কবি রমণীমোহন ঘোষের কবিতা
*
দেবশিশু
কবি রমণীমোহন ঘোষ
কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকবি সরল দে সম্পাদিত পাঁচশো বছরের কিশোর কবিতা
থেকে নেওয়া |

নগ্ন শিশুটি পথপাশে বসি খেলিছে মনের সুখে,
কচি হাতে লয়ে মুঠা মুঠা ধূলি মাখিছে মাথায় বুকে |
ফুলের মতন মুখখানি ভরা মৃদু নির্মল হাস,
পাখীর কাকলিসম সুমধুর কন্ঠে অফুট ভাষ |
তস্কর সেথা আসি হেন কালে দেখে--- কোথা নাই কেহ,
খেলিছে একেলা সুকুমার শিশু, স্বর্ণভূষিত দেহ |

ত্বরিতে শিশুর দেহ হতে খুলি নিল আভরণ রাশি,
কাঁদিল না শিশু, মুখে চেয়ে তার কেবল উঠিল হাসি |
নিমেষর তরে রিক্ত-ভূষণ গৌর শিশুর পানে
চাহি---কি বেদনা উঠিল জাগিয়া চোরের কঠোর প্রাণে |
‘মরি মরি ! একি অপরূপ রূপ ! ধূলি-ধূসরিত কায়
সোনার পুতলি, শিশু-সন্ন্যাসী ! আয়, বাছা, কোলে আয় !’
এই বলি চোর কোলে লয়ে তারে ধূলি মুছি দিল ধীরে,
যেখানে যা ছিল --- রতনে ভূষণে সাজাইয়া দিল ফিরে |
কোথা গেল তার অর্থলালসা, কোথা গেল পাপে মতি,
মুগ্ধ নয়নে রহিল চাহিয়া গৌর শিশুর প্রতি |

.                  ***************                  
.                    
                                                           সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
জিজ্ঞাসা
রমণীমোহন ঘোষ
সুকুমার সেন সম্পাদিত “বাংলা কবিতা সমুচ্চয়” প্রথম খণ্ড থেকে নেওয়া।

প্রভাতে সাঁজের বেলা                কত না করেছি খেলা
.        মুকুলিত উপবনে তটিনীর তীরে ;
দূরে কে গাহিত গান                  বাঁশীতে ধরিয়া তান,
.        বুঝি নাই ভাষা তার চাহি নাই ফিরে |

আজি সে বাঁশীর স্বরে               পরাণ আকুল করে
.        বিকশিয়া উঠে মনে নব সাধ, আশা ;
.        বল্ সখি, বল্ মোরে,
                  একি ভালবাসা ?

আজি মনে লয় হেন                  মধু-পূর্ণিমায় যেন
.        পুলক-চঞ্চল হৃদি-সমুদ্র আমার ;                              
আজি কোটি কোটি চোখে         অতন্দ্রিত চন্দ্রালোকে
.        শুধু দেখিবারে চাই মূরতি তাহার |
আজি সেই উপবনে               বসি সান্ধ্য সমীরণে
.        কোটি কর্ণে শুনিবারে চাহি তার ভাষা ;
.       বল্ সখি, বল্ মোরে---
.                       এক্ ভালবাসা ?

আজি হেন সাধ যায়                 প্রাণ মন সঁপি তায়
.        অধরে ফুটে না, হায়, মরমের বাণী !
শতকাজে অনিবার                 মনে পড়ে মুখ তার,
.        নিশীথে স্বপন দেখি তারি মুখখানি |
সারাদিন সারারাতি                 সে যে কল্পনার সাথী,
.        তবু সদা জাগে প্রাণে যেন কি পিপাসা !
.        বল্ সখি, বল্ সখি ----
.                একি ভালবাসা ?

.             
             ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
রূপগর্ব
রমণীমোহন ঘোষ
অরূণকুমার মুখোপাধ্যায় সংকলিত “বাংলা গীতিকবিতা উনিশ শতক” থেকে নেওয়া।

গিরিমূলে সপ্তধারে বহে উষ্ণ বারি যেথা---
.                একদা প্রভাতে
মগধ-মহিষী ক্ষেমা স্নানে আসিলেন সেথা
.               সখীগণ সাথে |

বিম্বিসার-নৃপতির নয়নের মণি রাণী
.                  রতনে মন্ডিতা,
ঐশ্বর্যে বিলাসে মগ্না ভূবনদুর্লভ রূপ---
.                 যৌবন-গর্বিতা |

সেদিন শরদাগমে বুদ্ধ ভগবান্ আসি’
.                  গিরিব্রজপুরে
আলো করি গিরিশৃঙ্গ ভক্তবৃন্দ মাঝে ছিলা
.                  আসীন অদূরে |

সখী-মুখে বার্তা শুনি’কহে রাণী,--- “যাব আমি
.                   বুদ্ধ দরশনে,
দেখিব--- কি দেখি’ তাঁর নরনারী ছুটে আসে
.                   তাঁহার চরণে |”

নূপুরশিঞ্জিত পদে শিলাপথ বাহি’ ক্ষেমা
.                   উঠে সানুদেশে
যেথা প্রভু তথাগত --- আসন-সম্মুখে তাঁর
.                   দাঁড়াইল এসে |

দেখিল সে--- দিব্যাসনে বসিয়া আছেন দেব
.                   প্রশান্ত মূরতি,
নেত্রযুগ হ’তে ঝরে অনন্ত করুণাধারা
.                    সর্বজীব প্রতি |

সম্ভ্রমে দাঁড়ায়ে পাশে ব্যজন করিছে তাঁরে
.                    তরুণী সুন্দরী,
সৌন্দর্যের প্রভা যার ক্ষেমার অনিন্দ্যরূপ
.                    দিল ম্লান করি |

দেখিতে দেখিতে সেই বরাঙ্গনা—দেহে ঘটে
.                    কি পরিবর্তন !
কোথায় মিলায়ে গেল যৌবন-লাবণ্য তার
.                    নয়ন-রঞ্জন |

বিগত-যৌবনা প্রৌঢ়া---বৃদ্ধা জরাকবলিতা
.                    ক্রমে সে যুবতী,
বিস্ময়বিহ্বলা, ক্ষেমা নারী-রূপ যৌবনের
.                    হেরি’ পরিণতি |

ছুটিল সকল গর্ব, আকুল হৃদয়ে ভাসি’
.                    নয়নের জলে |
লুটিয়া পড়িল ক্ষেমা অমনি বুদ্ধের রাঙা
.                    পাদপদ্ম তলে |

.                          ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
মানসী
রমণীমোহন ঘোষ
অরূণকুমার মুখোপাধ্যায় সংকলিত “বাংলা গীতিকবিতা উনিশ শতক” থেকে নেওয়া।

আর কত বল ভুলাবে আমারে,
.                 মানসকুঞ্জবাসিনী !
নবীন শোভায় নিত্য বিকশি’
চিত্তগগনে পূর্ণিমা-শশী,
একি গো রঙ্গে খেলা কর বসি’
.                 সুন্দর শুভহাসিনি !
নব নব সাধ জাগাও পরাণে
.                নীরব মঞ্জুভাষিণি !
হেরি রূপ তব নিত্য নূতন,
.                 অয়ি নির্মলবরণে !
মনে নাই কবে কোন্ সুলগনে
কোথা আমাদের দেখা দুইজনে ;
কি মুরতি ধরি’ অয়ি বরাননে
.                 নূপুর-মুখর চরণে
পশেছিলে আসি’ হৃদয়ে আমার
.              আজ নাই তাহা স্মরণে |
সংসার নিতি আসে মোর পাশে
.                 হাতে লয়ে মায়া-শিকলি,
প্রকৃতি আমায় করে আবাহন
দেখা’য়ে তাহার শোভা অগণন,
পারে না বাঁধিতে কেহ মোর মন,
.                 তুচ্ছ নেহারি সকলি |---
উজ্জ্বল তব রূপ অতুলন
.                 জেগে থাকে হৃদে কেবলি !
তাই হেথা বসি’ বিজন বিপনে,
.                  বনমর্মর পবনে,
মানসে ও মুখ করি দরশন,
শুনি’ শুধু তব অমিয় বচন,
ভুলে আছি আমি জীবন-মরণ
.                  কঠিন মলিন ভুবনে |
দিবস রজনী রেখেছ ভুলায়ে
স্বর্গের নব স্বপনে |
কত নব নব ছলনার পাশে
.                   রেখেছ হৃদয় বাঁধিয়া !
কভু মুখ ঢাক টানি’ আবরণ,----
কখনো মুক্ত অবগুন্ঠন,
কভু হাসি,---- কভু মান অকারণ,
.                   কখনো বা উঠ কাঁদিয়া !
কখনো মৌন, কখনো সোহাগে
.                   সান্ত্বনা করে সাধিয়া |
কাছে থাকি তবু থাকিবে কি দূর,----
.                   কখনো চির-জীবনে,
অয়ি মায়াবিনি, অরুণ-অধরা,
আকুল-অলকা,  নীল-অম্বরা,
বাহুবন্ধনে দিবে নাকি ধরা
.                   মর্ত্য বাসর-শয়নে !---
বাহিরিয়া আসি’ অন্তর হ’তে
.                   থাকিবে নয়নে নয়নে !

.                          ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
বিকাশ
কবি রমণীমোহন ঘোষ
রাধারাণী দেবী ও নরেন্দ্র দেব সম্পাদিত “কাব্য-দীপালি” থেকে নেওয়া।

ওহে সুন্দর                            মম অন্তরে
একি উচ্ছ্বাস নব,
একি   আকুল পুলক                             হিল্লোল প্রিয়
নব সঙ্গীত রব !

আজি মধুময় ধরা         শোভা সৌরভে ভরা
নিভৃত আমার কুঞ্জ কুটীরে
আজি কি মহোত্সব !

বিকশিত আজি                     নব গৌরবে
হৃদয় কমল মম,
তাই   উচ্ছ্বসি যেন                      উঠিছে প্রাণের
লাবণ্য নিরুপম |

নবীন ভাবনা কত           ফুটে উঠে অবিরত
চেয়ে আছে তব প্রেমালোক তরে
সূর্য্যমুখীর সম |

কতদিন হায়                     জেগেছো রজনী
কতনা বিষাদভরে,
তবু    পারনি বুঝিতে                    মোরে কতশত
ব্যগ্র প্রশ্ন করে’ |

কত নব ভালবাসা             আবেগ পূর্ণ ভাষা
লজ্জা কাতরা বালিকার কাছে
বিফলে গিয়াছে মরে |

আজি ফেলে দিব                       তুচ্ছ জীর্ণ
হীন লাজ আচরণ,
তুমি   এস, হৃদয়েশ,                         হৃদি মন্দিরে
হৃদি-মন্থন ধন !

গোপন মরম মম                  দেখ অন্তরতম !
দেখ, কোন্ পদে সঁপিয়াছি আমি
তরুণ জীবন মন !


মৌন মূঢ় সে                         বালিকা চিত্তে
দেখ, কি মত্ত আশা !
আজি  মিটাতে চাহে সে                     প্রেমতৃষা তব
ঢালি চির ভালবাসা !

চাহেসে পরাণ খুলে            কহিতে শ্রবণ মূলে
যুগে যুগে যত প্রণয়িণীগণ
করিয়াছে প্রেমভাষা !

ওহে বাঞ্ছিত !                   দেখ্  আজি মোর
একি ব্যাকুলতা নব !
চাহে  ক্ষুদ্র হৃদয়                             পুরাইতে তব
আশা আকাঙ্খা সব !

রেখেছি বক্ষ ভ’রে               সান্ত্বনা তব তরে,
ওগো অতৃপ্ত আছে এ হৃদয়ে
সর্ব্ব তৃপ্তি তব |

.                          ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
আবাহন
কবি রমণীমোহন ঘোষ
প্রবাসী পত্রিকার চৈত্র ১৩১৭ ( এপ্রিল ১৯১১ ) সংখ্যা থেকে নেওয়া।

এসগো বসন্তলক্ষ্মি! ---চঞ্চল পবন
ব্যাকুল লভিতে মধু পরশ তোমার ;
তোমারে বন্দিতে আজি প্লাবিয়া ভুবন
কোকিল পাপিয়া কণ্ঠে অশ্রান্ত ঝঙ্কার।

.                          ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
মৃত্যু
কবি রমণীমোহন ঘোষ
কবিশেখর কালিদাস রায় সম্পাদিত মাধুকরী কাব্য সংকলন, ১৯৬২, থেকে নেওয়া।

.                                ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
সুখ-দুখ বিজড়িত                            এই নর জনমের
মৃত্যুই কি মহাপরিণাম ?
যত আশা ভালবাসা                      অতৃপ্ত বাসনারাশি
তারি কোলে লভিবে বিরাম!

অনন্ত সাগরতীরে                           বালুকার খেলাঘর
যদি এই মানবজীবন,
তবে কেন তার তরে                      এ বিশাল বসুন্ধরা
*
বর্ষা-আবাহন
কবি রমণীমোহন ঘোষ
ভারতী পত্রিকার আষাঢ় ১৩১০ ( জুলাই ১৯০৪ ) সংখ্যা থেকে নেওয়া।

এস এস নব বরষা,
তাপিত-ভুবন-ভরসা।

সেগো সজলা                স্নিগ্ধ শ্যামলা
নবযৌবনা সরসা।

আন মেঘভার গগণে
গুরুগর্জনে সঘনে

আকাশের দ্বার                 খুলিয়া আবার
এস নামি’শুভলগনে।

এসগো রঙ্গে শোভনে,
উতলা আর্দ্র পবনে

আন হিল্লোল                কলকল্লোল
অলস তটিনী জীবনে।

আন নব সাধ বাসনা
জাগাও নূতন বেদনা।

আন দূরস্মৃতি                মল্লার গীতি
দিবস বিবস চেতনা।

.                          ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
পল্লী-জননী
কবি রমণীমোহন ঘোষ
ভারতী পত্রিকার পৌষ ১৩১০ ( জানুয়ারি ১৯০৪ ) সংখ্যা থেকে নেওয়া।

তোমার স্নেহের                        বক্ষে আবার
.               তুলে লও মোরে, জননি!
.               দেশে দেশে ফিরি বৃথা দুরাশায়
.               শ্রান্ত হৃদয়ে সন্ধ্যা বেলায়---
.               তোমার নদীর ঘাটে আসি’ আজি
.               বাঁধিয়াছি মোর তরণী।

জুড়াব আবার                        ক্লান্ত শরীর
.               তোমার শীতল পবনে ;
.               দেখিব আবার---সুনীল বরণ
.               তোমার উদার মুক্ত গগন,
.               দিগ্ দিগন্তে প্রসারিত মাঠ

.                            ***************                  
.                                                                               
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর