কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতা
*
কথা
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

চুপচাপ চারধার
করিডোর চৌকাঠ মাঠ,
বাতাসের কানে কানে
‘চুপকথা’ কথা বলে
ভাষা দিয়ে কাজ নেই---থাক্।

কথা হাসে কথা খেলে
আঙুলের ফাঁকে,
কথা দোলে সুরে তালে
অঙ্গের বাঁকে,
শিহরণে বৃষ্টিতে সাড়া দেয় নগী
ভাষা দিয়ে কাজ নেই---থাক্।

চোখে চোখে কথা আসে
ট্রাম থেকে ট্রেনে,
কল্ কল্ কথা ভাসে
কলেজে ক্যান্টিনে,
ফ্যান-ভাতে ফুটপাথে---
কথা ফোটে মাঝরাতে
ভাষা দিয়ে কাজ নেই---থাক্।

.         *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
শুধু এক স্বপ্নের জন্য
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শুধু এক স্বপ্নের জন্য---
শুধু এক স্বপ্নকে হাতে মুঠোয় আনতে
আমি সেই কাকভোরে পথে বেরিয়েছি,
প্রদর্শনী, ক্যাম্প, ফায়ার ব্রিগেডের পাশ দিয়ে
এখন মিশেছি নগরে ভিড়ের উজানে,
চারিদিকে কত অদরকারি দখলদারি
অভিজ্ঞতা আমায় ক্ষত-বিক্ষত করে
তবু সিঁড়ি ভেঙে উঠি রুগ্ন হৃদয় নিয়ে
প্রকাশ্য থেকে প্রকাশ্যতর হয় কুজ্ঝটিকা---
কার্পেটে ঢেকে রাখি রক্তের মোজেইক,
কুয়াশা ছাউনি থেকে বুকে গন্ধরাজ আগলে
হেঁটে চলি আমি---।
মেঘের স্রোতে মগ্ন কাশফুল
তবু শরতের শুভ্রতা ছুঁয়ে
গেয়ে যাই সৌম্য স্বপ্নের ইমন-কল্যাণ।

.      
     *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
তোমার চোখের ওপর
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

তোমার চোখের ওপর চোখ রাখি যখন
যত কিছু চপলতা, দুষ্টুমি সব স্থির হয়ে যায়,
নিদ্রিত আকাশ চোখ মেলে ধীরে ধীরে
গাছের পাতায় জাগে মিঠেল কাঁপন,
শির শির করে ওঠে শিরা-উপশিরা থেকে মগডাল---
শরীরের অস্থি মজ্জা গ্রন্থিতে লাগে শিহরণ,
নদীর মতোই ছুটে যেতে চায় লগ্নভূমি ছেড়ে---
একমুখী টানে সব স্থির হয়ে যায়।

তোমার চোখের ওপর চোখ রাখি যখন
গতরাতের যতকিছু ক্লান্তি ধুয়ে মুছে দাও,
মুখের ওপর এলোমেলো রুখো চুল সরিয়ে
এঁকে দাও চুম্বন---গালে ও চিবুকে,
শ্রান্তি ও জড়তা যত,
ফেলে আসা ব্যর্থতা বিফলতা ছেড়ে
শুরু হয় নতুন নির্মাণ।

.           *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
এষণা
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পাহাড় আর বৃষ্টির আজ আলাপ---
.        তাই নাইতে যাইনি

আজ আমার মন পাগল
.        তাই মালা গাঁথিনি

ফুটেছে আমার প্রথম গোলাপ
.        তাই প্রদীপ জ্বালিনি

মাঠে বেজেছে পৌষ মাদল
.        তাই চুল বাঁধিনি

আজ উঠোনে পড়েছে ছায়া
.         তাই গাইতে পারিনি

আজ তার আসার কথা
.        সারাদিন তাই মিথ্যে বলিনি।

.           *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
বোধন উত্সব
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

মহালয়ার আলোর রেণু
.        আঁধার দিল টুটি
মাখব গায়ে ফুলের রেণু
.        পাব এবার ছুটি।
ষষ্ঠির দিন দেবীর বোধন
.        কলা-বৌয়ের স্নান
সপ্তমীতে নতুন বসন
.        খুশি-ভরা প্রাণ।
অষ্টমীতে সন্ধিক্ষণে
.        ঝলমলে দীপ জ্বালি
নবমীতে ঢাকের বোলে
.        দুঃখ বিষাদ ভুলি।
পুজো এলে মাঠে ঘরে
.        বাজে শঙ্খ-ঘণ্টা
মহামায়ার কোমল করে
.        ঘুচবে বিপদ-শঙ্কা।

.       *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
এখন সময়
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

উষ্ণতা বাড়ছে একটু একটু করে
ঘুণপোকা বাড়ছে বিরুদ্ধ আবেগে
বাতাসে ধোঁয়া জমছে চুপিসাড়ে
অবরুদ্ধ অপরাহ্ন জেগে আছে একা---
পাখিরা আর আসে না এদিকে
বুকের ভিতর অবিরত এক স্রোত
বয়ে যায় নিঃশব্দে ধীরে ধীরে।
গোধূলি আকাশ যেন প্রৌঢ় প্রেমিক
মনের ভিতর দানা বাঁধে কালো মেঘ---।
বৃষ্টি হয়ে নেমে এসো আজ
শুষ্ক ঠোঁট ও চিবুক বেয়ে,
স্থবিরতা ভেঙে চেতনার তুষারে
পথ খুঁজে নেব আজ মিলিত সাধনে---
প্রাণধূপ জেগে আছে আজও---
নির্জন নিভৃতে।

.       *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
মহাপ্রকৃতি
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

তোমার রঙ নিয়ে
.        পলাশ ফোটে বনে।
তোমার মধু নিয়ে
.        গোলাপ ফোটে মনে॥
তোমার ছোঁয়া নিয়ে
.        বিপুল বৃষ্টি নামে।
তোমার স্বপ্ন নিয়ে
.        নিটোল শিসির জমে॥
তোমার আলো নিয়ে
.        আকাশ ভরে ওঠে।
তোমার হাসি নিয়ে
.        খুশির বোল যে ফোটে॥

.       *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
সবুজ সরণী
কবি পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়

যেদিকে তাকাই আজ এপার-ওপার
পূর্ণতা জুড়ে শুধু ফাঁকা---
অস্ফুট অক্ষক যত স্বেদক্লিষ্ট মুখে
অসঙ্য ক্লান্তি নিয়ে ফিরে আসে তারা।
কবিতা বধির আজ নিদারুণ শোকে
চতুর্দিকে আগাছা---আঁধার ;
পুলিশের মার খাওয়া যুবকের চোখে
নিহত স্বপ্ন আজ ঘাসের ফলকে।
নয়ডার পাথরের চাঙর সরিয়ে---
অশক্ত কোমর নিয়ে মাথা তোলে চারা,
আশাহীন ব্যর্থতার হাহাকার বুকে
আগুনের লাল রঙ ছুঁয়ে দেয় তারা।
অযাচিত এই শান্তি চাই না তো আর,
সময় এসেছে আজ এগিয়ে দেবার ;
সমস্ত পিপাসা ভুলে দগ্ধ মরু-ভরা---
সবুজের সরণীতে যাত্রা এবার।

.       *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর