কবি রাধাবল্লভ দাস - সম্ভবত শ্রীনিবাশ আচার্য্যর এক শিষ্য-দম্পতির পুত্র বলে অনেকে মনে করেন।

কবি রাধাবল্লভ সম্বন্ধে বৈষ্ণব পদাবলী “গৌরপদ-তরঙ্গিণীর” সংকলক এবং সম্পাদক জগবন্ধু ভদ্র লিখেছেন,
কাঞ্চনগড়িয়া গ্রামে সুধাকর মণ্ডল মানে পরম বেষ্ণব এ গৃহস্থ বাস করিতেন। তদীয় পত্নী শ্রীমতী শ্যামপ্রিয়া
দাসীএ অতি সুচরিত্রা ও কৃষ্ণৈকশরণা ছিলেন। এই ভক্ত-দম্পতি শ্রীনিবাসাচার্য্যের শিষ্য ও কিন্নর-কিন্নরী
ছিলেন। কর্ণানন্দে ইহার এইরূপ পরিচয় আছে ---

সুধাকর মণ্ডল প্রভুর ভৃত্য একজন।
তাঁর স্ত্রী শ্যামপ্রিয়া কৃপার ভাজন॥
তাঁর পুত্র রাধাবল্লভ মণ্ডল সুচরিত্র।
হরিনাম বিনা যাঁর নাহি অন্য কৃত্য॥

তথা প্রেম-বিলাসে---

সুধাকর মণ্ডল শ্যামপ্রিয়া পত্নী সহ।
শ্রীনিবাস আচার্য্য তাঁহে কৈলা অনুগ্রহ॥
তাঁর পুত্র রাধাবল্লভ, কামদেব গোপাল।
আচার্য্যের শাখা হয় পরম দয়াল॥
( নিত্যানন্দ দাস বিরচিত ‘প্রেম-বিলাস’ গ্রন্থের বিংশ বিলাস অধ্যায় - শ্রীনিবাসাচার্য্যের শাখার বর্ণন।)


যদুনন্দন দাস বিরচিত ‘কর্ণানন্দ’ গ্রন্থে আরও দুইজন রাধাবল্লভের নাম পাওয়া যায়। ---

শ্রীরাধাবল্লভ দাস প্রভুর সেবক।
মহাভাগবত তিঁহো ভজন অনেক॥

এবং

রাধাবল্লভ দাস ঠাকুর সরল উদার।
প্রভুর চরণ-ধ্যান অন্তরে যাঁহার॥
(যদুনন্দন দাস বিরচিত ‘কর্ণানন্দ’, প্রথম নির্যাস।)

প্রেমবিলাসে আরও রাধাবল্লভের উল্লেখ আছে। ---

সতীশচন্দ্র রায় তাঁর অপ্রকাশিত পদ-রত্নাবলীর ভূমিকায় লিখেছেন, “
রাধাবল্লভ অন্যতম শ্রেষ্ঠ পদ-কর্ত্তা
বলিয়া ‘কীর্ত্তনানন্দ’ গ্রন্থের সঙ্কলয়িতা গৌরসুন্দর দাস কর্ত্তৃক বিদ্যাপতি কবিরাজ” ইত্যাদি (পদরত্নাবলী ৮৮১
সংখ্যক) পদে প্রশংসিত হইয়াছেন।


দুর্গাদাস লাহিড়ী, ১৯০৫ সালে, তাঁর সম্পাদিত “বৈষ্ণব পদ লহরী” সংকলনে লিখেছেন, “
বল্লভদাস, রাধাবল্লভ
দাস এবং হরিবল্লভ দাস --- এই তিনজন বৈষ্ণবকবির পরিচয় পাওয়া যায়। ইঁহাদের তিনজনেরই ভণিতা
অনেকস্থলে ‘বল্লভদাস’ প্রদত্ত হইয়াছে। তন্মধ্যে ‘হরিবল্লভ দাস’ ১০৭০ সালে (১৬৬৩ খৃ) নদীয়া জেলার
অন্তর্গত দেবগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কৃষ্ণচরণ চক্রবর্ত্তী ইঁহার গুরু ছিলেন। অল্প বয়সেই ইঁহার সংসার
বৈরাগ্য জন্মায়। ইনি তখন সংসার ধর্ম্ম পরিত্যাগ করিয়া বৃন্দাবনবাসী হন হন। এই বৃন্দাবনে কৃষ্ণদাস
কবিরাজের কুটিতে আসিয়া ইনি শ্রীমদ্ভাগবত ও গীতা প্রভৃতির টীকা এবং ‘গৌরাঙ্গ লীলামৃত’, ‘চমত্কার
চন্দ্রিকা’ প্রভৃতি গ্রন্থ রচনা করেন। ‘রাধাবল্লভ দাস’ --- কাঞ্চনগরিয়া নিবাসী সুধাকর মণ্ডলের পুত্র। ইনি
কয়েকখানি সংস্কৃত কাব্যের পদ্যানুবাদ করিয়া কবিপদবাচ হইয়াছেন। ‘বল্লভদাস’ --- ইনি কবিরাজ
উপাধিধারী এবং বৈদ্যবংশ সম্ভুত। শ্রীনিবাসাচার্য্য ইঁহার দীক্ষাগুরু ছিলেন। ইনি বড়ই ভক্তিমান পুরুষ।
কুলীনগ্রামে ইঁহার নিবাস ছিল। শিবানন্দ সেন ইঁহার জ্ঞাতি হইতেন।


পদের সুর ও ছন্দের প্রয়োজনে হয়তো রাধাবল্লভ থেকে সংক্ষেপ করে “বল্লভ” করে থাকতে পারেন। এই
জন্য অনেক পদের রচয়িতার নাম সঠিক ভাবে জানার কোনো সম্ভাবনা নেই।  

আমরা প্রতিটি পদে, সেই পদেটির উত্স-গ্রন্থের নাম উল্লেখ করেছি। একাধিক ক্ষেত্রে একাধিক রূপে পাওয়া
একই পদ একত্রে তুলে দিয়েছি  তুলনার জন্য।  সংস্কৃত ভাষার  পদগুলির বাংলায় অনুবাদ বা ব্যাখ্যা হাতে
পেলেই তুলে দেওয়ার চেষ্টা করছি।

আমরা
মিলনসাগরে  কবি রাধাবল্লভ দাসের বৈষ্ণব পদাবলী আগামী প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে পারলে এই
প্রচেষ্টার সার্থকতা।

“বল্লভ”।    
"বল্লভ দাস"।    
“বীর বল্লভ দাস”।  
“বল্লভ দাসিয়া”।    
“দাস বল্লভী”।  
“শ্রীবল্লভ”।       
“রাধাবল্লভ”।    
“কবিবল্লভ”।    
“হরিবল্লভ”।      

কবি রাধাবল্লভ দাসের মূল পাতায় যেতে এখানে ক্লিক করুন।    



আমাদের ই-মেল -
srimilansengupta@yahoo.co.in     


এই পাতা প্রথম প্রকাশ - ২৩.৩.২০১৭                                                            
...
বৈষ্ণব পদাবলী নিয়ে মিলনসাগরের ভূমিকা     
বৈষ্ণব পদাবলীর "রাগ"      
কৃতজ্ঞতা স্বীকার ও উত্স গ্রন্থাবলী     
মিলনসাগরে কেন বৈষ্ণব পদাবলী ?     
*

এই পাতার উপরে . . .
*

এই পাতার উপরে . . .
*

এই পাতার উপরে . . .
*

এই পাতার উপরে . . .