দ্বিজ চণ্ডীদাসের পদাবলী
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
১।   শ্যামসুন্দর       
২।   
শ্রীকৃষ্ণের বাঁশী
৩।   প্রেমের তুলনা
৪।   সই কে বা শুনাইল             
৫।   
রাধার কি হৈল অন্তরে ব্যথা
৬।   দূতী-সম্বোধন        



         
      
         
*
শ্যামসুন্দর

সুধা ছানিয়া কেবা          ও সুধা ঢেলেছে রে
তেমতি শ্যামের চিকণ দেহা
|
অঞ্জন রঞ্জিয়া কেবা          খঞ্জন বসাইল রে
চাঁদ নিঙ্গাড়ি কৈল থেহা
||
থেহা নিঙ্গাড়িয়া কেবা          মুখানি বনাইল রে
জবা নিঙ্গাড়িয়া কৈল গণ্ড
|
বিম্বফল জিনি কেবা          ওষ্ঠ গড়িল রে
ভুজ জিনিয়া করিশুণ্ড
||
কম্বু জিনিয়া কেবা          কণ্ঠ বনাইল রে
কোকিল জিনিয়া সুস্বর
|
আরদ্র মাখিয়া কেবা          সারদ্র বনাইল রে
ঐছন দেখি পীতম্বর
||
বিস্তারি পাষাণে কেবা          রতন বসাইল রে
এমতি লাগয়ে বুকের শোভা
|
কানড়-কুসুমে কেবা          সুষম করিল রে
এমতি তনুর দেখি আভা
||
আদলি উপরে কেবা          কদলী রোপল রে
ঐছন দেখি ঊরুযুগ
|
অঙ্গুলি উপরে কেবা          দর্পণ বসাইল রে
চণ্ডীদাস দেখে যুগ যুগ
||


***********
উপরে
*
শ্রীকৃষ্ণের বাঁশী

কালা গরলের জ্বালা          আর তাহে অবলা
তাহে মুঞি কুলের বৌহারী
|
অন্তরে মরম ব্যথা          কাহারে কহিব কথা
ঘুপতে সে গুমরিয়া মরি
||

সখি হে বংশী দংশিল মোর কানে |
ডাকিয়া চেতন হরে          পরাণ না রহে ধড়ে
তন্ত্র মন্ত্র কিছুই না মানে
||
মুরলী সরল হয়ে          বাঁকার মুখেতে রয়ে
শিখিয়াছ বাঁকার স্বভাব
|
দ্বিজ চণ্ডীদাস কয়          সঙ্গদোষে কি না হয়
রাহুমুখে শশী মসি লাভ
||


***********
উপরে
*
প্রেমের তুলনা

এমন পিরীতি কভু দেখি নাই শুনি |
পরাণে পরাণ বাঁধা আপনা আপনি ||
দুহুঁ কোরে দুহুঁ কাঁদে বিচ্ছেদ ভাবিয়া |
তিল আধ না দেখিলে যায় যে মরিয়া ||
জল বিনু মীন জনু কবহুঁ না জীয়ে |
মানুষে এমন প্রেম কোথা না শুনিয়ে ||
দুগ্ধে আর জলে প্রেম কিছু নাহি স্থির |
উথলি উঠিলে দুগ্ধ জল পাইলে ধীর ||
ভানু কমল বলি সেহ হেন নহে |
হিমে কমল মরে ভানু সুখে রহে ||
চাতক জলদ কহি সে নহে তুলনা |
সময় নহিলে সে না দেয় এক কণা ||
কুসুমে মধুপে কহি সেহ নহি তুল |
না আইলে ভ্রমর আপনি না যায় ফুল ||
কি ছার চকোর চাঁদ দুহুঁ সম নহে |
ত্রিভূবনে হেন নাহি চণ্ডীদাস কহে ||

***********
উপরে
*
সই কে বা শুনাইল

সই কে বা শুনাইল শ্যাম নাম |
কানের ভিতর দিয়া          মরমে পশিল গো
আকুল করিল মোর প্রাণ
||
না জানি কতেক মধু          শ্যাম-নামে আছে গো
বসন ছাড়িতে নাহি পারে
|
জপিতে জপিতে নাম          অবশ করিল গো
কেমনে পাইব সই তারে
||
নাম-পরতাপে যার          ঐছন করিল গো
অঙ্গের পরশে কি বা হয়
|
যেখানে বসতি তার          নয়নে দেখিল গো
যুবতী-ধরম কৈছে রয়
||
পাসরিতে করি মনে          পাসরা না যায় গো
কি করিব কি হবে উপায়
|
কহে দ্বিজ চণ্ডীদাসে          কুলবতী কুল নাশে
আপনার যৌবন যাচায়
||

***********
উপরে
*
রাধার কি হৈল অন্তরে ব্যথা

রাধার কি হৈল অন্তরের ব্যাথা |
বসিয়া বিরলে          থাকায়ে একলে
না শুনে কাহারো কথা
||
সদাই ধেয়ানে          চাহে মেঘ-পানে
না চলে নয়ান-তারা
|
বিরতি আহারে          রাঙাবাস পরে
যেমত যোগিনী-পারা
||
এলাইয়া বেণী          ফুলের গাঁথনি
দেখায়ে খসায়ে চুলি
|
হসিত বয়ানে          চাহে মেঘ-পানে
কি কহে দুহাত তুলি
||
একদিঠ করি          ময়ূর-ময়ূরী
কন্ঠ করে নিরিক্ষণে
|
চণ্ডীদাস কয়          নব পরিচয়
কালিয়া-বঁধুর সনে
||

***********
উপরে
*
দূতী-সম্বোধন

দিবস রজনী          গুণ গণি গণি
কি হৈল অন্তরে ব্যথা
|
খলের বচনে          পাতিয়া শ্রবণে
খাইনু আপন মাথা
||
শুন শুন দূতী          কি কহ মো প্রতি
বচন না লাগে ভাল
|
সে ছার পিরীতি          ভাবিতে ভাবিতে
সোনার বরণ কাল
||
বিষের গাগরী          ক্ষীরে মুখ ভরি
কে না আনি দিল আগে
|
করিনু আহার          না করি বিচার
এ বধ কাহারে লাগে
||
নীরলোভে মৃগী          পিয়াসে ধাইতে
ব্যাধ শর দিল বুকে
|
জলের সফরী          আহার করিতে
বঁড়শী লাগিল মুখে
||
জলদ নেহারি          পিয়াসে চাতকী
চঞ্চু পসারল আশে
|
বারিদ বারণ          করল পবন
কুলিশ মিলিল শেষে
||
ক্ষীর নাড়ু করি          বিষে মাখাইয়া
অবলা বালাকে দিল
|
সুস্বাদু পাইয়া          খাইতে খাইতে
নিকটে মরণ ভেল
||
যখন আছিল          সুদিন আমার
তখন আছিল কোলে
|
এবে করি সাধ          দেখিতে না পাই
হারাইনু করম ফলে
||
লাখ হেম পায়্যা          যতনে বাঁধিতে
পড়ল অগাধ জলে
|
হেন অনুচিত          করে পাপ বিধি
দ্বিজ চণ্ডীদাস বলে
||  

***********
মিলনসাগর
উপরে