কবি সুখলতা রাও-এর কবিতা
*
বাবনা ভূতের ছানা
কবি সুখলতা রাও

বাবনা ভূতের ছানা
নেই কো তাদের ডানা
ঝড়ের সাথে
খেলায় মাতে
ঝেঁটিয়ে আকাশখানা |

গাছের মাথায় দোলে
তালের পাতায় ঝোলে
ঘর বাঁধে না
ধার ধারে না
হাওয়ায় গড়ে থানা |

.      *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
দিগ্ নগরের বুড়ী
কবি সুখলতা রাও

দিগ্ নগরের বুড়ী এল,
.        তিনটি মেয়ে মুঠোয় ধরে ;
একটি সেঁকে, একটি বাড়ে,
একটি ভাল রান্না করে,
মিহি সূতো কাটতে পারে,
ঘরের কাজও করতে পারে ;
ও গিন্নী মা, কিনবে নাকি
.        একটি মেয়ে, আদর করে ?

.      *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
এরোপ্লেন
কবি সুখলতা রাও

দেখি সব জন
ফেলে ঘর বন
প্লেন শন্ শন্
.        ওড়ে,
করে গর্জন
জোর ভন্ভন্
নাক বন্ বন্
.        ঘোরে।

.                জোর ঝঞ্ঝায়
.                বুঝি দম্ যায়
.                কল-কব্জায়
.                        ছেড়ে,
.                চেপে হালটায়
.                কভু পালটায়,
.                কভু ডান-বাঁয়ে
.                        ফেরে।

.                                তবু সব জিনে
.                                কোন পথ বিনে
.                                ঠিক পথ চিনে
.                                        ধায়,
.                                ওঠে ঢের দূরে
.                                ঘন মেঘ ফুঁড়ে,
.                                নীল দেশ ঘুরে
.                                        যায়।

.                                 *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
বিল্লি
সুখলতা রাও

কোনখানে গিয়েছিলি
.        বিল্লি রে বিল্লি ?
---বাদশাকে দেথতে
.        দিল্লী গো দিল্লী।
---বাদশীহ খুশি হয়ে
.        তোরে বল দিল কি ?
---দিল্লী কা লাড্ডু!
.        চাও যদি এনে দি।

.      *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
বড়োলোক
সুখলতা রাও

ধনির ছেলে টুনু               
    অভাব নাহি তার,
খেলনা আছে কত              
   বাগান বাড়ি আর ;
তবু
কানু বিনা                কাটে না দিন তার
.                                        খুশি মনে।

মালির ছেলে কানু,                থাকে সে চালা ঘরে
মা রাঁধে শাক-ভাত                তা’ দিয়ে পেট ভরে,
পুরানো ছেঁড়া ধুতি                সবল দেহে পরে
.                                        সযতনে।

‘টুনুরা বড়ো লোক,                এত কী মেশামেশি ?
কানুর সাথে তার,              
   এত কী ঘেঁষাঘেঁশি ?
ভালো না বাড়াবাড়ি               মজাবে শেষাশেষি’---
.                                        সব বলে।

কথাটা ক্রমে ক্রমে            
     ধনীর কানে যায়।
দু’জনে হাসি-খেলা             
    বারণ হ’ল হায় ;
মনের দুখে টুনু                    ভাসিল নিরালায়
.                                        আঁখি জলে।

সময় চ’লে যায়                
   ব’সে তো থাকে না সে ;
নতুন সাথি জোটে,                টুনুর আশেপাশে,
সমান বড়োলোক,                সমানে খেলে হাসে,
.                                        ---সবি সাজে

কানুও থাকে দূরে                কখন ঘাস কাটে,
বাপের সাথে সাথে                কখন যায় হাটে,
কখন ঘুরে ফিরে              
    একেলা মাঠে ঘাটে
.                                        বিনা কাজে।

সেদিন কী ভীষণ              
     বিপদ ঘিরে এল,
পৃথিবী কেঁপে কেঁপে               হাঁ করে চিরে গেল,
পাহাড় সম ঘর                    ধূলিতে মিশে গেল
.                                        একেবারে!

চেতনা পেয়ে টুনু              
   কিছু না ভেবে পায়,
ইটের বোঝা ব’য়ে                হতাশ হ’য়ে চায়।---
‘কোথায় টুনু’ ব’লে                ওই কে ডেকে যায়
.                                        পথ পারে ?

ওই কে আসে ছুটে                হাঁপিয়ে উঠে প’ড়ে ?
বাড়িয়ে দুটি হাত          
       কে নিল কোলে ক’রে
কাতর দেহখানি            
       যতনে বুকে ধ’রে
.                                        নিল সেই।

যেমনি দেখে টুনু             
     আরামে চোখ তুলে,
কানুর কাঁদে তার             
    মাথাটি পড়ে ঢুলে,
কে বড়ো, কে ছোটো তা      
    সকলি গেল ভুলে
.                                        দু’জনেই।

.     
               *****************

.                                                                                          
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর