কবি প্রবোধচন্দ্র সেনের কবিতা
*
যৌবন-বোধন
( পুষ্পিতাগ্রা ছন্দ )
কবি প্রবোধচন্দ্র সেন
রামানন্দ চট্টোপাধ্যায় সম্পাদিত প্রবাসী পত্রিকার ভাদ্র ১৩৩০ ( অগাস্ট ১৯২৩) সংখ্যা,
থেকে পাওয়া।


প্রাণে মনে মহা-মুক্তি-পণ জাগুক আজ,
.        বুকে বুকে অগ্নিশিখার কেতন উড়ুক হায়,
অপমানে নত শীর্ষ ‘পর পড়ুক বাজ,
.        ললাটেতে মৃত্যু-তিলক জ্বলুক আগুন প্রায়।

আঘাতে আহত বক্ষ পর শোণিত লাল
.        দিকে দিকে শঙ্কা জাগাক মরণ-সমুদ্রের,
মরণে মরণে ত্রস্ত হোক মহান্ কাল,
.        লোকে লোকে দুঃখ-ব্যথার রোদন উঠুক ঢের।

মুখরিত করি’ বিশ্ব-লোক প্রলয়-গান
.        পলে পলে ছিন্ন করুক জগৎ-বীণার তার,
তারকা-তপনে বিদ্রোহের বিষম বান
.        অবিরত ধ্বংস আনুক ভীষণ চমত্কার!

সহে না সহে না আর যে ভাই, চোখের জল,
.        অপমানে খিন্ন মলিন জীবন-ফাগুন-কাল ;
আজিকে পুড়িয়া হোক না ছাই সুখের ছল,
.        চারিদিকে হিংস্র ভীষণ লাগুক আগুন লাল।

বৃথা এ গুমরি’ কান্না তোর, বৃথাই হায়,
.        কে শুনিবে আর্ত্তনাদের হৃদয়-বিদার-রব?
শিখাতে শিখাতে বহ্নি ঘোর গগন ছায়,
.        শোন না কি অত্যাচারের নিদয় জয়োত্সব?  

রেখে’ দে আজিকে অশ্রুপাত, হৃদয় বাঁধ,
.        জীবনেরে দৃপ্ত তেজের কঠিন আধার কর ;  
জাগারে বুকেতে যৌবনের প্রলয়-সাধ,
.        শত কোটি ঝঞ্ঝা তুফান নাচুক বুকের ’পর।

কাঁপায়ে ধরণী তাণ্ডবের চলুক নাচ,
.        দে উড়ায়ে দীর্ণ অযুত ভূবন-কমল-দল ;
কোটি রাঙা শিখা খাণ্ডবের জ্বলুক্ আজ,
.        শিবে নে রে ধ্বংস বিনাশ, তরুণ পাগল-দল!

ঝলকে ঝলকে রক্ত-স্রোত মরণ-জয়
.        পথে পথে মৃত্যু-রাজের বিষাণ বাজাক হায় ;
পলকে পলকে খড়গাঘাত কিরণময়
.        দিকে দিকে মুক্তি-রথের কেতন উড়াক বায়!

আজিকে আসনে যৌবনের বসুক দুখ,
.        তারি করে শঙ্খ-নিনাদ জাগাক মরণ-গান ;  
ছিঁড়িয়া আনিয়া হৃৎ-কমল দে সুখটুক,
.        তারি পায়ে অঞ্জলি হায় তরুণ-জীবন-দান।

.      
               ***************************  
.                                                                                
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর