মিলনসাগরে  কবি সিদ্ধার্থ সিংহের কবিতা তুলে আমরা আনন্দিত।



কবির সঙ্গে যোগাযোগ -
ঠিকানা - সিদ্ধার্থ সিংহ, ২৭/পি আলিপুর রোড, কলকাতা ৭০০০২৭।
চলভাষ : +৯১৯৮৩৬৮৫১৭৯৯,  +৯১৮৭৭৭৮২৯৭৮৪
ইমেল -  
siduabp@gmail.com      
ফেসবুক -
https://www.facebook.com/SiddharthaSinghaofficial/    
https://www.facebook.com/siddhartha.singha.33qwyql    



উত্স -  
  •    ইমেলে যোগাযোগ।



কবি সিদ্ধার্থ সিংহের মূল পাতায় যেতে এখানে ক্লিক করুন


আমাদের ই-মেল
- srimilansengupta@yahoo.co.in     


৩৯টি কবিতা নিয়ে এই পাতার প্রথম প্রকাশ - ২৭.৭.২০১৯।


...

কবির শিক্ষাজীবন শুরু হয় চেতলা বয়েজ হাইস্কুল থেকে। সেখান থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে নিউ
আলিপুর কলেজ থেকে স্নাতক হয়ে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন।

ক্লাস নাইনে পড়ার সময়ই তাঁর প্রথম কবিতা ছাপা হয় 'দেশ' পত্রিকায়। প্রথম ছড়া 'শুকতারা'য়। প্রথম গদ্য
'আনন্দবাজার'-এ। প্রথম গল্প 'সানন্দা'য়, যা নিয়ে রাজনৈতিক মহল তোলপাড় হয়। মামলা হয় পাঁচ কোটি  
টাকার। এই ঘটনাটি বিস্তারিতভাবে নীচে দেওয়া হয়েছে।
কবি সিদ্ধার্থ সিংহ - ২০১২ সালের
"বঙ্গ শিরোমণি" সম্মানে ভূষিত, কবি
সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। মাতা
পরমেশ্বরী পারুলরানি সিংহ।
কবির কর্মজীবনের শুরু এবং ৫ কোটি টাকার মামলা   
কবি সিদ্ধার্থ সিংহের রচনাসম্ভার   
সঙ্গীত নির্দেশক সিদ্ধার্থ সিংহ   
কবির প্রাপ্ত সম্মাননা    
.
কবির কর্মজীবনের শুরু এবং ৫ কোটি টাকার মামলা -                           পাতার উপরে . . .  
তাঁর কর্মজীবন শুরু হয় রাজনৈতিক মহল তোলপাড় করা একটি তুলকালাম ঘটনার মধ্যে দিয়ে!
তখনও তাঁর চাকরি হয়নি। আনন্দবাজার সংস্থায় লিখে লিখে রোজগার করেন। “সানন্দা” থেকে প্রতি   
পাক্ষিকে মোটামুটি হাজার তিনেক টাকা করে পেতেন। কিন্তু উত্তমকুমারকে নিয়ে তথ্যচিত্র বানাতে গিয়ে সে
সংখ্যায় কিছুই লেখা হয়নি। না লিখলে তো টাকা পাবেন না! বিভাগীয় প্রধানকে বলতেই উনি বললেন, “কাল
তো পাতা ছাড়া। তা হলে একটা গল্প লিখে কাল সকাল এগারোটার মধ্যে পিটিএসে দি
য়ে যা।” জীবনের প্রথম
গল্প লিখলেন। যে দিন বেরোলো কোথাও কোনও স্টলেই “সানন্দা” নেই! শুনলেন যে কারা নাকি গাড়ি নিয়ে
এসে সমস্ত “সানন্দা” কিনে নিয়ে গেছে। বাড়ি ফিরতেই এক ডাকসাইটে কংগ্রেসি নেতা কাম এমএলএ, দলবল
নিয়ে এসে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়। "তুই আমাকে নিয়ে লিখেছিস?" বলে মারধোর করে। সে খবর সমস্ত  
পত্রিকার প্রথম পাতায় ফলাও করে ছাপা হয়। তার পর মামলা, সেই নেতা মানহানির মামলা করে অপর্ণা
সেন, অরূপ সরকার, বিজিৎকুমার বসু,  সুদেষ্ণা রায় আর কবি সিদ্ধার্থ সিংহের বিরুদ্ধে এক কোটি করে
মোট পাঁচ কোটি টাকার! সে মামলা কবির হয়ে লড়ে আনন্দবাজার সংস্থা। তখনই তাঁকে ডেকে চাকরি দেয়
আনন্দবাজার। কথাসাহিত্যিক রমাপদ চৌধুরীর সহকারী হিসেবে তিনি রবিবাসরীয়তে যোগ দেন।
.
কবি সিদ্ধার্থ সিংহের রচনাসম্ভার -                                                      পাতার উপরে . . .  
প্রবন্ধ, গল্প, উপন্যাস, নাটক, কবিতা, সাহিত্যের সকল ক্ষেত্রেই কবির সহজ বিচরণ।

ছোটদের জন্য যেমন সন্দেশ, আনন্দমেলা, কিশোর ভারতী, চির সবুজ লেখা, ঝালাপালা, রঙবেরং, শিশুমহল
ছাড়াও বর্তমান, গণশক্তি, রবিবাসরীয় আনন্দমেলা-সহ সমস্ত দৈনিক পত্রিকার ছোটদের পাতায় লেখেন,
তেমনি বড়দের জন্য লেখেন কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটক, প্রবন্ধ এবং মুক্তগদ্য।

'
রতিছন্দ' নামে এক নতুন ছন্দের প্রবর্তন করেছেন তিনি।

কবি সিদ্ধার্থ সিংহের প্রথম প্রকাশিত
গদ্য আনন্দবাজার পত্রিকায়, নাম “ভাই-বোনের বিয়ে”। প্রথম গল্প
সানন্দায়, “বাঁ হাতের বুড়ো আঙুল”, যে গল্পটিকে নিয়ে উপরোক্ত “পাঁচ কোটি টাকার মামলা” হয়!

কবির রচনাসম্ভার বিশাল। এই পাতার প্রথম প্রকাশের সময়ে কবির প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৪৪টি। তার
বেশির ভাগই অনুদিত হয়েছে বিভিন্ন ভাষায়। বেস্ট সেলারেও উঠেছে সে সব।

তাঁর উল্লেখযোগ্য
শ্রুতিনাটকের বই “নির্বাচিত শ্রুতিনাটক” (তেহাই প্রকাশনী / ২০১১)।

উল্লেখযোগ্য
প্রবন্ধের বই “নির্বাচিত প্রবন্ধ” (দি রয়েল পাবলিশার্স, ঢাকা / ২০১৯), “পদবিনামা” (নান্দনিক /
২০১০), “প্রবন্ধ না-প্রবন্ধ” (ব্লীস / ২০১৫), “নির্বাচিত গদ্য” (পূজা বুক হাউস /২০১২) প্রভৃতি।

উল্লেখযোগ্য
বিষয়ভিত্তিক বইয়ের মধ্যে রয়েছে “রহস্যময় দ্বীপ” (জ্ঞানপীঠ পাবলিকেশন /২০১১),  
“বিশ্বখ্যাতদের বিচিত্র জীবন” (আনন্দ প্রকাশন / ২০০৯), “রসেবসে গোপাল ভাঁড়” (বুলবুল প্রকাশন / ২০১৩),  
“মেয়েদের জোকস” (ইউনিভার্সাস লেজার গ্রাফিক্স / ২০১৪) প্রভূতি।

তাঁর উল্লেখযোগ্য
গল্প-গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে “পঞ্চাশটি গল্প” (আনন্দ পাবলিশার্স / ২০১৭), “সেরা গল্প” (দেশ
প্রকাশন / ২০১০), “সিগ্ধার্থ সিংহের গল্প” (নতুনপথ প্রকাশনী / ২০১৫), “রঙিন গল্প” (শৈব্যা প্রকাশন /২০১৫),
“বাঁ হাতের বুড়ো আঙুল” (সৃষ্টি প্রকাশন / ২০০১), “দশ ডজন অণুগল্প” (একুশ শতক / ২০১৩), “১২ সিদ্ধার্থ”
(গার্গী প্রকাশনী /২০১৬) প্রভূতি।

কবির উল্লেখযোগ্য
উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে “নামগোত্রহীন” (প্রিটোনিয়া /২০১৫), “আত্মসম্মান” (বুলবুল  
প্রকাশন / ২০১২), “কাচের ঘর” (গার্গী / ২০১১), “কাঁটাতার (গার্গী / ২০১২), “দাগ” (মণিকুন্তলা / ২০১০), “ত্রাতা”
(মণিকুন্তলা / ২০১৪), “লাস্যময়ীর ছোবল” (একসঙ্গে কলকাতার চায়না পাবলিকেশন / ২০১৯ এবং  
বাংলাদেশের রিদম প্রকাশন সংস্থা / ২০১৯) প্রভৃতি।

কবির উল্লেখযোগ্য
ছোটদের গল্পের বইয়ের মধ্যে রয়েছে “৫১ ছোটদের ছোট গল্প” (নিউ বেঙ্গল প্রেস প্রা:
লি: / ২০১২), “অলৌকিক” (শৈব্যা প্রকাশন বিভাগ / ২০১১), “বড় মামার বাঘ শিকার” (একসঙ্গে কলকাতার
দীপ প্রকাশন / ২০০৭ এবং বাংলাদেশের বলাকা প্রকাশন / ২০১৮), “ভারতীয় লোককাহিনী” (সৃজনী /২০১৯),
“সেই ভয়ঙ্কর গাছ” (দীপ প্রকাশন / ২০০৯), “২৫টি কিশোর গল্প” (শৈব্যা প্রকাশন  বিভাগ /২০১২),   
“অরণ্যকিরণ ও তরুলতা” (পারফেক্ট /১৪১৩), “ব্ল্যাকবোর্ডে ভূত” (দীপ প্রকাশন / ২০০৮), “মানুষ হওয়ার গল্প”
(এডুকেয়ার পাবলিশিং / ২০১২), “বার্মুডা রহস্য” (ব্লীস্ /২০১৫), “ভূতের দেশে” (সাগর বুকস / ২০১৪) প্রভৃতি।

কবির রচিত
কিশোরদের উল্লেখযোগ্য রহস্য উপন্যাসের মধ্যে “চোরা সুরঙ্গ” (একসঙ্গে কলকাতার  
মন্দাক্রান্তা /২০১৭ আর বাংলাদেশের রিদম প্রকাশনা সংস্থা / ২০১৯), “তৃতীয় চোখ” (প্রিটোনিয়া / ২০১৩),
“অভিশপ্ত বারমুডা ট্র্যাঙ্গেল” (চায়না পাবলিকেশন / ২০১৮) প্রভৃতি।

কবি সিদ্ধার্থ সিংহের প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য
কাব্যগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে “দোহাই আপনার” (আনন্দ  
পাবলিশার্স / ২০০৯), “জগন্নাথ বসু ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায় নির্বাচিত সিদ্ধার্থ সিংহের আবৃত্তির কবিতা” (গার্গী
/২০১৪), “অণুকবিতা” (তেহাই প্রকাশনী / ১৪১৬), “মণিপর্ব” (তেহাই প্রকাশনী / ১৪১৭), “মুকুটে পালক নেই”  
(সৃষ্টি প্রকাশনী / ১৪০৮), “নিজের হাতে আইন তুলে নেবেন না” (প্রথম আলো / ২০০০), “শোকপ্রস্তাব”  
(পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অর্থানুকুল্যে / কবিপত্র প্রকাশনী / ১৯৮৮), “রতিছন্দের কবিতা” (নান্দনিক /
১৪১৬), “ও মশাই শুনছেন” (মণিকুন্তলা / ২০১১) প্রভৃতি।

এবং

কবির উল্লেখযোগ্য
ছড়ার বইয়ের মধ্যে রয়েছে “ছড়াছবি ৬০খানা” (বিকাশ গ্রন্থ ভবন / ২০০৮), “একাই
একশো” (তেহাই প্রকাশনী /২০১১)।

এ ছাড়া কবি সিদ্ধার্থ সিংহ যৌথ ভাবে পাঁচশোর ওপরে সংকলন সম্পাদনা করেছেন
লীলা মজুমদার,  
রমাপদ চৌধুরী,
নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, মহাশ্বেতা দেবী, শংকর, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়,  
সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়, সুচিত্রা ভট্টাচার্য,
নবনীতা দেবসেন, রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়দের সঙ্গে।

তাঁর লেখা নাটক বেতারে প্রচারিত তো হয়ই, মঞ্চস্থও হয় নিয়মিত। তাঁর কাহিনী নিয়ে ছায়াছবিও হয়েছে
বেশ কয়েকটি। গান তো লেখেনই। তাঁর ইংরেজি এবং বাংলা কবিতা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে কয়েকটি সিনেমায়।

বানিয়েছেন দুটি
তথ্যচিত্র, “মহানায়ক উত্তমকুমার” এবং “মেট্রোরেল”।

তাঁর লেখা পাঠ্য হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদে।

সিদ্ধার্থ সিংহের “রমাপদ চৌধুরীকে আমি যেমন দেখেছি” লেখাটি গল্পেরসময়.কম ওয়েবসাইটে পড়তে  
এখানে ক্লিক করুন . . .
.
সঙ্গীত নির্দেশক সিদ্ধার্থ সিংহ -                                                          পাতার উপরে . . .  
কবি সিদ্ধার্থ সিংহ কোনও ইনস্ট্রুমেন্ট বাজাতে জানেন না। তিনি গানও শেখেননি। কিন্তু গীতিকার  
গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার, গায়ক পিন্টু ভট্টাচার্য, সুরকার নীতা সেন এবং পারিবারিক পরিবেশই তাঁর শ্রবণেন্দ্রিয়
তৈরি করে দিয়েছিল। সেই সুবাদেই প্রাকৃতিক শব্দঝঙ্কার যেমন, বৃষ্টির শব্দ,  সমুদ্রের গর্জন,  পাখির ডাক,
ট্রেন চলার শব্দ, খেলার মাঠে চিৎকার জাতীয় শব্দ অ্যাসেম্বলিং করেই তিনি মিউজিক দেন। মিউজিক  
ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছেন বেশ কয়েকটি বাংলা ছবিতে। তাঁর সঙ্গীত নির্দেশনায় প্রথম সিনেমা---
“ইনহিউম্যানিটি”।
.
কবির প্রাপ্ত সম্মাননা -                                                                     পাতার উপরে . . .  
কবি সিদ্ধার্থ সিংহের প্রাপ্ত সম্মাননার মধ্যে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ
দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, সন্তোষকুমার ঘোষ স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা  
লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, নতুন গতি পুরস্কার, ড্রিম লাইট অ্যাওয়ার্ড, কমলকুমার মজুমদার  
জন্মশতবর্ষ স্মারক সম্মান, কবি সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য
পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার সহ  
আরও বহু পুরস্কার। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা,  
২০১২ সালের 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মান এবং ১৪২৫ সালের মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার।