কবি পিনাকেশ সরকার-এর কবিতা
*
পুরনো বারুদ   
কবি পিনাকেশ সরকার
রচনা ১৭.০৭.৭৯

পুরনো বারুদ সব ভিজে গেছে অস্পষ্ট শিশিরে
গোপন আকাশ থেকে খসে পড়ে শুক্লাচাঁদ
ঘাসের আড়ালে পাতা তীব্র ক্ষুরে শিউরে ওঠে
সবুজ শামুক আকস্মিক ব্যথাবিহ্বল
ভিতরে ক্ষরণ তার নিত্যদিন, উপরে খোলস
.                                        দায়ভার
কোথাও গন্ধক নেই, নেই বিচ্ছুরণ স্বপ্নবিকিরণ
গুহার গম্ভীরে মৌন জল বহুকাল জমা
শব্দহীন প্রাণহীন আলোগন্ধ স্পর্শহীন
পুরনো বারুদ সব ভিজে গেছে বিবর্ণ আঁধারে------

.                ****************   
.                                                                              
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
পুরী / ১৯৮১
কবি পিনাকেশ সরকার


একদিন হলুদ বালিয়াড়ি ভেদ করে ঝলসে উঠেছিল
.                                 আমাদের আগ্নেয় বয়স
সমবেত গানে গানে খান খান ভেঙে গিয়েছিল শক্ত দুরারোহ
.                                                           বাঁধ
মাঘী সপ্তমীর নীল ছায়াজ্যোত্স্না ভিজেছিল নোনাগঞ্জ
ছিঁড়েছিল পিছুটান বয়ঃগ্রন্থি অন্তত কিছুক্ষণ উন্মাদ উদ্দাম
.                                                সমুদ্র মন্থনে
ঝাউবনে যৌথ অভিযানে মাতাল স্বপ্নের ঘোরে
হেরে গিয়েছিল স্থির বিবেচনা অঙ্গসন্ধি কয়েক ঘন্টা দিনরাত
একদিন জেগেছিল ফেনিলতা চোখে মুখে আশরীর
.                        আত্মভোলা কথোপকথনে
বশ্যতাবিহীন জলে নীল যুদ্ধক্ষেত্রে সুদীর্ঘ সকালে
হানা দিয়েছিল চাপা সোনালি চাঁপার দিন
.                      খরশান ইযুথ হস্টেলে ||

.                ****************   
.                                                                              
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
পবিত্র সঙ্কট    
কবি পিনাকেশ সরকার
রচনা ০৮.০৯.৯৮

ঝনক  ঝনক  ঝনক
ঝাঁকড়া   মাথার
আড়াল   বেয়ে
নড়ছে  নাকি  টনক ?

শুকনো   গলায়  দুপুর
আটকে  ছিল
জল  কে  দিল ?
বাজল  কনক নূপুর

উথাল  পাথাল   উথাল
দুলছে  মগজ
গুপ্ত  কবচ
শূন্যে  ছুঁড়ে  মাতাল

এগিয়ে  চলে  পথে
শব্দহারা
ছন্দছাড়া
পবিত্র সঙ্কটে |

.                ****************   
.                                                                              
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
সারাদিন অভিমন্যু
কবি পিনাকেশ সরকার


ছড়ানো বিশাল মাঠে কোথা থেকে উড়ে আসে রক্তভেজা স্বপ্নবীজ
.                                                      এই গোধুলিতে
.                                                    তুমি আজ একা
.                                               সম্পূর্ণ একা----শস্ত্রহীন
গোপন ফন্দীতে সেজে ঐ ওরা সাতজন ঘিরেছে তোমার  ব্যাস
.                                                     পরিধির জাল
.                                                          অন্তর্মুখ
.                                             ঘোড়ার খুরের শব্দে
.                                                        ধূলোর গাজনে
.                                                    তুমি ততক্ষণ
.                                             ডুবেছিলে জয়স্রোতে


ব্যূহের ভিতরে তুমি সাবলীল ঢুকেছিলে মর্মভেদী রশ্মির মতো
.                                                     সব বাধা ভেঙে
.                                                    তুমি সারাদিন
.                                               পেয়েছ জয়ের স্বাদ

টান টান বেঁধেছো অমোঘ ছিলা মধ্যদুপুরে যখন কপালে জ্বর
.                                                চোখে তূর্যরোল
.                                        প্রতি টংকারে দেবদ্যুতি
অথচ এখন এই অগ্নিময় চক্রব্যূহে তুমি নির্বিকল্প একা ত্রাণহীন
.                                              অক্ষম বন্ধুর মতো
.                                                রক্তাক্ত আকাশ
.                                    তোমার মুখের দিকে চেয়ে আছে

.     অন্যপাশে ওরা সাতজন প্রস্তুত সজ্জায় দৃঢ় তীব্র সৌরশিখা
.                                                  এগিয়ে আসছে
.                                                      চোরা পায়ে
.                                -----অসিতে রক্তের দাগ রুদ্ধ বহির্মুখ-----

.                             ****************   
.                                                                              
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
ওকে তোরা
পিনাকেশ সরকার    
দীপেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তরুণ সান্যাল, সম্পাদিত “পরিচয়” পত্রিকার ডিসেম্বর ১৯৬৯
সংখ্যায় প্রকাশিত কবিতা।


ওকে বেঁধে রেখেছিস খোলা রাজপথে খুব শক্ত গিঁটে
.                                                ল্যাম্পপোস্টগোড়ায়
ওকে লালা হাতে ধরে ফেলেছিস, মুহূর্তশিকারী, তোর
.                                                শ্যেনচোখে অনন্ত ভিড়ে
ওর পেছনে সামনে রোদ কড়াতাপে গলা পিচ
.                                                শাণিত শব্দচ্ছটা---
বেদম আঘাতে ওর ভ্রান্ত চোয়ালে
.                                                জমেছে ঈশ্বর পাথুরিয়া
তোরা একবারও লক্ষ্য করিস নি।

.                শেষে যদি
তোদের নেতৃত্ব ভেঙে ক্ষুদ্র মশার মতন
ঝোপঝাড় গৃহকোণ শব্দ করে
.                                এড়িয়ে এড়িয়ে
.                                        চরিত্র বদল ক’রে
উড়ে যায় পাগল আকাশে
.                তবে
তোরা কোন নতুন শিকল হাতে
.                                ছুটে যাবি সদরে ?

.                             ****************   
.                                                                              
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর