কবি বিজয় গুপ্ত-র মনসামঙ্গল কাব্য
যে কোন কবিতার উপর ক্লিক করলেই সেই কবিতাটি আপনার সামনে চলে আসবে।
১  
মনসার জন্ম পালা

গৌরী কোন্দল পালা     

মনসা বিবাহ পালা     

অষ্ট নাগের জন্ম পালা   

অমৃত মথন পালা   

বনবাস পালা       

হাসন হুসন যুদ্ধ পালা     

গুয়াবাড়ি কাটা পালা       

ধন্বন্তরি বধ পালা     
  ১. রত্ন সিংহাসনে আছেন বিষহরি   
২. শুনহ আমার বাণী ঘরে চলে মালিনী   
৩. আপন পুরীতে তবে গেল বিষহরি   
৪. সাজিয়া গোয়ালিনীর বেশে চলিল শঙ্কুর দেশে   
৫. কেমন তোমার স্বামী তোমা পাঠায় একাকিনী   
৬. শুনি কোপ বাড়িলেক দেবী মনসার    
৭. তোমার জাতি ধর্ম ভাল শুন গো সুন্দরী   
৮. করাইব সেবা সতী না যাও গোয়াল জাতি   
৯. গোয়ালিনী বলে আমি সত্য করি কই   
১০. আমারে মারিতে হেন তোমার মনে লয় কেন   
১১. বিষ দধি মিছা গেল পদ্মা পাইল লাজ   
১২. যদি শঙ্কুর না থাকে বাড়ি তবে প্রবেশিও পুরি   
১৩. নেতার বচনে পদ্মাবতী স্থির করে মন  
১৪. ওগো প্রিয়ে কমলা সুন্দরী শুন আমি তোমা   
১৫. স্বামীর কথায় কমলার চিত্ত অসুস্থ  
১৬. শিশুকালে যখন পুষিল বাপ মায়   
১৭. আমার মরণ জানি কারে বলিয়াছ ধনি   
১৮. আহা প্রভু প্রাণপতি কোথা গেল এত রাতি   
১৯. কোপ মনে নাহি কমলা সুন্দরী   
২০. ওঝা বলে শিষ্য সব শুনহ বচন   
২১. চলিল ধোনা মোনা ওঝারে করিয়া মানা    
২২. বসিল দুই শিষ্য ঝাড়ি গায়ের ধূলা   
১০
ছয় কুমার বধ পালা     
১১
ঝালুবাড়ির পূজা পালা  
১২
যমযুদ্ধ পালা      
১৩
যাত্রাপাটন পাটন পালা     
১৪
বস্তুবদল পালা     
১৫
ডিঙ্গা বুড়ান, লক্ষ্মীন্দরের জন্ম ও চান্দ লাঞ্ছনা পালা
১৬
লখিন্দরের বিবাহের জোড়ানি পালা    
১৭
লোহার বাসর ঘর নির্মাণ পালা     
১৮
লখিন্দর বিবাহ পালা       
১৯
লখিন্দর দংশন পালা   
২০
ভাসান পালা      
২১
স্বর্গারোহণ পালা     
মালিনীরে দেখি সবার কৌতুক হইল বড়ি |
এইকালে বল ভাই সরস লাচারি ||

.                                   ****************                         
সূচি...    


মিলনসাগর
মুখের ছাঁদেতে চন্দ্রের রূপ করিল চুরি ||
কনক চম্পক যেন দেখিতে কলেবর |
হস্তী শুন্ড বাহু হেন অতি মনোহর ||
দাড়িম্বের বিচি যেন দন্ত ঝলমল |
দেখিলে তরুণ জনে হইবে বিহ্বল ||
চকিতে চকোর দুই নয়ন তাহার |
জিনিয়া বাধিল ফুল অধর সুন্দর ||
( কণক চম্পক তনু সুন্দর তাহার |
হস্তি শুন্ড জিনিয়া বাহু পরম সুন্দর ||  )
দেখিয়া তাহার শোভা কেবা নাহি ভোলে |
খঞ্জন নয়ন দুই সরোবর কোলে  ||
মৃগমদ মিশাইয়া চন্দন দিল গায় |
কণক নূপুর তুলিয়া দিল দুই পায় ||
অধরে তুলিয়া দিল খদিরের রস |
পারিজাতের মালা পরে দেখিতে রূপস ||
কাঞ্চনের ঝরা দিল দুই হস্তে তুলি |
দুই হস্তে তুলিয়া দিল বক্ষের কাঁচলি ||
সুবেশ করিয়া চলে জয় বিষহরি |
দধির পসার লইয়া চলে একেশ্বরী ||
ধন্বন্তরি বধিতে চলিল বিষহরি |
পদ্মার চরণে বিজয় গুপ্তে নমস্কার করি ||
কপটে চলিল পদ্মা গোয়ালিনীর ছন্দে |
এইকালে বল ভাই লাচারির প্রবন্ধে ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
মনসামঙ্গল কাব্যের সূচি
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা



শুনহ আমার বাণী                     ঘরে চলে মালিনী
চলি যাও আপনার ঘর |
কল্য আনিও ফুল                     ইনাম দিব বহুমূল
যেন খাও এ বার বৎসর ||
তোমার হেথা আগমন                 সবে হরষিত মন
রূপ দেখি প্রাণ নহে স্থির |
তুমি সামান্য নহ                  কেন আসা ভাঙ্গি কহ
কামে মোর দগ্ধ হয় শরীর ||
হেন দেখ অদ্ভুত                        নাহি হয় ঝি পুত
বাঝার লক্ষণ দেখি গো তোমার |
পুত্র হবে যত চাও                    আমার ঔষধ খাও
এই বীর্যে জন্মিবে কুমার ||
ঔষধ চিনাব আমি                আর ওঝা হইবা তুমি
লোকে তোমায় পূজিবে যতনে |
খুঁজিয়া বা না আনে                যাচিয়া দিবা আপনে
তুষ্ট হইলাম তোমার বয়নে |
শুনিয়া শিষ্যের বাণী                    ঘরে চলে মালিনী
কহিল দিও যত মনে লয় |
কহিল দিও যত মনে লয় |
বিজয় গুপ্ত বলে সার                  মোরে কর নিস্তার
মনসা কলঙ্কিনী কভু নয় ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা



সাজিয়া গোয়ালিনীর বেশে                     চলিল শঙ্কুর দেশে
কপটে বধিতে ধন্বন্তরি |
রঙ্গে ছন্দে বান্ধে খোপা                    পৃষ্ঠেতে পাটের থোপা
শ্রবণে সোনার মদন কড়ি ||
স্বর্ণ অলংকার গায়                              চলন্ত নূপুর পায়
উল্লাসে পরিল পাটের শাড়ী |
চন্দনে লিখিল অঙ্গ                           কপালে তিলক রঙ্গ
মুখ পানে করে খল খল ||
মানিক্যদোসর জ্যোতি                     গলায় শোভিছে পাতি
নয়ন ভরিল কাজল  |
বল্লভা দুই কুঁচ ভার                           হৃদয়ে মুকুতা হার
দুই পায় পরিল পাশলি ||
কাছিয়া কাপড় পিন্ধে                      রূপে বিদ্যাধরী নিন্দে
দধির পসার লইয়া চলি |
পদ্মাবতী কুতূহলে                               খঞ্জন গমনে চলে
যথা ওঝা ধন্বন্তরি থাকে |
দাঁড়াইয়া ওঝার পাশে                         আড় নয়নে হাসে
দধি লবা ঘন ঘন ডাকে  ||
শতেক শিষ্য লইয়া মেলা                     ধন্বন্তরি করে খেলা
গোয়ালিনী বলে দই দই |
ওঝার বিক্রম বুদ্ধি                            কাড়িয়া লইল দধি
আজি গোয়ালিনী যাবা কই ||
গোয়ালিনীর ঠাট দেখি                    হাসে ওঝা আড় আঁধি
শতেক শিষ্য করে হুড়াহুড়ি |
বিজয় গুপ্ত বলে সার                     রসিক জনের চমৎকার
দধি লোভে তুলিল গাড়রী ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা



কেমন তোমার স্বামী                        তোমা পাঠায় একাকিনী
গোয়ালা কেমনে আছে ঘরে |
তুমি নও দুখিনী                                    ধনবতী হেন গণি
সর্ব গায় স্বর্ণ অলঙ্কার ||
এত ধন যাহার আছে                        সে কি দধি ঘোল বেচে
হাটে মাথায় পসার |
দেখিয়া তোমার কষ্ট                             মনেতে হয়েছি রুষ্ট
স্বামী তোমার বড়ই নচ্ছার ||
হেন আমি অনুমানি                              হবা তুমি দ্বিচারিণী
বেড়াও পুরুষ অন্বেষণে |
দুষ্টজনে লাগ পায়                           দধি ঘোল কাড়িয়া খায়
তাহে ভয় নাহিক অন্তরে ||
তোমার তাতে নাহি ভয়                          হৃষ্টমতি অতিশয়
নষ্ট তুমি হবে গো সুন্দরী |
দিন গেলে যাও ঘরে                         বেড়াও তুমি স্বতন্তরে
দধি ঘোলের না লও বুঝি কড়ি ||
সরু মাজার ঠান                               ভাঙ্গিলে হয় খান খান
বড়াই তোমার করিব চুর |
বলিয়া এসব বোল                             মূল্য করে দেখি ঘোল
শিষ্য সব বড়ই চতুর ||
কহিছে বৈদ্য বিজয়                         খাইয়া বুঝ কেমন হয়
দধি ঘোল চুকা কি মধুর |

@@ -  -   এখানে প্রিপদীর অর্ধেক নেই - - @@

.                                                          ****************                                                সূচি...    


