গোপন সুদূর ভাববিলাসীর হালকা খেলায় শুধু ;
অদৃশ্য দেশ তবু কেঁদে যায়--- জানালার শিকে মাথা,
দেরাজ-টেবিল সবকিছু ভেঙে মায়ামানুষের ক্ষোভ,
জীবন শুধুই জেগে থাকা একা জীবনের পেয়ে ব্যথা !
ক্ষমাহীন রোদ তবু চঞ্চল কাছে চেয়ে ঘন লোভ-----
যে লোভ শরতে যে লোভ গ্রীষ্মে ---  সব পরিচিত ঋতু
যেই লোভ খোঁড়ে মুক্তার মতো জলের অন্তরাল----
এই জীবনের খুশীহীন স্বর তার কাছে টেনে ----- ‘ভীতু’
ব’লে দূর ক’রে মুগ্ধ শহরে ছিঁড়ে ফ্যালে ঘন জাল ||

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষের কবিতা
*
ক্রমশ কেমন অস্থির দ্যুতি ভেঙেছে রঙের ছবি
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
৩০ / ৬ / ৬৭

ক্রমশ কেমন অস্থির দ্যুতি ভেঙেছে রঙের ছবি
অবেলার প্রেম এখনো
তুমি সারারাত কাছে
তবুও বাহিরে অচেনার
সময়েও থাকে অতর্কিতের
এমনি কি তুমি চিরদিন
চিরদিন ধরে করতল
পারিপার্শ্বিক শুধু প’ড়ে
খোঁজ ক’রে যাও ফাঁপা
তবুও বুকেতে অবেলার
রৌদ্রের লোভ সাগরে
জানালার কাছে মাথা
অবেলার প্রেম তবুও
যেখানে ক্লান্ত হৃদয় গিয়েই

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
সেখানের দর্শক শুধু,  সেখানের জাদুঘর ভরা
শুধু হাড়, শুধু ওষ্ঠ, শুধু স্তন-যোনি আর শেষ-----
অপরূপ হরিণের শৃঙ্গ কিছু বাঁধানোও আছে !
লাল-নীল মাছেদের গল্পও রয়েছে ----
তবুও সাম্রাজ্য জুড়ে ক্রন্দনের তিক্ত কালো রোল
তবুও মানুষ মরে খাদ্যহীন হয়ে
এবং বিবর্ণ কষ্ট রেখে যায় পেছনের অব্যক্ত সন্মোহ |

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
তোমার মুমূর্ষু চোখ,
গল্পহীন ওষ্ঠ শুধু জেগে থাকে নিজে
রূপকথা মায়াবীর চারপাশে বড় বেশি স্পষ্ট জানা আজ |
চতুর্দিকে স্বর ওঠে,  তবুও তো নির্বিকার তোমার আপন
শরীরের দাবি তার ভগ্নউরু যুদ্ধযাত্রা বহু দূর এপিকের মতো
রেখেছে স্বয়ং ফেলে, জন্মাবার আগে থেকে মৃত্যুর গম্ভীর ধ্বনি
.                                                             একান্ত আপন |
তোমাকে নিজের চাই এত সব মনে রেখে, আমার মৃত্যুর ক্ষণ ভুলে
এইসব পৃথিবীর ঝঞ্ঝার গভীর তলদেশে
আরেক ঝঞ্ঝাকে চেয়ে বিদগ্ধ শ্রমিক হয়ে গুরুভার অন্ধকারে
আর কোনো ভুল নয়, আর কোনো খ্যাতি নয়--- পিপাসার সুখ চাই
.                                                                নিবিড় সর্বাঙ্গে
রক্তে রক্তে মৃত্যু শুধু ধরা দেবে নিজে এসে বাহির মৃত্যুর কথা ভুলে |

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
শরীরের লীলাখেলা ভেদ করে আর এক শরীরের কাছে |

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
আমাদের ভয় ভুল সবকিছু হত্যা করে আবার মানুষ
নিজের আপন ভেবে আলিঙ্গনে মগ্ন হয়ে গাঢ় সান্ত্বনার
খোঁজ পাওয়া, সুচতুর বিলাসীর ওষ্ঠের নিকটে
একাকী রক্তিম মুখে গল্প শুনে সব ভয় ত্যাগ করে যাওয়া ||

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
অবশেষে ঝ’রে যাওয়া চাঁদের জলেতে মোমফুল
এক বিবেকীর লগ্ন ভেঙে দিয়ে গভীরের সাড়া |
তখনো সে রাত্রির উদ্যান জেগে আছে দূরাগত বয়সের নিচে :
গোলাপ বাগানে চাঁদ ধীরে ধীরে নিভে যায়---
ধীরে ধীরে অপ্রাপ্য কৈশোর
.              জেগে ওঠে একা ম্লান বৃক্ষের আড়ালে |
--- অন্ধকারে বৃষ্টি হয় বাতাসের সীমানা পর্যন্ত |

তারপর মৃত্যুহীন মদ নিয়ে জন্মের প্রগাঢ় ক্ষত ঢেকে
শব্দের অরণ্য ভেঙে শ্রুত হলো চকিত ঝঞ্ঝনা,
মৃত মৌমাছির বাসা ছিঁড়ে পড়লো চতুর্দিকে ----
তবুও সে রাত্রির উদ্যান জেগে থাকে
.                   দূরাগত বয়সের নিচে ||

.                   ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
সর্বক্ষণ চলিত ভাষায় সে তার অশ্রাব্য খিস্তি মেরে
বালিশ-বিছানা ছিঁড়ে শরীর আঁকড়ে ধরে
মধ্য পথে অন্ধকার ---- ছুটতে গিয়ে ছড়িয়ে যায়
অচল মুদ্রার মতো গল্পহীন প্রান্তরের পথে
মাঝে মাঝে এক ধরনের অভাব শূন্যতা |

.               ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
একা একা অন্য মনে নগরীর সীমানা ছাড়িয়ে
আলোকোজ্জ্বল হ্রদের কাছ বরাবর
ছড়িয়ে পড়ে দুর্দান্ত অগ্নিকণা-সহ |

.               ******************     
.                                                                              
সূচিতে . . .   


মিলনসাগর
*
অবেলার প্রেম এখনো হলো না শেষ
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
২৬ / ৭ / ৬৭
      
রক্তে হলো অভিষেক, গোপনতা পড়ে থাকে একা
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
২৭ / ৭ / ৬৭

রক্তে হলো অভিষেক, গোপনতা প’ড়ে থাকে একা,
সর্বস্বে রিক্ততা ঝরে---- ক্লান্ত ওষ্ঠে শুধু কিছু ছবি,
চতুর্দিকে স্বর ওঠে --- অন্ধকার রূপসীকে চাই
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
৭ / ৮ / ৬৭

চতুর্দিকে স্বর ওঠে ---- অন্ধকার রূপসীকে চাই,
বহু দূর অন্ধকারে বৃষ্টি ছোঁবে ত্বরিতে সর্বাঙ্গ
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১৪ / ৮  / ৬৭
         
তোমার শরীর ছায়ামমতার এক অপরূপ বৃষ্টি
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১১ / ৮ /  ৬৭

তোমার শরীর ছায়ামমতার এক অপরূপ বৃষ্টি
রক্তের নিচে প্রবল ঝরণা তোমার মায়ার দৃষ্টি
মানুষের কাছাকাছি হ’তে গেলে আজকাল ভয় করে বেশি---
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১০ /  ৮ / ৬৭                                                       

মানুষের কাছাকাছি হ’তে গেলে আজকাল ভয় করে বেশি ----
একটা শালিক তার সর্বস্ব উজাড় ক’রে দিলো
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১৬ / ৮ / ৬৭

একটা শালিক তার সর্বস্ব উজাড় ক’রে দিলো :
এক রকম ব্যস্ততাবোধ আমাদের রোজ রোজ তাড়া করে
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১৬ / ৮ / ৬৭

এক রকম ব্যস্ততাবোধ আমাদের রোজ রোজ তাড়া করে,
ঘুরন্ত মরণখেলা
হিমহাড় তুলে ধরে দাঁতালো শুয়োর
কবি দ্রোণাচার্য ঘোষ
১৮/  ৮ / ৬৭

হিমহাড় তুলে ধরে দাঁতালো শুয়োর