কবি ও গীতিকার অজয় ভট্টাচার্যর কবিতা ও গান
*
ওরে সুজন নাইয়া
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর ও শিল্পী – শচীন দেববর্মন, ১৯৩৫

ওরে সুজন নাইয়া ----
কোন্ বা কন্যার দেশে যাও রে চাঁদের ডিঙি বাইয়া ?
সেথা তারার নয়ন-কোলে
কার চাহনির মানিক জ্বলে,
আবছা মেঘের পত্রখানি কে দিল পাঠাইয়া ?
কোন্ সে কন্যার দীরঘ-নিশাস আইল বাউরী বায়ে,
চোখের জলে তোমার নাম, কে লেখে আপন গায়ে ?
নদীর জলে আরশিতে হায়
কোন্ সে প্রিয়া দেখে তোমায়,
সাঁঝের পিদিম ভাসায় জলে কে তোমারে চাইয়া ?

.                *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
ফুলেরি দিন হল যে অবসান
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  ও শিল্পী – ভীষ্মদেব চট্টোপাধ্যায় , ১৯৩৬

ফুলেরি দিন হল যে অবসান,
আলোর বাঁশি গাহে বিদায় গান ||
পাখিরা ফিরে এলো কুলায়   শেষের খেয়া ফিরিল হায়,
বেদনা বহে নদীর কলতান ||
সাঁঝের ব্যথা ঘনালো মম প্রাণে,
জ্বলিছে দীপ চাহিয়া কার পানে ?
ঘনায় আসে বিজন রাত,        জীবনে এসো জীবন-নাথ,
তুলিয়া লহ আমারি শেষ দান ||

.                *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
বাঁধিনু মিছে ঘর ভুলের বালুচরে
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- পঙ্কজকুমার মল্লিক
শিল্পী –  কে. এল. সায়গল
ছবি --   দেশের মাটি, ১৯৩৮

বাঁধিনু মিছে ঘর ভুলের বালুচরে
উজানধারা আসি’ ভাঙিল চিরতরে |
.          যে তরু পেল প্রাণ আমার আঁখিজলে
.          সে কিরে সাজিবে না মধুর ফুলে-ফলে
.          হৃদয় দিব যারে সে বুঝি যাবে স’রে ||
.          হেরিতে হাসি যার বাঁশরি গাহে মম
.          সে কেন দহে মোরে অনল জ্বালা সম ||
.          যা কিছু গড়ি সুখে
.                     সকলি ব্যথা বুঝি,
.            আলেয়া হেরি শুধু
.                     আলোক যবে খুঁজি,
.            আজিকে শেষ খেয়া
.                     একাকী বাহিব রে ||

.                *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
প্রেম নহে মোর মৃদু ফুলহার, দিল সে দহন জ্বালা
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- রাইচাঁদ বড়াল
শিল্পী – কে. এল. সায়গল
ছবি --   দিদি, ১৯৩৭

প্রেম নহে মোর মৃদু ফুলহার,                       দিল সে দহন জ্বালা
সে প্রেম লাগিয়া তবু নিরজনে  গাঁথি যে অশ্রুমালা ||
হৃদয় আমার যেন সে কমল               তব পরশনে মেলিয়াছে দল,
সে যে সহে নাকো ধরণীর আলো   বেদনা-গরল-ঢাকা ||
সব চাওয়া মোর যদি হ’ল ভুল,          প্রিয়, সে ভুল আমার ভালো
ব্যথা ধূপ জ্বেলে হবে সুর সুরভিত, নিভানো প্রদীপে আলো |
প্রেমের দেউলে দুখের পূজারী
রুধিরে আঁকিনু আল্পনা তারি,
বাহিরে যদি গো তোমারে হারাই, অন্তরে তুমি আলা |

.                *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
আজো নয়, প্রিয় আজো নয়
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- শৈলেশ দত্তগুপ্ত
শিল্পী – শচীন দেববর্মন, ১৯৪১

.                  আজো নয়, প্রিয় আজো নয়,
বিরহী কপোতী আজিও কাঁদিছে,    ওঠেনি সে চাঁদ মায়াময় ||
.                  আজিকার বাঁশি জানে শুধু কাঁদা
.                  ফাগুনের সুরে হয়নি সে সাধা,
দখিনার বাণী এখনো পায়নি    মোর কুঞ্জের কিশলয় ||
.                   ছিল ভালে মোর একি হায়,
.                   মনের কামনা আজো কেন মোর
.                   আঁখিধারা হয়ে ঝরে যায়, এ কি হায় !
.                   দিনের আলোটি রাতের আঁধারে
.                   ডুবে যায় মিছে বেদনা-পাথারে,
আজ এলে প্রিয় কি দিব চরণে,    সে তো লাজ মোর সে তো ভয় ||

.                    *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
এ গান তোমার শেষ করে দাও নূতন সুরে বাঁধো বীণাখানি
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- রাইচাঁদ বড়াল
শিল্পী – কে. এল. সায়গল
ছবি --   সাথী,  ১৯৩৮

এ গান তোমার শেষ করে দাও   নূতন সুরে বাঁধো বীণাখানি |
আঁধার পথে যাত্রা এবার,     শেষ হয়েছে দিনের জানাজানি ||
কান্নাহাসির দিনগুলি সব     একে একে হল নীরব,
চির রাতের অজানা সুর     বাজাও তবে কঠিন আঘাত হানি ||
ডুবল যদি একটি রবি       জ্বলল দিনের চিতা
নিভল যদি একটি বাতি,     জ্বালাও দীপান্বিতা |
বাঁধলে যারে যায় না বাঁধা   তার লাগি আজ মিছেই কাঁদা
পরাজয়ের দুঃখ কিরে,    তার মাঝে রয় জয়ের আশার বাণী ||

.                    *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
ফোটে ফুল মনের মাঝে সে কেন যায় রে ঝরে
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  ---  দিলীপকুমার রায়
শিল্পী –   উমা বসু ( হাসি ), ১৯৩৮

ফোটে ফুল মনের মাঝে সে কেন যায় রে ঝরে
যদিরে উঠল শশী কেন আঁধার করে    দিগম্বরে ||
নয়নে ছিল হাসি    বহিল অশ্রুরাশি
দুজনে বাহির হ’য়ে    ফিরিনু একা ঘরে |
যেখানে রহে আশা-নিরাশা আসে সেথা
মিলনের মধু-মাসে বিরহ আনে ব্যথা |
.           জমিলে প্রাণের মেলা
.           তখনই ভাঙে খেলা
হিয়াতে রাখি যারে, হারিয়ে যায় সে পরে |

.            *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
ত্রিংশ কোটির অন্তরনিধি, জয় হোক তব জয়
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর ও শিল্পী—দিলীপকুমার রায়, ১৯৩৮

ত্রিংশ কোটির অন্তরনিধি, জয় হোক তব জয় |
বাজাও সারথি শঙ্খ তোমার দূর কর ছায়াভয় |
দুঃখজয়ের তিলক পরেছ
ব্যথা-কন্টকে মুকুট লভেছ,
হানিল যে শিলা তারে দাও মালা এ যে চিরবিস্ময় !
( ঘুমের দেশে বাজাও শঙ্খ বাজাও, ঘুম ভাঙাও ভাঙাও
সারথি ভাঙাও হে ঘুম ভাঙাও, সাগর-জাগর শঙ্খে যুগের ঘুম ভাঙাও ) |
মরণের ভয়ে মরেছিল যারা
মৃত্যুবিজয়ী হল আজ তারা,
ঐন্দ্রজালিক তোমার ইন্দ্রজালে
সর্বহারার মরুভূমি মাঝে মুক্তিসাগর জাগালে বজ্রতালে ( শক্তিতালে ) ;
আঁধারের শিশু গাইছে প্রভাতী
কহে তারা ডাকি’ শেষ হল রাতি
তাদের সাধনা বিগত বেদনা শতদল হয়ে রয় |
বাজাও বাজাও বাজাও সারথি বাজাও বাজাও বাজাও
ওগো জাগাও জাগাও জাগাও, ওগো শঙ্খে তোমার জাগাও জাগাও
জাগাও শঙ্খে তোমার তন্দ্রাপুরী জাগাও জাগাও জাগাও ||

.            *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
যদি দখিনা পবন
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- হিমাংশু কুমার দত্ত
শিল্পী – শচীন দেববর্মন, ১৯৩৪

যদি দখিনা পবন
আসিয়া ফিরে গো দ্বারে ,
বাদল-ব্যাকুল বনে
পাবে কি খুঁজিয়া তারে ?
যদি এ চাঁদিনী-রাতে
নিদ্ নামে আঁখি-পাতে
প্রভাতে চাহিয়া চাঁদে
ভাসিবে নয়ন-ধারে |
যে-কথা কহিতে বাধে,
যে-ব্যথা পরানে কাঁদে,
আজ না কহিলে প্রিয়
কহিবে কবে সে কারে ?

.              *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর   
*
গোধূলির ছায়াপথে
রচনা – অজয় ভট্টাচার্য
সুর  --- শৈলেশ দত্তগুপ্ত
শিল্পী – শচীন দেববর্মণ, ১৯৩৪

গোধূলির ছায়াপথে
যে গেল চিনি গো তারে,
প্রভাতের ফুল হাতে
সে যে এসেছিল দ্বারে |
ছিল তার মুখে ভাষা,
নয়নে কি যেন আশা,
নিল সে যাবার কালে
কোন্ ব্যথা আঁখিধারে |
বলিনি কি তুমি মম,
কহিনি কি ওগো একা
আমি একা তোমা সম ?
এনেছিল তরীখানি
আমার লাগিয়া জানি,
কি যে ভুল হলো হায়
যাওয়া মোর হলো না রে ||

.              *************************                
.                                                                             
সূচিতে . . .    



মিলনসাগর