কবি সুনন্দা গুহ রায়ের ছড়া ও কবিতা
*
পরান কাঁদে ভাই
কবি সুনন্দা গুহ রায়
এই কবিতাটি রাজেশ দত্ত সম্পাদিত ‘আবাদভূমি’ পত্রিকার দ্বিতীয় বর্ষ, ষষ্ঠ সংখ্যায়
(ফেব্রুয়ারী ২০১৬) প্রকাশিত হয়।


হাটের মাঝে বাস করি তাই
পরান কাঁদে ভাই –
হাটের মাঝে থাকতে নারি,
নির্জনতা চাই।
নানাজনের নানান কথায়
ব্যথায় ভরে মন,
ভিড়ের মাঝেই দিন কেটে যায়,
কোথায় আপনজন?
হাটের মানুষ সবাই চতুর
পাকা বেচাকেনায়!
তাদের কাছে নেইকো সময়
আপনজনে চেনায়।
চাই না আমার সওদাপাতি
কিছুতে কাজ নাই –
আপনজনে দাওগো আনি,
নির্জনেতে যাই।

.         ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
নস্ট্যালজিয়া
কবি সুনন্দা গুহ রায়
এই কবিতাটি রাজেশ দত্ত সম্পাদিত ‘আবাদভূমি’ পত্রিকার দ্বিতীয় বর্ষ, ষষ্ঠ সংখ্যায়
(ফেব্রুয়ারী ২০১৬) প্রকাশিত হয়।


জীবনের ফেলে আসা সেই দিনগুলি
পিছু ডাকে বারে বারে দুই বাহু তুলি।
বলে যেন আয় ফিরে, এই পথ দিয়া।
তোমরা তাকেই বল নস্ট্যালজিয়া?
জানি আমি সে তো কভু
হবে নাকো সাধা,
হারানো গানের কলি
নব সুরে বাঁধা।
ফেলে আসা জীবনের পথ সুমধুর
আমা হতে সরে গেছে
দূর বহুদূর –
হারানো পথের বাঁকে
কেঁদে মরে হিয়া।
তোমরা তাকেই বল নস্ট্যালজিয়া?

.           ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
শৈশব
কবি সুনন্দা গুহ রায়


চাই না মোতির মালা,
সোনাদানা ওই সব।
বারে বারে দাও ফিরে
সোনাঝরা শৈশব।
ভালো যে বাসতে জানে,
হাসতে হাসাতে জানে
চিরদিন তার ঘরে
দীপাবলি উৎসব।
আমায় দাও গো ফিরে
হারানো সে শৈশব।

.        ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
পদ্ম গোলাপ
কবি সুনন্দা গুহ রায়


ছড়ার পদ্ম, ছড়ার গোলাপ
ছড়িয়ে ঘাসে ঘাসে,
ছড়ার পদ্ম, ছড়ার গোলাপ
আকাশে বাতাসে।
মূল্য দিয়ে যায় না কেনা
অমূল্য এই ছড়া,
মন কুসুমের গন্ধে যেন
পদ্ম গোলাপ গড়া।
এসো এসো সোনার খোকা
সোনার খুকু সবে,
ছড়ার পদ্ম, গোলাপ দিয়ে
মাল্য গাঁথা হবে।
সেই মালারই সুবাসেতে
ভরবে সকল ধরা,
ছড়ার পদ্ম, ছড়ার গোলাপ
সবার প্রাণহরা।

.         ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
মেঘপরী ফুলপরী
কবি সুনন্দা গুহ রায়


মেঘের দেশে যাবে কি ভাই?
মেঘপরীরা আছে যেথায়।
যখন তখন গান ধরে সব
মেঘমল্লার রাগে।
ফুলপরীদের দেশে চল,
ফুলে ফুলে ঢল ঢল।
ফুলপরীদের মেঘপরীদের
আমার ভালো লাগে।
নাইকো সেথায় দুঃখ কিছু,
নাইকো উঁচু, নাইকো নীচু।
সবাই সেথা সবার আপন
রাগে অনুরাগে।
মেঘপরীদের ফুলপরীদের
তাইতো ভালো লাগে।

.        ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
আমরা যে চাই
কবি সুনন্দা গুহ রায়


দাদু দিদা ঠাম্মাকে
কোথায় যে পাই?
একে একে কোথা তারা
হারালো সবাই?
ব্যাঙ্গমা ব্যাঙ্গমী রূপকথা যত
কোথায় মিলালো সব ভোজবাজি মতো!
গল্প বলবে কে বা, সময় তো নাই।
দাদু দিদা ঠাম্মাকে তাই মোরা চাই।

.            ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
আমরা কজনা
কবি সুনন্দা গুহ রায়


বাবার মুখের ছবি
যেন ভোরবেলাকার রবি।
আমি রোজ সকালে তাই
তাঁকেই যেন পাই।

আমার মায়ের হাসি
যেন শিউলি রাশি রাশি।
আমি মনে মনে তাই
মাকে সারা জনম চাই।

ছোটো আমার দিদি এবং
আমি যে তার ভাই।
এই কজনায় মিলে মোরা
জীবন তরী বাই।

.      ***************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
ভাবছে খুকু
কবি সুনন্দা গুহ রায়


একলা বসে ভাবছে খুকু
আকাশ কতো নীল।
সোনারোদের আলোয় কেমন
করছে সে ঝিলমিল।
কে বানালো এমন আকাশ
সোনাঝরা আলো?
কে শেখালো এমন করে
বাসতে সবায় ভালো?
বসে বসে ভাবো খুকু,
ভাবনার দীপ জ্বালো।
মনের আকাশ ভরবে আলোয়
ঘুচবে সকল কালো।

.      ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
থাকতো যদি মা
কবি সুনন্দা গুহ রায়


যাচ্ছে হাতি হেলেদুলে
ঠমক ঠমক চালে।
সোনা ব্যাঙের ছোট্টো ছানা
পড়ল পায়ের তলে।
হাতির পায়ের লাথি খেয়ে
ছিটকে গেল দূরে।
বললো হাতি, “ভাগ্য ভালো
খুব বেঁচেছিস ওরে --
আবার যদি আসিস কভু
আমার চলার পথে,
বাঁচার আশা রইবে না আর
জানিস কোনও মতে।“

হাতি গেল নিজের মনে
যাচ্ছিল সে যেথা।
ব্যাঙের ছানা পথের ধারে
কাঁপছে ভয়ে হেথা।
মনে মনে ভাবছে কেবল --
থাকতো যদি মা,
আমায় লাথি মেরে হাতি
পারটি পেতো না।

.       ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর
*
পড়ব কেতাব
কবি সুনন্দা গুহ রায়


গাং-শালিকের ছানা
বলছে ডেকে তার বাবাকে,
ঊড়ব না - না - না - না।
মানুষ বাচ্ছা পড়ছে শুধু,
আমার তরে আকাশ ধু ধু।
শিখব এবার লেখাপড়া।
ভাল্লাগে না শুধুই ওড়া।
কাগজ কলম বই নে এসো,
পড়ব কেতাব নানা।

.       ****************       
.                                                                               
সূচীতে . . .   


মিলনসাগর