কবি শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতা
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।  www.milansagar.com
*
আমার মন-চুয়ানো মধু---
"লাল পাঞ্জা" নাটক, প্রথম অঙ্ক, দ্বিতীয় দৃশ্য... থেকে নেওয়া


আমার মন-চুয়ানো মধু---
ঝরবে যখন-বাতাসে ক্ষরবে যখন
.                    ---আসবে না কি বঁধু?
গন্ধে যখন ভরবে চরাচর
আসবে না কি মধু-মাতাল
.                  পাগল মধুকর?
ওগো তার তরে যে আমি
পথটি চেয়ে কাটাই দিবাযামী,
আমার বুকের বরমালা
সুখের মধু-ঢালা
পরিয়ে দেব তার গলাতে
আসবে যখন বরমালার বর---
.                    মধু-পাগল মধুকর!

.                    ******************                                        
উপরে
*
*
[ একটি অনুরোধ - এই সাইট থেকে আপনার ব্ লগ্ বা সাইটে, আমাদের কোন লেখা, তথ্য,
কবিতা বা তার অংশবিশেষ নিলে, আমাদের মূল পাতা
http://www.milansagar.com/index.html
দয়া করে একটি ফিরতি লিঙ্ক দেবেন আপনার ব্লগ বা সাইট থেকে, ধন্যবাদ ! ]
ওগো বহ্নি, জ্বলো জ্বলো   
"লাল পাঞ্জা" নাটক, দ্বিতীয় অঙ্ক, দ্বিতীয় দৃশ্য... থেকে নেওয়া                


ওগো বহ্নি, জ্বলো জ্বলো
বহে জীবন নদী খর বৈতরণী
.                 কল কল ছল ছল!
তারি তীরে সে তিমিরে
প্রাণ-বহ্নি জ্বলো জ্বলো |
হাসে মৃত্যু বিষ-কণ্ঠে খল খল
নাচে ধ্বংস---কাঁপে পৃথ্বী টলমল ;
তারি ছন্দে মহানন্দে
চিতা-ধূমে শব-গন্ধে
প্রেম-বহ্নি, জ্বলো জ্বলো |  

.        ******************                                                    
উপরে
ঝর্না ঝরার ছন্দেরে---
"লাল পাঞ্জা" নাটক, প্রথম অঙ্ক, দ্বিতীয় দৃশ্য... থেকে নেওয়া


ঝর্না ঝরার ছন্দেরে---
নেচে চল জলধারার
.               আকুল আনন্দেরে |
নেচে চল্ পিছল স্রোতে
ছড়ানো উপল পথে
মেখে নে রবির হাসি
.                বনফুলের গন্ধ রে!
মনে যে লাগল পরশ
ফাগুনের ফেনিল হরষ---
চামেলি পড়ল খসে
.                শিথিল বেণী বন্ধে রে!

.                    ******************                                        
উপরে
*
ওরে মাতাল দুয়ার খুলে দিয়ে       
"লাল পাঞ্জা" নাটক, তৃতীয় অঙ্ক, দ্বিতীয় দৃশ্য... থেকে নেওয়া                


ওরে মাতাল দুয়ার খুলে দিয়ে
.      পথেই যদি করিস মাতামাতি
থলি ঝুলি উজাড় করে দিয়ে
.      যা আছে তোর ফুরাস রাতারাতি |
অশ্লেষাতে যাত্রা করে শুরু
.      পাঁজি পুঁথি করিস পরিহাস
অকারণে অকাজ নিয়ে ঘাড়ে
.      অসময়ে অপথ দিয়ে যাস---
হালের দড়ি আপন হাতে কেটে
.      পালের পরে লাগাস ঝড়ো হাওয়া
আমিও ভাই তোদের ব্রত লব
.      মাতাল হয়ে পাতাল পানে ধাওয়া |  

.        ******************                                                    
উপরে
*
রূপ নগরীর রাজ-কুমারীর দেশে   
"কালিদাস" চিত্রনাট্য ... থেকে নেওয়া                


রূপ নগরীর রাজ-কুমারীর দেশে
.           চল্ রে ডিঙা মোর---চল্ রে ডিঙা ভেসে |
সোনার পালে বাতাস লেগেছে
পূর্ণিমাতে জোয়ার জেগেছে---
.           ভিড়বে তরী রূপের ঘাটে
.                   রূপনগরে এসে |
চল্ রে ডিঙা মোর---চল্ রে ডিঙা ভেসে |  

.        ******************                                                    
উপরে
*
আমার মনে যে ফুল ফুটেছিল   
"রাজদ্রোহী" উপন্যাস ... থেকে নেওয়া                


আমার মনে যে ফুল ফুটেছিল
.        আকাশের সূর্য তারে শুকিয়ে দিল রে |
ধূলাতে পড়ল ঝরে সে
বাতাসের নিদয় পরশে
বুকে মোর কাঁটার বেদনা
.        বুক দুখিয়ে দিল রে |
আমার মনে চাঁদ---
আমার মনে চাঁদ যে উঠেছিল
ও তারে প্রলয় মেঘে লুকিয়ে দিল রে |
মরমের মৌন অতলে
নিরাশার ঢেউ যে উথলে---
জীবনের পাওনা-দেনা মোর
.        কে চুকিয়ে দিল রে |  

.        ******************                                                    
উপরে
*
জনম অবধি কার তোমা'পরে অধিকার
"দাদার কীর্ত্তি" উপন্যাস ... থেকে নেওয়া


জনম অবধি কার               তোমা'পরে অধিকার
"প্রিয়" বলে ডাকিবার দিয়েছেন বিধি,
জানি না গো আমি তাহা        তবু ভাবি যদি আহা
পাইতাম তোমা হেন অলকার নিধি |

তোমার বিহনে শুধু               প্রাণ মোর করে ধু ধু
যেন গো সিকতাময় নিদারুণ মরু,
সুনিবিড় ছায়াদানে                জুড়াও কাতর প্রাণে
তুমি এ সাহারা মাঝে সুশীতল তরু |

প্রাণের গোপন কথা              প্রকাশিছে ব্যাকুলতা
বাহির হইতে মায়া মোহ পরিহরি,
লেখনী সে বাধ-বাধ              কথা কহে আধ-আধ
দুয়ারে দাঁড়ায়ে আছে সরম প্রহরী |

ভাঙ্গি সরমের বাঁধ                 মনের আকুল সাধ
গিরিজা তটিনী সম ধায় তব পানে,
তুমি মম হে সাগর,                তুমি মম হে নাগর
হতাশা দিও না ঢেলে প্রোষিত পরাণে |

করিবারে দাসীপনা              ভেবেছিনু বাসিব না
বিপুল এ ধরা মাঝে কাহারেও ভাল,
আঁধারে একটি দীপ             আকাশে চাঁদের টীপ
সম তুমি এ হৃদয় করিয়াছ আলো |

তাই আজ যেচে এসে             পড়েছি চরণ দেশে
জেনো মোরে এ জগতে বড় অভাগিনী,
নয়নে কিসের জ্বালা              হদয়ে বিষের জ্বালা
কানে বাজে সকরুণ হতাশ রাগিনী |

প্রভাত আলোক মিশে          বায়ু ধায় দিশে দিশে
কত কুসুমিকা তারে দিয়ে ফেলে প্রাণ,
পবন তো জানে না তা        ফুল বোঝে নিজ ব্যথা
জানে সেই বুকে যার বিঁধে আছে বাণ!

তাই এই বাচালতা        চপল চটুল কথা
আনমনে কতশত বাতুল প্রলাপ,
এই বলে ক্ষমা কর           একটি কঠিন শর
ত্যজিয়াছে মোরে চাহি মদনের চাপ |  


.                                              ******************                                       
উপরে
*
চন্দ্রহাস
ছড়া


শিল্পীর শিরে পিলপিল করে
আইডিয়া
লেখেন ফখন পুস্তক তিনি
তাই দিয়া
উইপোকা কয় চল এইবার
খাই গিয়া |  


.       ******************                                                             
উপরে