                          **************                                                      
উপরে
.                                                        অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                                  সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত       

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
[ একটি অনুরোধ - এই সাইট থেকে আপনার ব্ লগ্ বা সাইটে, আমাদের কোন লেখা, কবিতা
বা তার অংশবিশেষ নিলে, আমাদের মূল পাতা
http://www.milansagar.com/index.html
দয়া করে একটি ফিরতি লিঙ্ক দেবেন আপনার ব্ লগ্  বা সাইট থেকে, ধন্যবাদ ! ]
বিভিন্ন পত্র পত্রিকা থেকে কবির কয়েকটি কবিতা এখানে
আমদের সংগ্রহে তুলে রেখেছি |
*
রাষ্ট্র ও ক্যাডার     
দিলীপ সামন্ত  

পুলিশের পোষাক পরা
সমাজতান্ত্রিক বেত্রাঘাতে কাঁদছিল তাঁরা!
তাঁরা মানে নিরস্ত্র ও নিরপরাধ কোন কৃষক
কৃষকটা অজ্ঞাত কুলশীল ; মানহীন
শাশ্বত ভারতের ফ্রেমে আঁটা ছবি
জননী ইটভাটায় লুকিয়ে থাকা লোকটা
নব্য আধুনিক হার্মাদ নাড়ু মাইতি
এরকম পিটুনী খেতে হয় বারবার এদেশের কৃষকদের
শুধু এবারেরটা অন্য রকম
রাষ্ট্রীয় নেকড়ের ঐতিহ্যশালী প্রতিনিধি যারা
পরিচয় সমাজতান্ত্রিক বাঘ সুন্দরবনের

সমাজতান্ত্রিক কবি শকুনেরা আজকাল বড়লোক
নিদ্রাচ্ছন্ন থাকেন মগডালে চুপটি
কিন্তু সুদূরপ্রসারী নজর ভাগাড়ে

ভাগাড় আজ সারা ভারতবর্ষ জুড়ে
ভাগাড় নন্দীগ্রাম সিঙ্গুর কিম্বা কলিঙ্গ নগরে
কখনো কখনো সেই সব ভাগাড়
ভরে যায় অপর্যাপ্ত লাশে

তাই প্রস্তুত থাকে ট্রেকার লরি
সামনেই মোহনা বঙ্গপোসাগরের
পেট ফালি করে দিতে হয় ফেলবার আগে
আর চেরা লাশগুলিকে শুনিয়ে বলতেই হয়
নে বাছাধন যা হাঙরের পেটে
ডাঙার হাঙরের অরুচি তোরা
আর ভিয়েতনামী চেতনায় সমৃদ্ধ বলে এদেশের নারীরাও
যেমন খুশি ধর্ষণ যত্রতত্র যাকে যাকে
ঠিক মার্কিন ফৌজীর মতো
অন্যকিছু বললেই প্রতিক্রিয়াশীল
উন্নয়ন বিরোধী
চলতে থাকে তাই প্রগতিশীল নির্যাতন

তবু কিন্তু প্রমাণ চাইবেন বিচারক
গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের

.       **************                                                  
উপরে
.                                অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                          সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত       

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায়
প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
*
ভাবুন               
দিলীপ সামন্ত

পাড়া জুড়ে দেশ জুড়ে
ছিঃ ছিক্কার আর প্রবল ধিক্কার
তাই প্রবাল রঞ্জিত মুখে উঁকি মারে
কয়েকটা দিনের বালী বিষাদ
আহা কষ্টটা কীরকম ভাবুন

ভাবতে ভাবতে কষ্টের বিষাদে জাগে উন্নয়নের খরিস
ত্রিশ বছরের কলঙ্কিত চাঁদ
ঝলমলে ধার করা আলোয়
ভাসাচ্ছে ভূবন
চুয়াত্তর হাজার কোটি বিনিয়োগ ঝরে পড়ে আকাশ থেকে ঝম্ ঝম্
তাই তোমাদের দুঃখ যন্ত্রণা স্মৃতি কাতর নয় ততো
শুধু সমব্যাথী হও আমার বিষাদে
কেননা বিষ ছেয়ে রয়েছে আপাদমস্চক

তবুও যে কেন ভুলে যাই মরিচঝাঁপির পাশবিক মত্ততা
সূচপুর নানুরের বোধহীন নীরবতা
নর খাদকের সুশ্রী দাঁড়ি গোঁফ
মান্যতা পায় নি কেন গণধর্ষণের দোষ

কিন্তু ঠিক মনে থাকে
কবিতা উত্সব গান মেলা নাট্য মেলা ইত্যাদি
লিটল ম্যাগাজিনের পাতায় বিশুদ্ধ কবিতার পাশবিক উচ্চারণ
ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে অন্ধকার জড়িত প্রেক্ষগৃহের পাপচক্র

শুধু কয়েকজন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপকের
অসাংস্কৃতিক হিসেবপত্র ভারী বেয়াড়া
ব্যাটাদের বোঝানো গেল না কিছুতেই
নামমাত্র বিনিয়োগে ত্রশ বছরের ব্যাবসায়িক সাফল্য
প্রমাণিত হয় প্রত্যেকটা অতিলৌকিক নির্বাচনের ফলাফলে

পাশ থেকে উত্তর দেয় একজন মনে রাখবেন
এরকম অল্প পুঁজির সামন্ততান্ত্রিক এবং
সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ব্যাবসায় ওদের অর্থশাস্ত্র ডাহা ফেল

আহা লোকটা কীরকম কষ্টে আছে ভাবুন

.                      **************                                                        
উপরে
.                                                      অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                                সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
*
জন্ম               
দিলীপ সামন্ত

["সরকার চালাতে পুলিশ আমাদের দরকার নেই, আমাদের দরকার আপনাদের |
মুখ্যমন্ত্রী হবার জন্য জন্মাই নি..." বুদ্ধদেব ]

ওরা কিন্তু জন্মায় শুধু ধর্ষিতা হতে
ওরা কিন্তু জন্মায় পুলিশ আর ক্যাডারদের গুলি খেতে

এই সব কর্মকুশলতার নিরিখে মুখ্যমন্ত্রী আপনি
যার মহড়া দিয়েছিলেন আপনি গত দশকের সাতটি সালে
আপনার ঘরে মা বোন নেই | বেজন্মা তাই |
নেই কন্যা কিম্বা জায়া
যদিও বা থাকে বাস্তবতঃ ছায়া মাত্র তারা
নাটা মল্লিকের ফাঁসুড়ে চেতনায় আপনারই অনুসারী
তাই আত্ম অনুশোচনায় পোড়েনি আপনাদের আপেল গা |

অভিমানহত কান্না জড়ানো গলায়
ক্রুদ্ধ অভিভাবক আপনার বলেনি
যা তোর মুখ দেখব না আর |
গৃহত্যাগ করেনি এখনো...
"তবে কেমিক্যাল হাব কিন্তু হবেই, কেউ আটকাতে পারবে না..." মুখ্যমন্ত্রী
আপনারা যা যা চেয়েছেন
সব কিছুই হয়েছে তেমন তেমন
হয়েছে ব্যাঙাইজোত বরানগর কাশীপুর চন্দনপিঁড়ি
হয়েছে সূচপুর নানুর
হয়েছে মরিচঝাঁপি বিরাটি বানতলা
হয়েছে হলদিয়া শিল্প তালুক
রাজারহাট উপনগরী আরো কত কী!
বেয়াড়া শুধু নন্দীগ্রামের মানুষ |

আপনাদের ইচ্ছা অনুযায়ী তাই লাউফ হেল হবেই তাদের

তাই ধর্ষণ খুন ইত্যাদি
সাংস্কৃতিক প্রলয়ের সাংঘাতিক কর্মকুশলতার
অসামান্য প্রমাণে মুখ্যমন্ত্রী আপনি
যে প্রমাণে খুশি প্রধানমন্ত্রী বোফর্সধাত্রী সোনিয়া আর
সাত সমুদ্র তেরো নদী পারের অধিপতি কোনো |

.                  **************                                                       
উপরে
.                                                 অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                           সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
*
*
মেজাজ               
দিলীপ সামন্ত

লাল শপথের
অগ্নিবর্ণ উচ্চারণ নিয়ে
দর্পিত মাথা তুলে দাঁড়ালে
মধ্যাহ্ন দিনের কৃষ্ণচূড়া

গোঁসা তো হবেই তাদের
কেননা তিনি তো এখন বড়লোক
একসময় হয়তো গরীব ছিলেন
একসময় তার রক্ত শুষে খেত
কোন জোতদার বা জমিদারের জোঁক

দিন বদলের অঙ্গীকারে তিনি নব্য জমিদার এখন
যদিও খাতায় কলমে সর্বহারা
তাই ভূমিহীন মধ্যস্বত্বভোগী দালালের
জমিদারী মেজাজ ঝঁকিয়ে ওঠে মাথায়

জমিদারী চরিত্র কী ভুল করে কখনো.... |

.       **************                                                      
উপরে
.                                     অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত
হয়েছিল |

মিলনসাগর
*
উত্তরাধিকার               
দিলীপ সামন্ত

বারো বছরের গঙ্গা
নারীত্বের পূর্ণ বিকাশ ঘটেনি যার
সে এবং তার দিদি আর মা
ধর্ষিতা হলো একসঙ্গে একই দিনে

মাসাধিককাল লজ্জায় আড়ষ্ট ছিল তারা
বিশে,তঃ গঙ্গা
বোবা জিব বার করে বমি করত যখন তখন
দিদি লুকিয়ে থাকত দিন দুপুরেও
আর অদৃষ্টের দোহাই দিয়ে নীরবে
চোখের জল ফেলতেন মা

এই লজ্জা ভেদ ক'রে হঠাৎ একদিন গঙ্গা জানালো
নন্দীগ্রামের নন্দিনী আমি
ধর্ষিতা আমি
আমি গর্বিতা ভিয়েতনামের উত্তরাধিকার
বলে দিও তাদের
সহস্রবার ধর্ষণের জন্য প্রস্তুত আমি
কেননা পায়ের নীচে আমার মাটি আমার মাতৃভূমি
তাকে লাঞ্ছিত হতে দিতে পারি না ................

.            **************                                                             
উপরে
.                                                অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                           সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
আপনি               
দিলীপ সামন্ত

[ "উদ্বাস্তু পরিবারের মেয়ে আমি, এখন উদ্বাস্তু পরিবারের বৌ...." তমালিকা ]

শুধু আজ যেখানে আমার সাম্রাজ্ঞীর সিংহাসন পাতা
সেই সিংহাসনের নিচে
কতজনকে উত্খাত করেছি ভুলে গেছি
কতজন হারিয়ে গেছে কোথায়
খোঁজ নিতে বয়েই গেছে আমার

তাই সিঙ্গুর নন্দীগ্রামে উদ্বাস্তু হলে কেউ
অতীতের আমাকে দেখতে বলি
চিনতে বলি বর্তমানে কে আমি

পুনর্বাসনের অজুহাতে বাম রাজনীতিটা ধাতস্থ আমাদের
উন্নয়নের ফাঁদ পেতে উচ্ছেদ বিরোধী কবিতাও লিখি
কিন্তু ওরা তো দক্ষিণপন্থী
প্রতিক্রিয়াশীল শিবিরের জমাট শ্যাওলা
তাই উদ্বাস্তু করার হক আমাদের থাকেই |

এবং তোমরা মানে আজ আমাদের বিরুদ্ধে যাঁরা
কবিতা লিখছেন গান গাইছেন, সস্তার নাটক করছেন
প্রত্যেকেই তারা প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের দালাল
জয় আপনি, বিভাস শাওলী অপর্ণা
মহাশ্বেতা মেধা প্রতুল পল্লব আপনারা
কবির সুমন আপনি | এবং আপনি ..............

.       **************                                                                     
উপরে
.                                                   অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                             সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
*
অঙ্গীকার               
দিলীপ সামন্ত

হলিউড বলিউড এমনকি টলিউডকে হার মানিয়ে
দক্ষ অভিনেতা মাথায় বিষন্ন টোকা মেরে
বলেন ভুল হয়ে গেছে বেবাক
ভুল.... ভুল.... ভুল.....  দায় আমারই |

শুধু চেতনা নির্বাক তাঁর

"দুঃসময়ে"র শিক্ষক তিনি
তিনি রাবীন্দ্রিক
বেলা অবেলার ঘাতকের হাতে
ক্রেডিবিলিটি বলতে ভুল করার অভিনয় দক্ষতা

সত্যি লোকটার সত্সাহস দেখার মতো অনুসরণ করার মতো
ইস্ তার নির্দেশের অবাধ্য হবো ধম্মে সইবে না মশাই

তাই সফেদ ধুতি পাঞ্জাবীর আস্তিনে তার
.                   লেপ্টে রয়েছে রক্তাক্ত অঙ্গীকার রাক্ষস মুদ্রায়
অঙ্গীকার টাটা, সালেমের কাছে
অঙ্গীকার মার্কিন প্রভুর কাছে
শুধু কি সব গোপন বোঝাপড়া অলিখিত থাকে
অক্রান্তদর্শী আমরা দেখতে অক্ষম

দেখছেন সাম্রাজ্যবাদের বিরোধিতায় কিরকম সরব তিনি
সরব সমাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে বাজিগরের হুঙ্কারে এতো যিনি

তাই গোর্নিকার রং তুলি
রূপান্তরিত এ কে ফর্টি সেভেন
মদের বোতল কড়া পুরুষাঙ্গ
কত কত লাঠি রড বোমা বারুদ বন্দুক
উচ্ছৃঙ্খল তন্ময়তায় আঁচড় টানছে আজ নন্দীগ্রামে
পিকাসোর স্মৃতি সত্তা শিল্পতত্ত্বের বাস্তবতায়
জাগানোর অঙ্গীকার তাঁর
নইলে অভিযুক্ত হতে হবে তাঁকে মহামতি বুশের দরবারে
ভায়া মনমোহন

.                    **************                                                        
উপরে
.                                                    অন্যান্য কবিদের সূচির পাতায় ফেরত
.                                              সিঙ্গুরের কবিতার মূল সুচির পাতায় ফেরত     

এই কবিতাটি 'কবিতা এক্ষণ' পত্রিকার জুন ২০০৭ এর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল |

মিলনসাগর
আমরা এই কবিকে আমাদের ওয়েব
সাইটের
"কবিদের সভা"-র অন্তর্ভুক্ত
করতে ইচ্ছুক | যদি কেউ আমাদের এই
কবির
১।  জন্ম-তারিখ,
২। সংক্ষিপ্ত পরিচয়,
৩। একটি ছবি
এবং
৪। তাঁর যোগাযোগের ঠিকানা
জানান, তাহলে আমরা কৃতজ্ঞতা- স্বরূপ,
প্রেরকের নাম ঐ পাতায় উল্লেখ করবো |