কবি মনোরঞ্জন সাঁতরার কবিতা
*
গ্রাস
কবি মনোরঞ্জন সাঁতরা

বহু প্রতীক্ষার অবসান আজ
.        দু’ঠো অন্নের সংস্থান।

যদিও রাজনীতি আমাদের শরীরময়
.                ঠিক যেন গুটি বসন্ত
.        ডুকরে ডুকরে কাঁদি আমরা
.                ভয় হয় কারা যেন আড়ি পাতে
.                        ঘরে ঘরে।
আমাদের চারিপাশে অনেক সমাজসেবী
আমাদের দুঃখ দুর্দশা নিয়েই
.        যাদের বানিজ্য বর্তমান।

.          *****************             

.                                                                                        
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
কাব্যের গলদঘর্ম
কবি মনোরঞ্জন সাঁতরা

আব্দুল চাচা কবিতা লেখে
পণ্ডিতমানী নাক সিঁটকায়
বলে, ও কবিতার কি বোঝে
সামান্য ম্যট্রিক তা নিয়ে কাব্য
মোল্লার দৌড় ম
জিদ পর্যন্ত
আমরা হলাম কাব্যের সাধক পৃষ্ঠপোষক
আমরা করি চুলচেরা বিশ্লেষন
মাদের কলমে একটাও এলনা
আজ পর্যন্ত। আর . . . .

আব্দুল চাচা থামে না নাঙ্গলের বোঁটা ধরে
ধরণী বিদীর্ণ করে তুলে আনে
সীতার মতো এক একটি করে কবিতা
বর্ষার জলে ভাসিয়ে দেয় সোনার তরী নয়
কাব্যের গলদঘর্ম তেলের মত
ভাসতে ভাসতে সারা মাঠ ঘোরে।

.          *****************             

.                                                                                        
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
সৌন্দর্যের তামাশা
কবি মনোরঞ্জন সাঁতরা

ভাস্বতী ঐ চোখ দুটো
যেন শীতের আকাশে দুই শীতাংশু ;
শ্রান্তিহীন মুসাফির আমি
সামনে আমার সৃজিত শোভা
শালীন হৃদয় কেঁপে উঠে বার বার
পুঞ্জিত আশায় ভর করে নির্বোধ ভালবাসা
নিশ্চুপ কেন ভাবোদ্দীপিকা ?
বুঝিনা আমি এই সৌন্দর্যের তামাশা।

.          *****************             

.                                                                                        
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
অধিবৃত্ত
কবি মনোরঞ্জন সাঁতরা

পঞ্চ ইন্দ্রিয়ে মগ্ন আমি
ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় কি জানি না
শয়তানকে ভগবান ভাবি
মানুষকে করি অসম্মান।
বন্ধুত্বের হাত বাড়ালে---
ছোবল মারে সর্প
ভালোবাসায় ভাসতে গিয়ে হারায়
কুল কিনারা। সুখের অন্বেষণে
গিয়ে টের পাই
কুমীর আসে ঘরে।
সকল দরজা বন্ধ করে
দাঁড়িয়েছো তুমি ওপারে।

.      *****************             

.                                                                                        
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
প্যারাশুট
কবি মনোরঞ্জন সাঁতরা

অন্যায় যুদ্ধের সেনাপতি আমি
শান্তির রাজ্যে হানা দিই
মূল্য-ন্যায়-নীতির বিসর্জ্জন
দেখি রামরহিমের হানাহানি।

ভক্ত আজ দেবতা বিমুখ
পূজারী সে শুধু শয়তানের
ছাত্রের হাতে অস্ত্র দেখি
পালায় বহ্মা প্রাণ ভয়ে।

দেশসেবার ব্রতে যাঁরা
নিয়েছিল শপথ মঞ্চে মঞ্চে
আজ দেখি বিলীন তাঁরা
কোথায় যেন পড়েছে বাঁধা।

পেয়েছি খুঁজে মানবজমিন
এবার আমার অবতরণ
ন্যায়যুদ্ধের সেনাপতি তুমি
তোমার কাছে আত্ম সমর্পণ।

.      *****************             

.                                                                                        
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর