কবি সঞ্জী চ্যাটার্জীর কবিতা
www.milansagar.com
*
শ্রীচরণেষু
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

তুমি কেমন আছো? চুল পেকে গেছে নিশ্চয়
বুড়ো হয়ে গেছো? আর হাতের মাদুলিগুলো
সব আছে এখনো? সেই রাগ আছে আর,
মিষ্টি খাওনাতো বেশী। মা বকবে তাহলে।
মনে আছে একবার পড়া করিনি বলে খুব বকেছিলে
আমি এক্কেবারে ভয়ে জড়ো হয়ে গেছলাম
পরে আদরও করেছিলে খুব।সেবার
ক্লাস ফোরে যখন ফার্স্ট হলাম, সবাই মিলে
দীঘা বেড়াতে গেলাম। কত্তো মজা করেছিলাম।
বড়ো পিসির শরীর খারাপের চিঠি আসতে
তুমি রেগে গেছলে থানা থেকে ছুটি পাবেনা বলে।
অফিসে গিয়ে তুমি অসুস্থ হয়ে গেলে
আমি গিয়ে তোমার পায়ে হাত বুলিয়ে দিলাম
তারপর বোধহয় আর মনে নেই তোমার
তুমি তো কথাই বলছিলে না আর।
ওরা সেদিন তোমাকে কলকাতা নিয়ে গেল
আমাকে নিয়ে গেল না।কবে ফিরবে তুমি
কিছুই বুঝতে পারছিলাম না,আমি আর দাদা
তো পাসে মিনারুলদের বাড়িতে থাকছিলাম।
সবাই বলছিলো তোমার নাকি স্ট্রোক হয়েছে।
চার দিন পর মা ফিরলো, তুমি এলেনা।
খুব ঘুম পেয়েছিলো সেদিন আমার,
মা ও ক্লান্ত ছিল ,ঘুমিয়ে গেছলাম সবাই
মাঝরাতে কে যেন থানা থেকে ডাকতেই
বাইরে ছুটে গেলো মা,দাদা দিদি সবাই
অন্ধকারে আমিও গেলাম পিছু পিছু
একটা বড়ো গাড়ি দাঁড়িয়েছিল,অনেক লোক
তাকে ঘিরে, খুব কাঁদছিলো মা চিৎকার করে,
গাড়িটার কাছেগিয়ে দেখলাম তুমি শুয়ে আছো
থানার সবায় তোমাকে ফুল দিয়ে
স্যালুট করছে।আমাকে কেউ লক্ষই করেনি
অন্ধকারে এদিক ওদিক হাতড়ে বেড়িয়েছিলাম কি
যেন হারিয়ে ফেলেছিলাম আমি।বুঝতে পেরেছিলাম,
তুমি অফিস থেকে ফিরে আর কোনোদিনও
আমায় আদর করবে না ।।

.       *************************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
সমীরণ   
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

হাওয়া তুমি সুনির্মল
বহ খুশিখুশি
ভরিয়ে তন, বিষন্নমন
দিবস রজনী

হাওয়া তুমি দিশাহীন
প্রকৃতির প্রাণ
সাথে নিয়ে মেঘকনা
বরসার গান

হাওয়া তুমি উন্মাদ
মাতিয়ে ভুবন
দিন আসে দিনযায়
অবিরাম অবিচল

হাওয়া তুমি বাধাহীন
নিরাকার বেশ
জয় করে মানবের
সীমাহীন রেশ

হাওয়া তুমি উদ্ধত
হও বরষনে
তোমারই জীবন দান
কতশত প্রাণে ||

.    **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
জন্মদিনে     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

রবি ওঠে আপন মানসপটে
বসিয়ে তারে রাজসিংহাসনে
পুজি পদ ফুল, শ্বেতচন্দনে
আজি তার শুভ জন্মদিনে ||

বাজিয়ে শঙ্খ, উল্লাসে উলুধ্বনি
গেয়ে গান ওষ্ঠ বাতায়নী
মন চঞ্চল, কুলুকুলু বয়,
আঁখি উন্মাদ, হারাবার ভয় ||

বৈশাখে আজ বিশ্ববরনে
তুমি আছো আজও তোমার আসনে
স্মরণে তোমার সবকিছু ভুলি
মোরে দিও চরণধূলি ||

.    **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
আধুনিক প্রেমগাথা     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

তুমি আমার আধুনিকা
কুসুমবাগে ভোরের সখা-
তোমার স্বপ্নে মেকআপ বক্স
চাইনিস ল্যাম্প, খেয়েছি সক্!

তুমি আমার মৃগনয়নী
শাড়ি পরার ভাঁজ শেখনি-
তোমায় সোহাগ করতে মানা
অ্যাডভান্স শপ্, জব্বর খানা!

তুমি আমার বিউটিকুইন
সবাই তাকায় ডোন্ট মাইন্ড-
তোমার মুখে মৃদু হাসি
বিষম খেয়ে, অল্প কাশি!

তুমি আমার অষ্টাদশী
রণে বনে ভীষণ সাহসী-
তোমায় নিয়ে গরব বেশ
সাইকেল চড়ি, পেট্রোল শেষ!!

.    **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
অনিদ্রা     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

ঘুম নেই চোখে
বিষণ্ণতা ছেয়ে বুকে
থেমে থেমে রাত
তারা দের সাথ
বসে ভাবি সখা
এই ধরাতে একা
টেরা বেঁকা চাঁদ
পূর্ণিমা যেন ম্লান
তুমি রবে সাথে
আজ অপূর্ণ বাসনাতে
নম্র আঁখি জ্বলে
একাই কথা বলে
||

.    **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
বিজয়     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

উষাসনে কালো মেঘের ভ্রুকুটি
মেঘের আড়ালে যুদ্ধ করতে করতে
রক্তিম লেলিহান শিখার অকালমৃত্যু,
কোমল ছায়ায় মেদিনী শান্ত।
যার অঙ্গুলিহেলনে নিমিষে জলশূন্য শরীর
চাবুকের ঘায়ে পোড়া দাগ
রাতের অন্ধকারে লুকিয়ে ঘামবাণে
চুরি করে নিয়ে যায় রতি,
বিদ্রোহের অবসনে সেই দৌড়দন্ডপ্রতাপ
করদ রাজার আজ বায়বীয় সমাধি ||

.  
           **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
হে মানবজাতি     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

নিশ্বাসে বিষ উচ্ছ্বাস ভুলি
হৃদয়ে গভীর ক্ষত-
মানুষের মাঝে মানুষ নাই
আজ মস্তক নত ।।

স্বাধীনচেতা মানুষ হেতা
স্বার্থপরের মার-
সরলতা, বিনম্রতা
পুড়ে আজ ছারকার
||

মুক্ত বাতাস মুক্ত মন
উচ্চ করি শির-
মধুর বচন,উদার হিয়া
মনন হোক ধীর
||

অহমিকার গন্ডী ছেড়ে
একটু নিঃস্বার্থ-
ধন্য হোক মানবজাতির
এই মহাতীর্থ
||

.       **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*

.       **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
কীজানি কখন     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

     
আমি ৪২০       
দেখলেই গার্ল            
চাকরিটা বেশ            
বিয়ের কথা           

বেদুইন মন               
আপন জন               
শ্রাবণের মাঝে               
আমি ৪২০                
খেলি টি-২০           
স্ট্যান্ডার্ড চাল           
নেইকোনো রেশ          
ছাতার মাথা             

কীজানি কখন           
আঁধার রাতে           
নতুন সাজে           
খেলি টি-২০           
স্বপ্নের জাল-
প্রাণ উত্তাল।
প্রমোশন শেষ-
আছি বেশ।

রং বদলায়-
উকি জানালায়।
শাল পিয়াল-
স্বপ্নের জাল।
*
নিশাচর     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

ইন্টারনেটের তালিম নিয়েছি সবে,
জানার অনেক বাকি-
ব্রাউজার নামক জানালায় পদার্পণ,
বেমালুম চেষ্টায় নিজেকে
উজাড় কেরে দিতে দৃঢ় সংকল্প-
আমিতো আর মেশিন নই
টাইপের কাঁচা হাত, তবুও সাবলীল।
সময় অনেক,সাইটের পর সাইট
গোগ্রাসে গেলা, নেট-কার্ডের চিন্তা!
লাগে টাকা দেবে মা।
ই-মেল,মেসেঞ্জার-চ্যাট,গুগলসার্চ
সোশাল নেটওয়ার্ক, অনেক বাকি-
দিবা-শেষে নেট যেন জীবনসঙ্গী
সিগারেটের দমকা ধোঁয়ায় নারী-রূপ
হাইডেফিনেশন পিক্সেলের রিসার্চ,
চলমান ডাউন-লোড তো আছেই
কি নেই তাতে!মেসেঞ্জারে বারবার
কড়া নাড়া,রাত্রে আসে না বোধহয়!
ঘড়িরকাঁটা যেন আমার জন্যই জেগে-
শরীরে লাভাশ্রোত, রসদ যে অপূর্ণই,
লোডসেডিংটা আবার হতে পারে!
রুমে আনা বোতলের জল তলায়চ
মায়ের কথাটা বার বার মনে পড়ছে
‘কম্পিউটার ছাড় চাকরির কোচিং নে’
কে শোনে, তখন এসি ঘরের ‘ফিসার’
মানে অর্ধেক অফিসার,বিছানায় এসে
এলোমেলো ছবিকে নিজের মতো সাজিয়ে-
অদ্ভুত তৃপ্তি,কলেজে স্যুট বুটের সুবাদে
মানিব্যাগ ফাঁকা হলেও নামডাক ভালই
তবুও চাপা আবেগ যেন বাধ মানে না
মার্কশীটে পাওয়া স্টার চিহ্নটা এখন
নাম না পাওয়া তারার মতোই ম্লান,
বিতর্কে যায়গা নেই, স্ট্যাম্প দরকার!
দিন গড়িয়ে রাত,অবসন্নতা মুক্তির সময়
গুগলসার্চে ঘন ঘন নিশ্বাস,অ্যাসট্রের
নিভে যাওয়া সিগারেটের প্রানপ্রাপ্তি,
জানালার ধারে পাশের বাড়ির কার্নিশে
একটা কালো পেঁচা,মনে হচ্ছে কেউ
যেন তার মাথা দুমড়ে মুচড়ে ভেতরে
ঢুকিয়ে দিয়েছে জোরকরে, বার বার
মাথা তুলে সোজা কারার চেষ্টা করছে
তাহলে এটা কি কোনও অশনি সংকেত!
নাকি তার দীপ্ত চোখ আমাকে ইশারায়
সান্ত্বনা দিয়ে দূর থেকে ফিসফিস করে
বলছে দিবালোকে তোর যায়গা নেই
তুইও আমার মতো নিশাচর!!

.          **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর
*
তুমি না, আমি     
সঞ্জীব চ্যাটার্জী  

এই তো সেদিন
কবিতা জুড়ে
ছিলে শুধুই ‘তুমি’

এবার না হয়
পাতা মুড়ে
থাকব শুধুই ‘আমি’।

.     **************   
.                                                                                            
সূচিতে...   




মিলনসাগর