কবি মনিরা খাতুন - জন্মগ্রহণ করেন বর্ধমান জেলার মেমারির কেন্না গ্রামে। পিতা আবদিন আলী মণ্ডল
এবং মাতা আসলেমা খাতুনের কবিই প্রথম সন্তান।

তাঁর শিক্ষাজীবন শুরু হয় কেন্না নিম্ন বুনিয়াদী বিদ্যালয়ে। সেখানে পঞ্চম শ্রেণী থেকে উত্তীর্ণ হবার পর ভর্তি
হন আঝাপুর উচ্চতর বিদ্যালয়ে এবং সেখান থেকে হায়ার সেকেণ্ডারী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর হুগলীর
মগরার শ্রী গোপাল ব্যানার্জী কলেজ থেকে স্নাতক হন এবং বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর এম.এ.
ডিগ্রী লাভ করেন।

খেলাধূলায় তিনি পারদর্শিতা অর্জন করেছিলেন, বিশেষ করে ভলিবল ও সাঁতারে। বর্ধমানে তিনি সাঁতার
সংস্থার কোচ ছিলেন। গ্রাম এলাকায় তিনি গড়ে তোলেন সুইমিং ক্লাবও।

১৯৮৬সালে তিনি বিবাহসূত্রে আবদ্ধ হন “নতুন গতি” পত্রিকার সম্পাদক এমদাদুল হক নূর এর সঙ্গে। তাঁদের
এক পুত্র ও এক কন্যা।

কবি তাঁর কর্মজীবনে মূলত শিক্ষকতার সঙ্গে জড়িয়ে থাকলেও বহু জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে কাজ
করেছেন বহু প্রতিষ্ঠানে। এর মধ্যে রয়েছে বর্ধমানের কলানবগ্রাম শিক্ষানিকেতনের সুপারিনটেডেন্ট, হাই
মাদ্রাসার সংগঠক শিক্ষিকা, নার্সারি স্কুল শিক্ষিকা, ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ ম্যানেজমেন্টের অধীনে
IPP-IV
প্রকল্পের কাজ, বর্ধমানের ডি.এম.-এর অধীনে মহিলা পরিচালিত ক্যান্টিনের কাজ প্রভৃতি। এসব কাজের পরে
শেষমেষ স্থায়ীভাবে শিক্ষকতার কাজে যোগ দেন কলকাতার ইয়াতিমখানার বালিকা বিদ্যালয়ে, ১৯৮৭সালে।

লেখালেখি শুরু করেন স্কুল জীবনেই। এম.এ. পড়াকালীন তিনি সান্ধ্য দৈনিক “পূর্বক্ষণ” পত্রিকার মহিলা
বিভাগের সম্পাদনা করেন। সেখানেই তাঁর কবিতা প্রথম প্রকাশিত হয়। কবিতা ছাড়াও সাহিত্যের অন্যান্য
শাখায় তাঁর সহজ বিচরণ।

তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে “জীবন যে দিকে”।

২০১৭ সালের ২৬শে নভেম্বর তারিখে, দক্ষিণ ২৪ পরগণার মহেশতলার, “প্রগতি পরিষদের” তরফে তাঁকে
সম্বর্ধিত করা হয় বাংলা অ্যাকাদেমির জীবনানন্দ সভা ঘরে অনুষ্ঠিত একটি অনুষ্ঠানে।

আমরা
মিলনসাগরে  মহম্মদ আলী সম্পাদিত “প্রগতি” পত্রিকাতে প্রকাশিত কবি মনিরা খাতুন-এর কয়েকটি
কবিতা পেয়ে এখানে তুলে আনন্দিত বোধ করছি।


উত্স - মহম্মদ আলী সম্পাদিত “প্রগতি” পত্রিকার বিভিন্ন সংখ্যা।
.        
  মহম্মদ আলী সম্পাদিত “প্রগতি” পত্রিকার ৫৬তম বর্ষপূর্তি (১৯৬২ - ২০১৭) এর স্মরণিকা।


কবি মনিরা খাতুন-এর মূল পাতায় যেতে এখানে ক্লিক করুন।      


আমাদের ই-মেল -
srimilansengupta@yahoo.co.in     


এই পাতা প্রথম প্রকাশ - ২.১১.২০১৭



...