রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গল কাব্য
কবি রূপরাম চক্রবর্তীর ধর্মমঙ্গলের পরিচিতির পাতায় . . .
রূপরামের ধর্মমঙ্গল কাব্যের সূচি
পরিসর সুন্দর পূজার হৈল স্থল |
দ্বিজ রূপরাম গান ধর্মের মঙ্গল ||

জয়ধ্বনি শঙ্খধ্বনি হাকন্ড ভুবনে |
সন্ন্যাসী ভকিতা নাচে হরযিত মনে ||
ঢাকে কাঠি দিলেক বাইতি হরিহর |
বেত হাতে নাচেন দুর্লভ সদাগর ||
আইস রে ভকিত্যা ভাই হাকন্ড সিনাব |
জ্ঞান অজ্ঞানের পাপ তীর্থে খন্ডাইব ||
হাসিতে নাচিতে সভে করিল গমন |
হাকন্ড নদীর ঘাটে দিল দরশন ||
তিনবার কুশজলে করিল বন্দনা |
জল পরশিতে হৈল পাবকের সোনা ||
পূর্বমুখে সন্ন্যাসী ভকিতা করে স্নান |
এক ডুবে যতী হৈল পতঙ্গ সমান ||
তর্পণ করিল জলে ময়নার রাজা |
শুভক্ষণে আরম্ভ করিল ধর্মপূজা ||
পুথি হাতে সমুখে পন্ডিত পুরোহিত |
ভকিতা পূজায় বৈসে মন হরষিত ||
পূজার সমুখে বৈসে সামুলা আমিনি |
আদ্যপূজা আরম্ভিল পূর্বের কাহিনী ||
পূজার আরম্ভ হৈল নানা উপহার |
আতব তন্ডুল চিনি বিশাশয় ভার ||
চাঁপাকলা খন্ড চিনি কাঁচদুগ্ধ রচনা  |
পাঁচ ভাজা পরিপাটি পীযুষ তুলনা ||
ধর্মপূজা লাউসেন করে দিবানিশি |
দিন প্রতি দশ লক্ষ গণিয়া তুলসী  ||
আশী মণ ধুনা পুড়ে  অঙ্গের উপর |
তবু দয়া না করে দিনের দিবাকর ||
সন্ন্যাসী ভকিতা পূজা করে চারিপানে |
অর্ঘ্য হাতে লাউসেন বলে বিদ্যমানে ||
অহে ধর্মঠাকুর দিনের দিবাকর |
বিনয় করিয়া মাগি পশ্চিমউদয় বর ||
অবোধ ভূপতি পাত্র যুক্তি নাঞি বুঝে |
মামার বচনে মাস্বা পশ্চিমউদয় খুঁজে ||
তুলবন্দী গৌড়ে জননী জন্মদাতা  |
অকারণে এত দুঃখ  দিলেক  বিধাতা ||
ছোট ভাই কর্পুর মায়ের সেবা করে |
আমি আদ্যপূজা দিব অস্তগিরিতীরে ||
তিন যাম পশ্চিমউদয় দিবে করতার  |
জনক জননী তবে গৌড়ে উদ্ধার ||
ভকতবত্সল তুমি ভকতের পতি |
পুরাণে শুনিলুঁ তুমি পান্ডব-সারথি ||
কেহ বলে পান্ডব পুড়িল জৌঘরে |
সে সব ধর্মের মায়া কে বুঝিতে পারে ||
পরিত্রাণ প্রভুতায় করিলে আপনি |
ভকতবত্সল তুমি সব ঠাঞি শুনি ||
মহিমা শুনিলুঁ বড় গজেন্দ্রমোক্ষণে |
অর্জুনের সখা তুমি বিদিত ভুবনে ||
তুমি দয়া করিলে সকল ঠাঞি জয় |
সবে দিবে বার দন্ড পশ্চিম উদয় ||
এত বলি কান্দেন সূর্যের রথ চায়্যা |
বারটি ভকিতা কান্দে জোড়হাথ হয়্যা ||
মাথায় পুড়িছে ধুনা ইছারাণা হাড়ি |
ধর্মজয় বলি বেটা যায় গড়াগড়ি ||
কাজলবরণ বাট্বা লুটে দুই কান |
গলায় রুদ্রাক্ষ মালা ধর্মকে ধিয়ান ||
সব গাএ চন্দন নিয়ম নিরাহার |
তরণি-বদনে বলে কোথা করতার ||
পূর্বমুখে সন্ন্যাসী ভকিতা অর্ঘ্য দেই |
চাঁপাকলা কাঁচদুগ্ধ জবা যুথী লেই ||
অর্ঘ্য দিল লাউসেন ধর্মের চরণে |
জয়ধ্বনি শঙ্খধ্বনি হাকন্ড ভুবনে ||
এক অর্ঘ্য দিলেন দুর্লভ সদাগর |
গোউড়ে পাত্রের মুন্ডে পড়িল বজ্জর ||
এইরূপে লাউসেন ধর্মের দিল পূজা |
বার দিয়া গোউড়ে বস্যাছে মহারাজা ||
বারভূঞা সংহতি বস্যাছে গৌড়েশ্বর |
ষোল পাত্র বস্যাছে রাজার বরাবর ||
বাহাত্তর মন্ডল শোভিছে সারি সারি |
ভূপাল মান্ধাতা কত কালদন্ডধারী ||
কুলীন পন্ডিত কবি সভে বিদ্যমান |
রাজার সমুখে কেহ পড়িছে পুরাণ ||
সভাজন কান্দে শুনি বকাসুর বধ |
মনে অনুমান করে পাত্র মহামদ ||
পশ্চিমউদয় দিতে গেল লাউসেনভাগিনা |
বিনাশ করিব তার দক্ষিণ ময়না ||
কলিঙ্গা কানড়া দিব হাসন হুসনে |
নব লক্ষ সৈন্য লব ময়না ভুবনে ||
স্বর্ণপুরী ময়না করিব ছারখার |
উভদলে অবশ্য কালিনী হব পার ||
রঞ্জাবতী কর্ণসেন গৌড় কারাগারে |
বীর কালু লখ্যা আর কি করিতে পারে ||
নতুবা কালুর সঙ্গে করিব পিরিত |
ইনাম করিব তারে কুল পুরোহিত ||
মহল ধোয়াব তার না রাখিব দিশা |
কালুকে বলিব তায় বুনিতে সরিসা ||
এই সব যুকতি চিন্তিল মনে মন |
জোড়হাতে রাজার চরণে নিবেদন ||
তুমি রাজা আমি পাত্র বঙ্গের উপর |
নিবেদন বিশেষ তোমার বরাবর ||
পশ্চিমউদয় দিতে গেল লাউসেনভাগিনা |
আচম্বিতে গন্ডা আসি বেড়িল ময়না ||
দিবা দ্বিপ্রহরে গন্ডা উখাড়য়ে মাটি |
তিন সন্ধ্যা ময়নার নাঞি ছড়া-ঝাটি ||
তামলি পালায় গুয়া করে হুড়মুড় |
মোদক পালায়্য যায় পেলি তার গুড় ||
কাএস্ত পালায় পেলি কাগজের গড়া |
ব্রাহ্মণ সকল হৈল চারিবেদ ছাড়া ||

.  ******************     

.                                                 
জাগরণ পালার পরের পৃষ্ঠায় . . .  
.                                                                      
পাতার উপরে . . .   


মিলনসাগর
১    বন্দনা  পালা     
.          
গনেশ বন্দনা    
.          
ধর্ম্ম বন্দনা    
.          
ঠাকুরাণী বন্দনা     
.          
চৈতন্য বন্দনা    
.          
সরস্বতী বন্দনা     
.          
বিপ্র বন্দনা      
.          
দিগ্ বন্দনা    
২   
আত্মকাহিনী    
৩   
স্থাপনা পালা    
৪    
আদ্য ঢেকু পালা    
.           
গজেন্দ্র মোক্ষণ    
৫    
রঞ্জার বিবাহপালা     
৬   
লুইচন্দ্র পালা     
৭   
শালেভর পালা    
৮   
লাউসেনের জন্মপালা      
.            
পরিশিষ্ট, জন্মপালা      
৯   
লাউসেন চুরিপালা    
১০
আখড়া পালা     
১১
ফলানির্মাণ পালা     
১২
মল্লবধ পালা      
১৩
বাঘজন্মপালা     
১৪
বাঘবধ পালা      
১৫
জামতি পালা      
১৬
গোলাহাটপালা      
১৭
হস্তিবধপালা      
১৮
কাঙুরযাত্রাপালা      
১৯
কলিঙ্গাবিভাপালা     
২০
লৌহগন্ডারপালা       
২১
কানড়াবিভাপালা      
২২
অনুমৃতাপালা     
২৩
ইছাইবধপালা     
২৪
অঘোরবাদলপালা     
২৫
জাগরণপালা     
২৬
স্বর্গারোহণপালা     
রূপরামের ধর্ম্মমঙ্গল
জাগরণ পালা
পৃষ্ঠা                    ১০  ১১  ১২  ১৩  ১৪  ১৫  ১৬  ১৭  ১৮  ১৯  ২০