নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর বাণী
*
ভারতের জাতীয় সংহতি         
নেতাজীর "ভারতের মুক্তি সংগ্রাম (১৯২০ - ১৯৪২)" প্রথম খণ্ডের "ভারতে রাষ্ট্রশাসনের
পটভূমি" অধ্যায়ের অংশবিশেষ | ১৯৮৮ সালে স্বাধীনতার ৪০ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে, কবি
শান্তি সিংহ সম্পাদিত এবং নিউ বেঙ্গল প্রেস  দ্বারা প্রকাশিত, বাংলা কাব্যে ভারত-
বিষয়ক কবিতার অতি গুরুত্বপূর্ণ সংকলন - "স্বদেশ আমার" কাব্যগ্রন্থে প্রথম কবিতার
আকারে প্রকাশিত হয়....



ভৌগলিক দিক হইতে, ভারতকে পৃথিবীর অন্যান্য অংশ হইতে
বিচ্ছিন্ন স্বয়ংসম্পূর্ণ একটি অংশ বলিয়া মনে হয় |
উত্তরে যাহার সীমানা নির্দেশ করিতেছে সুবিশার হিমালয় প্রর্বত,
অসীম সমুদ্র যাহার দুই দিক বেষ্টন করিয়ে আছে ---
সেই ভারত ভৌগলিক সত্তার একটা সর্বোত্কৃষ্ট উদাহরণ |
ভারতে বিভিন্ন জাতি লইয়া কখনও কোনও সমস্যা দেখা দেয় নাই ---
কেননা তাহার সমগ্র ইতিহাসে বিভিন্ন জাতিকে একাত্ম করিয়া লইতে
এবং তাহাদের মধ্যে একটা সাধারণ কৃষ্টি ও ঐতিহ্য সঞ্চারিত করিতে
.                                                সে সমর্থ হইয়াছে |

এই বন্ধনের সর্বপেক্ষা প্রধাণ কারন হিন্দু ধর্ম |
উত্তর কিংবা দক্ষিণ, পূর্ব বা পশ্চিম যেখানেই আপনি যান না কেন,
এক ধর্মমত, এক সংস্কৃতিএবং এক ঐতিহ্য দেখিতে পাইবেন |
সকল হিন্দুই ভারতকে পবিত্রভূমি বলিয়া মনে করে |
তীর্থগুলির মতই সারাদেশে ছড়াইয়া আছে বহু পবিত্র স্রোতস্বিনী |

যদি আপনাকে একজন ধার্মিক হিন্দু হিসেবে আপনার তীর্থযাত্রা
.                                                     সম্পূর্ণ করিতে হয়,
তাহা হইলে আপনাকে একেবারে দক্ষিণে সেতুবদ্ধ-রামেশ্বর হইতে
উত্তরে তুষারাচ্ছাদিত হিমালয়ের বুকে অবস্থিত বদ্রীনাথ পর্যন্ত ভ্রমণ
.                                                      করিতে হইবে |
শ্রেষ্ঠ আচার্যগণ, যাঁহারে দেশকে তাঁহাদের বিশ্বাসে দীক্ষিত করিতে
.                                                       চাহিতেন,
তাঁহাদিগকে সর্বদাই সমগ্র ভারত পর্যটন করিতে হইত |
আর তাঁহাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠদিগের অন্যতম শঙ্করাচার্য
খৃষ্টীয় অষ্টম শতাব্দিতে আবির্ভুত হইয়াছিলেন |
তিনি ভারতের চার প্রান্তে চারিটি আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন,
যেগুলি অদ্যাবধি বিরাজ করিতেছে |
সর্বত্র একই শাস্ত্র পঠিত ও অনুসৃত হয়,
আর যেখানেই আপনি ভ্রমণ করুন না কেন,
রামায়ণ ও মহাভারত মহাকাব্য সর্বত্র সমান জনপ্রিয় |
মুসলমানদিগের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে ক্রমশ একটা নূতন সমন্বয়
.                                                       গড়িয়া উঠে |
যদিও তাহারা হিন্দুদিগের ধর্ম গ্রহণ করে নাই, তবু তাহারা
ভারতবর্ষকে তাহাদের দেশ করিয়া লইয়াছিল
এবং জনগণের সাধারণ সামাজিক জীবন ও তাহাদের
সুখদুঃখের অংশিদার হইয়া উঠিয়াছিল |
পারস্পরিক সহযোগিতায় একটা নূতন শিল্প সংস্কৃতির উদ্ভব হইল,
প্রাচীন কাল হইতে যাহা ভিন্ন --- অথচ যাহা স্পষ্টতই ভারতীয় |
স্থাপত্য, চিত্রকলায়, সঙ্গীতে নূতন নূতন সৃষ্টি সম্ভব হইল---
যাহা সংস্কৃতির এই দুইটি ধারার মধুর মিলনের প্রতীক হইয়া উঠিল |

.                *************************      

.                                                                             
সূচীতে . . .      


মিলনসাগর       
*
ভারতে নবজাগরণ         
নেতাজীর "ভারতের মুক্তি সংগ্রাম (১৯২০ - ১৯৪২)" প্রথম খণ্ডের "ভারতে নবজাগরণ"
অধ্যায়ের অংশবিশেষ | ১৯৮৮ সালে স্বাধীনতার ৪০ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে, কবি শান্তি সিংহ
সম্পাদিত এবং নিউ বেঙ্গল প্রেস দ্বারা প্রকাশিত, বাংলা কাব্যে ভারত-বিষয়ক কবিতার
অতি গুরুত্বপূর্ণ সংকলন - "স্বদেশ আমার" কাব্যগ্রন্থে প্রথম কবিতার আকারে প্রকাশিত
হয়....


রামকৃষ্ণ সর্বধর্ম সমন্বয়ের বাণী প্রচার করিয়াছিলেন
এবং এক ধর্মের সহিত অপর ধর্মের বিরোধ দূর করিতে বলিয়াছেন |
সমাজের অতি আধুনিক অনুকরণ-স্পৃহাকে নিন্দা করিয়াছেন |
মৃত্যুর পূর্বে, তিনি শিষ্যকে ভারত ও ভারতের বাহিরে
তাঁহার ধর্মোপদেশগুলির প্রচারকার্যের ভার
এবং স্বদেশবাসীদিগকে জাগাইয়া তুলিবার দায়িত্ব দিয়া যান |
ঐ উদ্দেশ্যে স্বামী বিবেকানন্দ সন্ন্যাসীদিগের আশ্রম রামকৃষ্ণ মিশন
.                                                       প্রতিষ্ঠা করেন---
যাহার লক্ষ্য ছিল ভারত ও ভারতের বাহিরে,
বিশেষতঃ আমেরিকায় হিন্দুধর্মের প্রকৃত রূপটি প্রচার করা ও তদনুযায়ী
.                                                                            চলা ;
উপরন্তু সুস্থ জাতীয় কার্যকলাপের প্রতিটি উদ্যোগকে
প্রেরণাদানে তিনি একটি সক্রিয় অংশ গ্রহণ করিয়াছিলেন |
তাঁহাদের নিকট ধর্ম ছিল জাতীয়তাবাদের প্রেরণার উত্স |
তিনি নব্য সম্প্রদায়ের মধ্যে ভারতের অতীতে গর্ববোধ,
তাহার ভবিষ্যতে বিশ্বাস এবং আত্মপ্রত্যয় ও
আত্মমর্যাদার চেতনা সঞ্চারিত করিবার জন্য চেষ্টা করিয়াছিলেন |
যদিও স্বামীজি কখনও কোনও রাজনৈতিক বাণী প্রচার করেন নাই,
তথাপি যে কেহ তাঁহার বা তাঁহার রচনাবলীর সংস্পর্শে আসিয়াছে,
তাহার মধ্যেই একটা দেশাত্মবোধ ও রাজনৈতিক মনোভাব গড়িয়া
.                                                                 উঠিয়াছে |
অন্ততঃ বাংলাদেশ সম্বন্ধে যতদূর বলা যায়,
স্বামী বিবেকানন্দকে আধুনিক জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের
আধ্যাত্মিক স্রষ্টা বলিয়া মনে করা যাইতে পারে |

.                *************************      

.                                                                             
সূচীতে . . .      


মিলনসাগর