কবি বাণী নিয়োগীর কবিতা
www.milansagar.com
*
*.
কত কিছু বলার ত' থাকে।
সব কথা বলা হয় কবে।
ঝড়ে পরা ফুলের মতন
কথা গুলো ঝরে পড়ে যাবে।
কত কথা প্রিয় হয়ে ফোটে
হয় মন আনন্দে ভরা,
সেই প্রিয় কথাগুলি দিয়ে
জীবনটা হোক তবে গড়া।
শুধু ভালবাসা আর শুভ ভাবনা
সকলের তরে হোক হৃদি সুধা ভরা --
এ হলেই পূর্ণ হবে সকল সাধনা
ভালো হোক, শুভ হোক, স্বর্গ হোক ধরা।

********
*.
শোন, সত্যি আমার মন খারাপ হয়েছে
যদি কিছু দিতে পারি তোমাদের হাতে
উজ্জ্বল মিষ্টি হাসি, যদি মেলে তাতে --
সেই মোর শ্রেষ্ঠ পুরস্কার,
তার বেশী কিছু নাহি চাহি আর।
কবির ভাষায় বলি -" তোমারে যা দিতে পারি
সামান্য সে দান
-- হোক্ ফুল, হোক্ তাহা গান। "
তবে তাই হোক্,
গানে গানে রচে দিই --
নব আনন্দলোক ---

********
*.
মিল নেই,
হবেও না আর কোনদিন।
প্রতিক্ষণে ছুটে যাওয়া ঝর্ণার মত --
তোদের অবিরাম চলা।
আমি আছি বদ্ধ ডোবা হয়ে।
জড়ত্বের ছাপ রন্ধ্রে রন্ধ্রে।
এখন শুধু পর্তীক্ষা,
এখন শুধু প্রার্থনা --
সুস্থ দেহে পরিশ্রম ক্লান্ত মনগুলি
কখন ফিরে আসবে আমার কাছে --
কখন বলবে, " কেমন আছ ?"
" মা ওষুধ খেয়েছ ?"
" দিম্মু ঠিক আছ ত' ?"

********
*.
পাকা কাঁঠালের গন্ধ --
গন্ধ ছড়িয়েছে রাস্তায়, ঘরে।
সব কাঁঠালই ত' কাল চালান হ'ল
এ দিক সেদিকে।
গন্ধ আসছে কোথা থেকে ?
গাছের কাছে গিয়ে তীব্রতা বাড়ল।
তখন, গাছকেই প্রশ্ন করি --
" এ কি তোমার গায়ের গন্ধ ?
তুমিই কি বাতাসে তোমার গায়ের গন্ধ
ছড়িয়ে দিচ্ছ?"
পাতা নেড়ে গাছ আমার প্রশ্নের উত্তর দিল --
" হ্যাঁ " -- সে ই চারিদিকে ছড়িয়ে দিচ্ছে
তার গায়ের গন্ধ --
যেমন ফুল তার গন্ধ ছড়ায়।
কি আশ্চর্য্য এক সত্যের মুখোমুখি
দাঁড়িয়ে আমি -- বিস্মিত, নির্বাক।

********
তুমি চাও বা না চাও --
আমার প্রাণ চাইছে,
তুমি ডাকো বা নাই ডাকো --
( ভোরের প্রথম ডাকটি,
যেমন সারা জাগিয়ে তোলে
অন্য পাখির বুকে )
ঠিক তেমন করেই
আমার বুকে সাড়া জাগালো --
তোমার ডাক --
কে তুমি চিনি না,
ডাক টাও আমাকে নয় --
তবু মন কেমন অশান্ত
হয়ে ওঠে ।
তৃতীয়াংশ পার করা শতকগামী --
জড়ত্বের গাঢ় আলিঙ্গনে
সন্ত্রস্ত আমি
তবুও মন সাড়া দিতে চায়,
আমি যে কবিতা ভালবাসি।

*************