কবি গীতিকার সাধন গুহর গান ও কবিতা
*
এমন কোন ছাত্রকে ভাই চেনো
কথা ও সুর --
কবি সাধন গুহ
স্বপন দাসাধিকারী সম্পাদিত “যুদ্ধ জয়ের গান” থেকে নেওয়া

এমন কোন ছাত্রকে ভাই চেনো
যে পৃথিবীর সবার কাছেই শেখে
জ্ঞানের অহঙ্কার কখনো তাকে
শিখতে বাধা দেয় নি কারো থেকে |
এমন কোন রূপকারকে চেনো
যে মার্কস-এঙ্গেলস-লেনিন-স্তালিন নিয়ে
নতুন আরো চিন্তা কিছু জুড়ে, সবহারাদের
.                             পথকে দৃঢ় করে |

এমন কোনও মৃত্যুকে ভাই জানো
যার তুলনায় হিমালয় অনেক ছোট
এমন কোনও পদ্ধতি নেই জানা
যা দিয়ে সেই মৃত্যু যায় মাপা |
এমন মহান ছাত্র যেদিন মরে
সেদিন কেমন হলো ভাবো দেখি
সব শিক্ষকের চোখেই সেদিন জল
এমন ছাত্র পাননি তারা আর
তাইতো তাদের চোখে আসে জল |
সবাই এমন মহান ছাত্র হতে
কাঁধ মিলিয়ে চলরে সাথে সাথে |
( জনগণের জন্য জীবন দান
তাইতো হল এ মৃত্যু মহান )
এমন মৃত্যু আমাদেরও যেন হয়
এই তো হল মোদের প্রত্যয় ||

.             ***************  
.                                                                                
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
সারা পৃথিবীর বজ্রমুঠির অগ্নি শপথে
কথা - কবি সাধন গুহ,
সুর – দিলীপ মুখোপাধ্যায়
সুব্রত রুদ্র সম্পাদিত “গণসংগীত সংগ্রহ” থেকে নেওয়া

সারা পৃথিবীর বজ্রমুঠির শপথে লাল সেলাম
তারই সাথে আজ সারা ভারতের
.                              কোটি কোটি জনমন দিলাম |
লাল সেলাম ভিয়েতনাম লাল সেলাম ||

ঐ মার্কিনী যত দস্যুর চক্রান্তের জাল ছেদিয়া
তোমরা উঠালে আকাশে নতুন সূর্য
.                             রাত্রির বুক ভেদিয়া |
তাই মাটিতে পাহাড়ে প্রতিরোধ
জ্বলে চোখের আগুনে প্রতিশোধ
আজ তোমার মাটিতে চিতার আগুনে
যুদ্ধের শেষ পরিণাম আমি লিখে দিলাম ||

কান পেতে শোন্ শপথে বজ্র
গুরু গুরু গুরু গরজে ঐ
ক্রোধে কম্পিত মাটি ও পাহাড়
সাগরে ঊর্মি নাচে তাথৈ |
আজ রক্তপিপাসু যত দস্যুর
.                             মেটাবো আমরা রণের সাধ |
কোটি কোটি ঐ কম্বু কন্ঠে ওঠে নিনাদ
ভিয়েতনাম জিন্দাবাদ
হো-চি-মিন জিন্দাবাদ ||

.             ***************  
.                                                                                
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
শোন কাকদ্বীপ রে
কথা ও সুর - কবি সাধন গুহ,
সুব্রত রুদ্র সম্পাদিত “গণসংগীত সংগ্রহ” থেকে নেওয়া

শোন কাকদ্বীপ রে
এই চন্দনশিড়ি শ্মশানে
অহল্যা মার চিতার আগুন জ্বলেরে |
আহা কিষাণী মার প্রসব যন্ত্রণা
বাতাসে বাতাসে গুমরিয়া কান্দেরে ||
ও সেই অহল্যা মার সন্তান শোন বন্ধু জনম নিল না |
বন্ধুরে --- নতুন শিশু এই ধরণী দেখতে পেল না |

চোখের নোনা জলে সেথায়
.                   সরস হইল মাটি
তারই মাঝে সোনার ফসল
.                   ফলায় আঁটি আঁটি |
আহা সেই ফসল যায় পরের গোলায়
.                   চাষী তো ধান পেল না ||

শোন রক্তে রাঙা সেই ইতিহাস
প্রতিরোধ পণে সারা কাকদ্বীপ বলেছিল ডেকে
আমরা দেব না এমন সোনার ধান |
না না না না দেব না সোনার ধান

রক্তে বুনেছি ফসল মাটিতে রক্তে বুনেছি ধান |
ফসল মোদের মান ফসল মোদের জান
ফসল মোদের ঘরের লক্ষ্মী ফসল প্রাণের গান ||

শোন তার পর---
এল ঝড় দুরন্ত দুর্বার
মৃত্যুর পদাঘাত সারা কাকদ্বীপ তোলপাড় |
এল যতেক কিষাণ তারা বাজায় বিষাণ
বলে যায় ---- যদি যাক প্রাণ তবু দেব নাকো ধান
তোলপাড় কাকদ্বীপ তোলপাড় ||

শোন যত দেশবাসী শোন সে কাহিনী
বিনা দোষে জীবন দিল অহল্যা কিষাণী |
গর্ভবতী মায়ের বুকে লাগলো সীসের গুলি
অভাগিনী স্বাধীন দেশে দিল জীবন বলি |
মাগো অহল্যা কিষাণী
তোমার খুনে রাঙাই নতুন পথের নিশানই |

.             ***************  
.                                                                                
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর
*
বাহাত্তরের বিবৃতি
কথা ও সুর - কবি সাধন গুহ,
সুব্রত রুদ্র সম্পাদিত “গণসংগীত সংগ্রহ” থেকে নেওয়া

জেলের সেলে অন্ধকারে নিহত সেই কিশোর শহীদ
বাপী গুহ’র মা’কে আমি এই মুহূর্তে কি-ই বা দেবো !
বলতে পারি আছে মা গো বাপীর মত লক্ষ বাপী
গ্রাম শহরে তোমায় ঘিরে |
বলতে পারি আছে মা গো বাপীর মতোই সতেজ প্রাণের অধিকারী
.                                                          অনেক ছেলে
এই বাংলার জেলে এবং
কুড্ডালোরে বসে যারা দিন গুণছে রাত্রি ভোরের |
বিমান বুলুর মা’কে এবং দীপক রবির বৌ’কে আমি
কি ভাষাতে সান্ত্বনা দিই !
আমি বলি আজ তোমাদের দু চোখ জুড়ে কান্না মুছে
আগুন জ্বলুক আগুন জ্বলুক আগুন জ্বলুক প্রতিশোধের |
সেই আগুনে পুড়ে পুড়ে ছাই হয়ে যাক্ ওরা সবাই
আজকে যারা অসীমা আর গীতার মত অনেক বোনের মান কেড়েছে
সেই আগুনে পুড়ে পুড়ে ছাই হয়ে যাক ওরা সবাই
আজকে যারা শিপ্রা সাহা অঞ্জলিদি বীথি এবং মালতীদের প্রাণ নিয়েছে |
ঘরে ঘরে যারাই আছ স্নেহময়ী সব মায়েদের ডাক দিয়ে যাই,
সিঁথির সিঁদুর মুছে যাওয়া অনাথিনী যারা আছ ডাক দিয়ে যাই,
সব সন্ত্রাস জুলুমবাজীর প্রতিরোধে রুখে দাঁড়াও---সময় হলো |
ছেলের ভায়ের স্বামীর খুনের বদলা নিতে রুখে দাঁড়াও---- লগ্ন এলো ||
আমরাও তো তোমাদেরই পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছি প্রতিরোধের
.                                                       এক সারিতে |
বাপ বেটা ও মায়ে ঝিয়ে ভাই বোন ও স্বামী স্ত্রীতে এক লড়াইয়ে
এক লড়াইয়ে সামিল হয়ে সাত সমুদ্র তেরো নদীর উথাল পাথাল
.                                                     ঢেউয়ের বেগে
প্লাবন এনে প্লাবন এনে প্লাবন এনে ভাসিয়ে দেব সারাটা দেশ |
কে দাঁড়াবে সামনে এসে এই জোয়ারের গতিকে রোধ করবে বলে---
হিটলার কি মুসোলিনীর মারণমন্ত্রে দীক্ষিত সব নতুন সেনা ?
তা-ই তবে হোক মুখোমুখি অন্ধকার আর আলোর সাথে মোকাবিলা
বিভীষিকার গুরুরা তো আস্তাকুঁড়ে ঠাঁই নিয়েছে অনেক আগেই
এবং তাদের শিষ্যদেরও একই পথে এগিয়ে দেবার দায়িত্বটা আমাদেরই |

.           
                        ***************  
.                                                                                
সূচিতে . . .    


মিলনসাগর