মিলনসাগর
*
রাজকর দেই মোরা নিজ ঘরে বসি ||
খাই বিলাই আর করি যে সঞ্চয় |
যত কিছু দেশ এই পসারেতে হয় |
বিনা দুঃখে কাহার কড়ি না হয় উত্পত্তি |
আমার সকল এই ঘরের সম্পত্তি ||
নিশ্চিন্তে খাইয়া বেড়াও হাঁড়িতে না দেও ফুক |
নিজের বলিতে তোমার চাঁদ হেন মুখ ||
চপল চরিত্র যাহার ডাঙ্গর উত্তর |
তিলেক না রহি আমি তাহার গোচর ||
অত্যন্ত দীঘল তোমার ডাঙ্গর উদর |
চিরকাল পর ভাতে তোমার আদর ||
টাকিয়া কপাল তোর থাক পরের ঘরে |
মুষ্টি অন্ন খায় যথা কাকে আর কুকুরে ||
টিকি কপাল সরিষা মালা গলে |
বচনে সাগর বান্ধ পথ বাহু ছলে ||
বিজয় গুপ্ত বলে এই কীর্তি মনসার |
শুনাইয়া শিষ্যগণে বলে আর বার ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
আমিও করিব তার অনুরূপ কাজ ||
এতেক বলিয়া ওঝা মনে ক্রুদ্ধ হইয়া |
ব্রহ্ম গোটা ভস্ম করে ঔষধ আনিয়া ||
মূলনাশ করিয়া ওঝা যায় আনন্দেতে |
জ্যোতীশ্বরের ঠাঁই গিয়া জানাইল দূতে ||
তাহা শুনি জ্যোতীশ্বরের অধিক কোপ বাড়ে |
আথেব্যাথে শিষ্যগণ ধায় উভালড়ে ||
তাড়াতাড়ি শিষ্যগণ ধায় লড় দিয়া |
এত শুনি জ্যোতীশ্বর চলিলেক ধাইয়া ||
ব্রহ্ম গোটা জিয়াইল ঔষধ আনিয়া |
সেই ঠাই ওঝারে তব এড়িল বান্ধিয়া ||
তোমার গুণে আমার যশ করি যাও নাশ |
জ্যোতীশ্বরের গুণ কিছু করিব প্রকাশ ||
জ্যোতীশ্বরের জ্ঞানে বৃক্ষ জল বহে স্রোতে |
সকল লোক তুষ্ট হইল সেই জল হইতে ||
কোথায় শঙ্কুর ওঝা কোথায় গাড়ুরী |
জ্যোতীশ্বরের হাতে তার ভাঙ্গিল চাতুরি ||
এই সকল কথা আমি জানি ভালে ভাল |
বাপ মায়ের কোল আমি তখন ছাওয়াল ||
বত্সরেক বৃক্ষ হইয়া আছিল ওঝায় |
কত লোক পাও মুছিয়াছে তার গায় ||
থাকুক আমার কার্য আর হীন জাতি |
তাহারে আসিয়া কত মারিয়াছে লাথি ||
অন্য ঠাঁই গিয়া তুমি বড়াই দেখাও |
অন্যঠাই কহ গিয়া চলি ঘর যাও ||
আর যদি কথা কহ করিয়া যে রোষ |
বিদ্যানাশ করিব যে মোর নাহি দোষ ||
মর্মকথা কহে দেবী কোপে শিষ্যগণ  |
মিছা পরিপাটি করি কহিছে বচন ||
বলি সভা বিদ্যমানে পয়ার প্রবন্ধ |
মিলিল আসিয়া গীত লাচারির ছন্দ ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা



করাইব সেবা সতী                          না যাও গোয়াল জাতি
ভাঙ্গিব মুখের তরবারি |
জানাইয়া জ্ঞাতি লোকে                        ফল করাইব তোকে
কি করিবে তোর ধন্বন্তরী ||
আমারে বলিবা ওঝা                      লোকে তোরে করে পূজা
এতেক তোমার দুষ্টমতি |
আনি সুচতুর কার্যে                           থাকিয়া চান্দর রাজ্যে
বাদ যার পদ্মার সংহতি |
আমি যখন বাড়ি যাব                          কান্দিয়া স্বামীরে কব
যত কিছু কহিছ আমারে |
আমি গোয়ালের নারী                          দধি ঘোল বেচি নারি
আজি ঠেকায় তোমারে ||
শুনিয়াছি আদ্যমূলে                          দেশে সে গোয়াল পেলে
কার গালি কত দিবি আর |
শুনি গোয়ালিনী বাণী                              শিষ্যগণ কানাকানি
বিজয় গুপ্ত রচিল সুসার  ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
ওঝার পায়ের ধুলা লইয়া লিপিল শরীর ||
মরে ছিল শিষ্যসব জীল আরবার |
হেন মতে সবাকার হউক নিস্তার ||
শিষ্য জীয়াইয়া ওঝা পায় মারে তালি |
কোপমনে ওঝা পদ্মারে পাড়ে গালি ||
কোপে ওঝা পদ্মারে বলে খলতর |
লাচারি পড়িল ভাই বলহ সত্বর ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

১০

আমারে মারিতে হেন                        তোমার মনে লয় কেন
কেবা তোরে দিল হেন বুদ্ধি |
গোটা কত নাগ পাশ                         তেকারণে লোকে ঘোষ
বিবাদে আগল বিষহরি |
হেন বুদ্ধি কেবা করে                          লোকে দোষে তাহারে
আমি বিষ খাইলে না মরি ||
কি কহিব আপন কথা                          মহাজ্ঞান দিল নেতা
তেকারণে আজ অমর |
সাপ খাম বিষ পেম                               চারিযুগে মুই জীম
যমের ভয় নাহিক আমার ||
বনে বনে খেলম                               ক্ষণেক বাঘেতে চলম
ক্ষণেক চলম মহিষের পৃষ্ঠে |
খেচর দানব দূত                                   প্রেত পিশাচ ভুত
যক্ষিণী পলায় মোর দৃষ্ট ||
মুই ধোপাঝি শিষ                              ঝারি ভরে পেম বিষ
তক্ষক চিবাইতে পারি দন্তে |
ধন্বন্তরি কথা কয়                                পদ্মার মনেতে ভয়
বিজয় গুপ্ত রচিল সানন্দে ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

              ১১
বিষ দধি মিছা গেল পদ্মা পাইল লাজ |
নেতার ঠাঁই জিজ্ঞাসা করে কি করিব কাজ ||
মোরে বুদ্ধি বল নেতা রজক কুমারী |
কিরূপে বধিব আমি ওঝা ধন্বন্তরি ||
বিষ খাইল ওঝা না করিল বিমরিষ |
কি বুদ্ধি করিব নেতা বল উপদেশ ||
পূজা যদি না হইল জীবনে কিবা ফল |
এত বলি পদ্মাবতী কাঁদিয়া বিকল ||
নেতা বলে কি করিব মনে ভয় করি |
ওঝারে বধিতে আমি যুক্তি দিতে নারি ||
শঙ্কুর হেন শিষ্য মোর নাহি ত্রিভুবনে |
গুরু হইয়া শিষ্যের মৃত্যু কহিব কেমনে ||
আমা ছাড়ি শঙ্কু রায় নাহি জানে আর |
সেবায় সন্তুষ্ট হইয়া দিলাম তারে বর ||
আমার প্রতাপে ওঝা অমর অজয় |
প্রাণের অধিক আমার ওঝা শঙ্কু রায় ||
কোপ কর তাপ কর যেবা কর কর্ম |
তবু না কহিব ওঝার যে মর্ম ||
তোমার কাজ থাকুক যদি সাজিয়া আসে যম |
তবু না টুটিবে আমার ওঝার বিক্রম ||
জগত জননী তুমি যেবা মনে লয় |
আপনি ভাবিয়া দেখ আছে যে উপায় ||
এতেক বলিয়া যদি রজক কুমারী |
মনে মনে ভাবে জয় বিষহরি ||
জগত জননী দেবী ভাবিতে চিন্তিতে |
শঙ্কুর নগর দেবী চলিল ত্বরিতে ||
সহেলার বেশ ধরিলা বিষহরি |
কপটে বাধিতে যায় ওঝা ধন্বন্তরি ||
ধন্বন্তরির স্ত্রী কমলা সুন্দরী |
তাহার সঙ্গে সহেলা করে দেবী বিষহরি ||
পদ্মার সঙ্গে কহে কথা কৌতুক হইল বড়ি |
সংবাদ পড়িল ভাই বলরে লাচারি ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

১২

যদি শঙ্কুর না থাকে বাড়ি                    তবে প্রবেশিও পুরি
পাছ দ্বারে যাইও তাড়াতাড়ি |
তবে যদি দেখা হয়                             দিও তুমি পরিচয়
কহিও অতি সতী ব্রাহ্মণী নারী ||
কহিবে কমলা সুন্দরী                  কহিও আমি জাতি ব্রাহ্মণী
লইতে আইলাম তোমার শরণ ||
সর্বসুখ অতিশয়                             কর্মদোষে স্বামী নির্দয়
আজি নিশি দেখিলাম স্বপনে ||
এ সব কহিও কথা                             তবে পাবা মর্মকথা
চলে পদ্মা নেতার বচনে ||
বিজয় গুপ্ত বলে সার                      মোর গতি নাহি  আর
দয়া করি রাখ ও চরণে ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
এতেক বলিয়া যদি লইতে পার লাগ |
কার্যসিদ্ধি হইবে আর বাড়িবে সোহাগ ||
মর্ম বৃত্তান্ত জানিও মৃত্যু কাহার হাতে |
এ সব বৃত্তান্ত তুমি জানিও ভাল মতে ||
আজি তার ঠাঁই জিজ্ঞাসিব যে নিশ্চয় |
হরষিত পদ্মাবতী আপন হৃদয় ||
পদ্মাবতী দিলেন তারে বিস্তর অলঙ্কার |
কমলাও দিল তারে অনেক ব্যবহার ||
বিদায় করিয়া ঘরে গেল কমলাসুন্দরী |
শ্বেত মাছি হইয়া রহিল বিষহরি ||
দিবা অবসানে ওঝা আসিল বাড়িতে |
করিল ভোজন স্নান যে আছে বিহিতে ||
ভোজন করিয়া ওজা শুইল দিব্য খাটে |
কমলা সুন্দরী গিয়া বসিল নিকটে ||
অলঙ্কারে কমলা হইয়া বিভূষিতা |
স্বামীর নিকটে গেলা হইয়া আনন্দিতা ||
কামদৃষ্টে চাহিয়া জয় বিষহরি |
পঞ্চবাণ ছাড়ে কাম সুসন্ধান করি ||
শঙ্কুরে বলে কমলা মোর প্রাণধর |
আলিঙ্গন দিয়া মোর প্রাণ রক্ষা কর ||
শৃঙ্গার আশায় ওঝা হাত দিল গায় |
ক্রোধ করি কমলা দূরে সরিয়া যায় ||
সহজেতে হইল আমি ওঝার ঘরণী |
গুণেজ্ঞান কারে বলে কিছু নাহি জানি ||
এতেক জানিলে প্রভু মোর পুরে আশ |
হাসিতে হাসিতে বসি তোমার পাশ ||
মুই জিজ্ঞাসিলাম তুমি না কর কপট |
তবে কামরসে বসি তোমার নিকট ||
অন্তরীক্ষে পদ্মাবতী প্রসন্ন বদন |
ওঝার ঠাঁই কমলা জিজ্ঞাসে তখন ||
কমলা বলে প্রভু কহত সত্বর |
কিরূপে হইল তোমার অক্ষয় পাজর ||
মহাজ্ঞানের কথা কহিবে বিস্তর |
তবে সে তোমার সঙ্গে থাকিব একত্তর |
পুত্র কন্যা না হইল সংসারে নাহি ব্যথা |
কিরূপ আমার ঠাঁই কহ সত্য কথা ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

১৪

ওগো প্রিয়ে কমলা সুন্দরী                  শুন আমি তোমা বলি
হেন বোল বলা তব উচিত না হয় |
তুমি বল দেখি সই                           আর হইলে প্রাণ লই
যত দুঃখ উপজিল কায় ||
আমারে লইতে সন্ধি                       কোন চোরে দিল বুদ্ধি
সে তোর আসিল সর্বনাশে | |
এতকাল জানি আমি                         অতি শুদ্ধ নারী তুমি
আজি কেন এ বোল প্রকাশে ||
নিশ্চিত থাক তুমি                           অতি দীর্ঘজীবী আমি
মরণ নাহিক মোর ভিতে |
চিরকাল মোর সঙ্গে                           থাক তুমি নানা রঙ্গে
বিচ্ছেদ না হবে জন্মান্তরে ||
তুমি না জান সার                             এ বোল না বল আর
মূলতত্ত্ব না কহিতে যুয়ায় |
শুনিয়া ওঝার কথা                              মনসার মমে ব্যথা
বৈদ্য বিজয় গুপ্ত গায় ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

                ১৫
স্বামীর কথায় কমলার চিত্ত অসুস্থ |
চরণে পড়িয়া বলে শুন প্রাণনাথ ||
বাপ মোর পুণ্যবান মা ভগবতী |
বড় ভাগ্যে পাইলাম তোমা হেন পতি ||
এতকাল প্রভু মোরে না কহিলা সার |
কেমনে মরণ হয় কেমনে নিস্তার ||
না কহিলা মহাজ্ঞান মূল কথা শুদ্ধি |
আপদে পড়িলে তবে ভাবিয়া কোন বুদ্ধি ||
কোপে না কহিলা মোর মনে বাসে |
ভাবিতে চিন্তিতে মুখে রাও না আসে ||
কমলার বোলে ওঝার মনেতে কৌতুক |
হেন ছার কর্মে প্রিয়া মিছা পাও দুঃখ ||
আমি যেরূপ ওঝা কেবা জানে গুণ |
যে কথা কহিব আমি চিত্ত দিয়া শুন ||
শুন প্রিয়া শশীমুখি তোমারে বুঝাই রে |
কহিব মর্ম কথা বুঝাইব পরে ||
তক্ষক বাসুকী আদি যত যত নাগ |
দন্তে চিবাইতে পারি যত পাই লাগ ||
গুণের দর্পে মোর আকাটা আকূট |
একমাত্র আছে মোর মরণের পথ ||
অমর শরীর নহে অবশ্য মরণ |
আমার লিখন নাই যমের ভবন ||
সাপ মাত্র বৈরী আছে শুন সাবধানে |
আমি মাত্র জানি তারে মনসা পাছে শুনে ||
সেও আর আমি যদি থাকি এক ঘরে |
তবু সে প্রাণে মোরে কি করিতে পারে ||
ভাদ্র মাস মঙ্গলবার অমাবস্যা হয়  |
তক্ষকে মস্তক যদি খায় ত নিশ্চয় ||
সেই যদি লাগে পায় নির্বন্ধে আমার |
তবে সে তাহার হাতে বিপদ আমার ||
প্রাণ সমর্পিলাম রাখিও যতনে |
একারণে মর্ম কথা কহি তোমার স্থানে ||
তক্ষকে দংশে যদি ব্রহ্মতালুকায় |
তবে সে আমার মৃত্যু জানিও নিশ্চয় ||
তাহাতে ঔষধ দিলে আছে প্রতিকার  |
ঝুলিতে ঔষধ তবে আছে ত আমার ||
রথে থাকি মনসা শুনিলা সত্বর |
বিজয় গুপ্ত রচে পুথি মনসা বর ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
পাত তুলিয়া চাও কিবা আছে তলে ||
ধোপাঝী বোলে মোর চিত্ত অসুস্থ |
পাত তুলিয়া দেখি একগোটা ভাত ||
কোপে বলে ধোপাজী কি বলিলি ছার পো |
পাতের তলে ভাত থুইলা ভান্ডিলি মো ||
ক্ষে যারে আরে পুত্র ভোজন এড়ি উঠ |
মোর বরে হও পুত্র আকটা আকূট ||
তক্ষক আদি যত নাগ মহাবিষময় |
তোর নাম শুনিয়া পলাইয়া যাবে ভয় ||
নেতার বচনে আমি বড় পাইলাম ব্যথা |
যোড় হাতে জিজ্ঞাসিলাম সার কহ মাতা ||
পাতে থুইলাম ভাত না দেখিলাম দৈবে |
কেমনে মৃত্যু মোর কহিবে যে মোরে ||
তোমার চরণ বই আর গতি নাই |
মরণের প্রতিকার কহ দেবী আই ||
স্থির হইয়া বলিলাম না করিলাম ভয় |
কহিব সকল কথা যে জানি নিশ্চয় ||
বিধাতার নির্বন্ধ মোর দোষ নাই |
সর্পমুখে হইল তোমার মরণের ঠাঁই ||
চারিযুগে নেতার কথা সত্য হেন জানি |
যে মতে মিলিবেক সকল সন্ধানি ||
গুণের কারণে সর্প না করিও হেলা |
ভাদ্রমাসে মঙ্গলবার অমাবস্যা মেলা ||
স্ত্রীর সঙ্গে শুইয়া থাকিবে দিব্য খাটে |
হেনকালে তক্ষক যদি দংশে ললাটে ||
নিশ্চয় সেই দিন তোমার মরণ |
যত তন্ত্র মন্ত্র তোমার না হবে স্মরণ ||
ঔষধ আনিয়া দিলে বাঁচন নিশ্চয় |
একদন্ডের অধিক হইলে ঔষধের গুণ নয় ||
এত বলি ধোপা ঝী গেল নিজ বাসে |
ত্বরিত আসিলাম আমি আপন আবাসে ||
মোর ভয় সাপ বেড়ায় যেন চোর |
কোথায় থাকিয়া তক্ষক ললাটে দংশিবে মোর ||
স্ত্রীবুদ্ধি প্রিয়া তুমি চঞ্চল চরিত |
স্থির হইয়া শুন তুমি নাগের নাহি ভিত ||
স্ত্রীর স্থানে ওঝা কহিল নিজ দশা |
নিকটে থাকিয়া তাহা শুনিল মনসা ||
আপদ নিকট হলে নানা বুদ্ধি ঠেকে |
তথায় আছিল পদ্মা ওঝা নাহি দেখে ||
স্বামীর বচনে কমলার দূরে গেল ভয় |
হাসিয়া আপন ঘরে গেলা মনসায় ||
দুই জনে নানা কথা হাস পরিহাস |
রতি সুখে কুতূহলে রজনী প্রকাশ ||
ধন্বন্তরি মর্মকথা পাইল বিষহরি |
ডাক দিয়া আনে পদ্মা নাগ অধিকারী  ||
খাইতে বসিতে পদ্মার আর চিন্তা নাই |
ভাদ্র মাসের অমাবস্যা কত দিনে পাই ||
এক দুই করিয়া পদ্মা লিখে নিতি নিতি |
আচম্বিতে ভাদ্র অমাবস্যা তিথি ||
পদ্মা বলে বিধি মোর মিলাইল কাজ |
ডাক দিয়া আনিল তক্ষক মহারাজ||
যত উপজিল কথা কহিল তখন |
ধন্বন্তরি বধিতে চল এইক্ষণ ||
ব্রহ্মতালুকায় তাহার ঘা দিবা তুমি |
মন্ত্রবলে ঔষধ হরিয়া নিব আমি ||
এতেক শুনিয়া নাগ চলিল ত্বরিত|
ধন্বন্তরির ঘরে ঢুকিল আচম্বিত  ||
খাটালে দাঁড়াইয়া নাগ চারিদিকে চায় |
ঔষধের ঝুলি হরিয়া নিল মনসায় ||
অকাল নিদ্রা হয় বড় অশুভের চিহ্ন|
দুইজনে নিদ্রা যায় সুখে হইয়া ক্ষীণ ||
তক্ষক বলে আমি আর কিবা চাই |
নিদ্রায় ধন্বন্তরি ওঝা এইকালে খাই ||
নিদ্রা যায় ধন্বন্তরি আপনার সুখে |
বজ্র ঠোকর মারে ব্রহ্মতালুকে ||
বিষ উগারিয়া নাগ উভালড়ে ধায় |
ঔষধের ঝুলি লইয়া মনসা পালায় ||
নিদ্রায় থাকিয়া ওঝা দেখিল স্বপন |
তক্ষকে দংশিল ওঝার হইল মরণ ||
কোপমনে না চেতায় কমলাসুন্দরী |
আসন করিয়া যোগ ধরে ধন্বন্তরি ||
কিবা যোগ কিবা মন্ত্র কিছু না আসে মুখে |
কাল পুরিলে তার কার বাপে রাখে ||
হাত বাড়াইয়া চাহে ঔষধের ঝুলি |
কপটে হরিয়া তাহা নিল বিষহরি ||
স্ত্রীর ঠাঁই মর্ম কথা কহিয়া হারাইলাম সকল |
স্ত্রীর ঠাঁই মর্ম  কহে তাহার জীবন বিফল ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

১৭

আমার মরণ জানি                            কারে বলিয়াছ ধনি
সেই প্রাণ নিলগো সম্প্রতি |
স্বামীর মরণ কথা                              বলিয়াছ যথা তথা
এই তব রহিল অখ্যাতি ||
যার স্বামী সাপে খায়                        সে কেমনে নিদ্রা যায়
লোক মুখে থুইলা অপযশ |
বারে বারে বলি আমি                        কথা না শুনিলে তুমি
এবে মোর প্রাণ হইল নাশ ||
না কহিলে মর্ম কথা                        মনেতে পাইতা ব্যথা
কথা শুনি করিলা যে কর্ম |
আগে যদি জানি হেন                        তবে কি আমি কখন
স্ত্রীর কাছে বলি সব মর্ম ||
বিষেতে পরাণ পোড়ে                        তুমি সুখ শয্যা-পরে
না শুনিলা আমার বচন |
ওঝার করুণা শুনি                             চৈতন্য পাইলা ধনি
কমলা যে যুড়িল ক্রন্দন ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

১৮

আহা প্রভু প্রাণপতি                        কোথা গেল এত রাতি
একাকিনী ফেলিয়া  আমায় |
আজীবনে কোন দিন                        না করিলে কার্য হেন
এবে কেন হইলে নির্দয় ||
কারে বা করিব রোষ                         সকলি আমার দোষ
অগ্নি দিলাম আপন কপালে |
কোথা হইতে আইল নারী                      সহেলার বেশ ধরি
সে রাক্ষসী প্রভুরে নাশিলে ||
হায় আমি কি করিব                           কার কাছে দাঁড়াইব
প্রভু বিনে কি হবে আমার |
স্বামী বিনে অবলার                        সংসারে কে আছে আর
বিপদেতে কে করে নিস্তার ||
হায় হায় কব কারে                         শোকেতে হৃদি বিদরে
কোথা গেল ডাকিনী সহেলা ||
মনেতে কুমতি রাখি                        আমারে শিখাল সখী
স্বামী সঙ্গে করিবারে কলা ||
প্রভুর মরণ লাগি                        আমি যে দোষের ভাগী
স্বামী বধে কি হবে আমার |
আমি অতি অভাগিনী                         কুলবতী কলঙ্কিনী
এ পাপে মোর নাহিক নিস্তার ||
হায় আমি কি করিব                        জলেতে পরাণ দিব
নহে প্রাণ ত্যজিব অনলে |
পদ্মাবতী কর সার                        বিলাপে কি হবে আর
সানন্দে বিজয় গুপ্ত বলে ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

               ১৯
কোপ মনে নাহি কমলা সুন্দরী |
অতি কোপে বলে তারে ওঝা ধন্বন্তরি ||
দ্বিচারিণী মত কর্ম করিলা বিস্তর |
যোগের নিয়ম কথা কহিল বিস্তারি ||
তোমার সনে আমার দেখা না হইবে আর |
তেকারণে করিলা এ সব অবান্তর ||
যে বৈরী আছিল তাহার পুরিল আশ |
তোমা হইতে তাহার কার্যের প্রকাশ ||
ওঝার শয্যায় শুনি ক্রন্দনের রাও|
আথেব্যাথে শিষ্যগণে তুলিলেক গাও ||
শিষ্যগণ বলে বাপ এ কোন বৃত্তান্ত |
যোগ ভাবিয়া বাপ চিত্ত কর শান্ত ||
যার হাতে পাইয়াছ তুমি অবসাদ |
কেন ভাব গুরু তুমি এতেক প্রমাদ ||
যদি যোগ ভাব গুরু হয়ে এক মন |
বিপক্ষে কি করিবেক চিন্তা অকারণ ||
ওঝা বলে শিষ্যগণ কত সহিতে পারি |
কপটে প্রাণ হরিয়া নিল বিষহরি ||
স্ত্রীর ঠাঁই মর্ম কহি হারাইলাম সকল |
তেকারণে বিধি মোর পুরাইল কাল ||
ব্রহ্মগোটা ভস্ম হইল তক্ষকের ঘায়ে |
কতদূর উড়াইয়া নিল তার বায়ে ||
মন্ত্রবলে ব্রহ্মগোটা জীল আরবার |
আপনা রাখিতে গুরু লাগে কত ভার ||
ঔষধের ঝুলি গুরু থুইলা কোথায় |
তাহাতে আছে বুঝি জীবন উপায় ||
তাহারে আন গুরু দৃঢ় করি মতি |
বিজয় গুপ্ত বলে তাহা নিল পদ্মাবতী ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

               ২০
ওঝা বলে শিষ্য সব শুনহ বচন |
ঔষধ আনিয়া ঝাটে রাখহ জীবন ||
মলেয়া মন্দার মেরু হিমালয় গিরি |
তাহাতে ঔষধ আছে নামে শ্রীহরি ||
সেই ঔষধ আন গিয়া রাত্রের ভিতর |
তবে সে জানিও বাপ আমার নিস্তার ||
মেরুদন্ড গুরুর যে রাখিও যতনে |
রাখিও গুরুরে সবে অতি সাবধানে ||
আমি কি কহিব গুরু তুমি জান ভালে |
লাগিল ঘরেতে চুরি নাই কোন কালে ||
অমাবস্যার চান্দ গুরু ঘরে করে বন্দী |
তিন কালের সার গুরু জানে নানা ফন্দী ||
পূর্ণিমার চন্দ্র যেন যোলকলা পূর্ণ |
ষোলকলা পরিপূর্ণ এই তার চিহ্ন ||
যাবৎ না আসি গুরু ঔষধ লইয়া |
তাবৎ থাকিও গুরু সাবধান হইয়া ||
লইয়া পায়ের ধুলি চলিল সত্বর |
গাইছে বিজয় গুপ্ত মনসার বর ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

২১

চলিল ধোনা মোনা                           ওঝারে করিয়া মানা
পর্বতে ঔষধ আনিবারে |
বিশাল্য করণী আনি                        বাঁচাইতে ওঝার প্রাণী
ঘা মুখে লাগায়ে দিয়ে তারে ||
তোমারে কহিলাম সার                        সব দেখি অন্ধকার
মন্ত্র মোর মুখে নাহি আসে |
রহে মোর কলেবর                               সঘনেতে বহে স্বর
নাশিল আমার বুদ্ধি বিষে ||
বিষেতে করিল অন্ধ                           নাহি বুঝি ভাল মন্দ
অস্থির করিল মোরে বিষে |
ঔষধের ঝুলি হরি                               নিয়া গেল বিষহরি
প্রাণ মোর রহিবে কিসে ||
শুনিয়া ওঝার বচন                               চলিল যে দুই জন
যথায় ঔষধ শীঘ্রগতি |
বিশাল্যকরণী পাই                              তবে আর ভয় নাই
ঔষধ আনিব এই রাতি ||
ঔষধ লইয়া হাতে                             ধোনা মোনা হরষিতে
চলিলেক ধন্বন্তরি যথা |
হেন কালে নদীতীরে                        ওঝারে সৎকার করে
কমলা সঙ্গেতে জ্বলে চিতা ||
তার মাঝে চিতাপরি                           কান্দে সব গড়াগড়ি
শিষ্যগণ কান্দে উচ্চৈস্বরে |
তাহা দেখি দুইজন                               বিস্মিত হইল মন
মায়া বলে সকল পাসরে ||
কপটেতে বিষহরি                               কমলার বেশ ধরি
ডাকিলেন পুত্র পুত্র বলি |
আহা রে দারুণ বিধি                      হারালেম আঁচলের নিধি
প্রভু বিনা হারালেম সকলি ||
কমলারে দেখে সবে                            দুভাই ব্যাকুল তবে
মস্তকে হইল বজ্রাঘাত |
কমলা নিকটে এল                              ঔষধ কুন্ডে ফেলিল
কান্দে দোহে মাথে দিয়া হাত ||
কিবা পুত্র পরিবার                             ঘরেতে না যায় আর
কান্দে দোহে পড়িয়া ভূমিত |
যদি ইচ্ছা কর সতী                               ভজ তবে পদ্মাবতী
বৈদ্য বিজয় গুপ্তের রচিত ||
তুমি যে আমার গুরু                           জ্ঞানেতে হও কল্পতরু
সংসারে তোমা নাহি বৈরী |
সবে তোমা ভালবেসে                          কিবা দেবে কি মানুষে
ভিন্ন ভাবে দেখে বিষহরি ||
তুমি চলে যাও কোথা                         আমাকে ফেলিয়া হেথা
হেথা রব আর কি সাহসে |
মনসা-চরিত গীত                                  শুনিলে সে সুললিত
গাইলেন মনসার  দাসে  ||

.                                                          ****************                                                
সূচি...    


মিলনসাগর
*
চান্দর সঙ্গে বাদের উপায় কি ||
আপনে না করে পূজা জগতে করে মানা |
পথে ঘাটে দেয় বেটা চৌকি আর থানা ||
বিজয় গুপ্ত কবি কহে কীর্তি মনসার|
ধন্বন্তরি বধ পালা এইখানে সোসর ||

.              ****************                                                                 
সূচি...    


মিলনসাগর
*
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা


রত্ন সিংহাসনে আছেন বিষহরি |
ডাক দিয়া আনিলেন রজক কুমারী ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

              ৩
আপন পুরীতে তবে গেল বিষহরি |
ডাক দিয়া আনিলেক রজক কুমারী ||
পদ্মা বলে শুন  নেতা আমার বচন |
যে কথা কহি আমি তাহে দেও মন ||
একে একে বলিল দেবী যত বিবরণ |
যেরূপ চতুর দেখিলাম শঙ্কুর শিষ্যগণ ||
কাটিলাম গুয়াবাড়ি জীয়াইল ধন্বন্তরি |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

            ৬
শুনি কোপ বাড়িলেক দেবী মনসার |
শুনিয়া গোয়ালিনী বলে আরবার ||
কর্ম করাইতে ভাল পাইয়াছি ভাতার |
শিষ্যের বচনে দেবী বলে আরবার ||
যে জন আমার ধন দেখিতে না পারে |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

             ৭
তোমার জাতি ধর্ম ভাল শুন গো সুন্দরী |
দুনা কড়ি লও যেবা লয় চিতে |
ভালমন্দ জান তোমরা কোঁদল করিতে ||
আর যত কড়ি পাও যেই সোই রীতে |
দুঃখ হয় গোয়ালিনী সে সব বলিতে ||
পসার ভাঙ্গিয়া তোমার হাঁড়ি কর চূর |
আমার ঠাঁই দেখাও তোমার হার কেয়ুর ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

               ৯
গোয়ালিনী বলে আমি সত্য করি কই |
কোন কালে বেচি নাই চুকা ঘোল দই ||
সর্বলোকে খায় দধি স্বাদ নহে টুটা |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

             ১৩
নেতার বচনে পদ্মাবতী স্থির করে মন |
দিব্যবস্ত্র অলঙ্কার লইল তখন ||
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

              ১৬
শিশুকালে যখন পুষিল বাপ মায় |
একমনে পূজিলাম ধোপাঝীর পায় ||
গুরুবরে দেখিলাম সাক্ষাৎ দেবকায়া |
কবি বিজয় গুপ্তর
মনসা মঙ্গল

ধন্বন্তরি বধ পালা

              ২২
বসিল দুই শিষ্য ঝাড়ি গায়ের ধূলা |
এই পাতায় কোনো ভুল-ত্রুটি চোখে পড়লে অথবা যদি
কোথাও ভুল বলে মনে হয়, তাহলে আমাদের এই ইমেলে
জানাবেন। আমরা শুধরে নেবার চেষ্টা করবো।
srimilansengupta@yahoo.co.in